গবেষণায় পাওয়া গেল নতুন তথ্য অ্যান্টিবায়োটিক নিয়ে

194532medicin-655x360

শেয়ারবাজার ডেস্ক :  অ্যান্টিবায়োটিক শুরু করলে ওষুধের পুরো কোর্স শেষ করা সব সময় উচিত কি না, তা এখন খতিয়ে দেখার সময় এসেছে বলে মনে করছেন ব্রিটিশ মেডিক্যাল জার্নালের বিশেষজ্ঞরা।

গবেষকরা বলছেন, সুস্থ বোধ করলে অ্যান্টিবায়োটিক খাওয়া যদি থামিয়ে দেওয়া হয়, তাহলে সেভাবে অ্যান্টিবায়োটিকের ব্যবহার কমানো সম্ভব কি না এ নিয়ে আরও গবেষণা প্রয়োজন।

ইংল্যান্ডের ডাক্তারদের সংস্থা রয়্যাল কলেজ অফ জেনারেল প্র্যাকটিশনারস্-এর প্রধান প্রফেসর হেলেন স্টোকস্-ল্যামপার্ড বলেছেন রোগের উপসর্গ কমে যাওয়া বা ভাল বোধ করার অর্থ এই নয় যে, সংক্রমণ পুরোপুরি কেটে গেছে। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘রোগীদের জন্য যেটা গুরুত্বপূর্ণ সেটা খুবই পরিস্কার-সব সময়ই যেটা আমরা বলেছি যে অ্যান্টিবায়োটিকের পুরো কোর্স নিতে হবে।

ইংল্যান্ডের বিভিন্ন অংশের একদল গবেষক যুক্তি দেখিয়েছেন অ্যান্টিবায়োটিকের প্রতি মানুষের শরীরে যে প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে উঠছে সেই সমস্যার মোকাবেলা করতে হলে অ্যান্টিবায়োটিকের ব্যবহার কমানোটা জরুরি।

এ বিষয়ে তারা বলছেন পুরনো ধারণা ছিল দীর্ঘদিন অ্যান্টিবায়োটিক সেবন না করালে সংক্রমণ ভেতরে রয়ে যাবে এবং অ্যান্টিবায়োটিকের প্রতি শরীরের প্রতিরোধ গড়ে ওঠার ঝুঁকি তৈরি হবে। তারা বলছেন এই ধারণা এখন সাবেকী।

গবেষকরা বলছেন, এখন যেটা বেশি করে প্রমাণিত সেটা হল তিন থেকে পাঁচদিনের সংক্ষিপ্ত অ্যান্টিবায়োটিক চিকিৎসা বহু ধরনের সংক্রমণের ক্ষেত্রে একইভাবে কাজ করে।

অধ্যাপক লোয়েলিন বলেছেন এর ব্যতিক্রম অবশ্যই আছে। যেমন যক্ষ্মার চিকিৎসায় শুধু এক ধরনের অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহার করলে দ্রুত ওই অ্যান্টিবায়োটিক কাজ করার ক্ষমতা হারিয়ে ফেলে।

গবেষণায় আরও বলা হয়েছে হাসপাতালগুলোতে এখন রোগের গুরুত্ব বিবেচনা করে অ্যান্টিবায়োটিক চিকিৎসা দেওয়ার প্রবণতা বাড়ছে এবং অল্পদিনের কোর্সে অ্যান্টিবায়োটিক দেওয়ার দিকেও ডাক্তাররা ঝুঁকছেন। গবেষকরা অবশ্য স্বীকার করেছেন অল্পদিনের জন্য অ্যান্টিবায়োটিক চিকিৎসা দেবার সুফল বা কুফল নিয়ে আরও গবেষণার প্রয়োজন আছে।

ব্রিটেনের চিকিৎসকরা বলেছেন তারা কখনোই সব রোগীকে এক কাতারে ফেলে অ্যান্টিবায়োটিক দেন না। তারাও ব্যক্তিবিশেষের রোগের গুরুত্ব বিবেচনায় নিয়ে চিকিৎসা পরামর্শ দেন।

শেয়ারবাজারনিউজ/পা.

আপনার মন্তব্য

*

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Top