মেয়র আনিসুল হকের মৃত্যুর গুজব!

anisul-haqশেয়ারবাজার ডেস্ক: ফেসবুক ও একাধিক বেনামী অনলাইন নিউজ পোর্টালে মেয়র আনিসুল হকের মৃত্যুর গুজব ছড়িয়েছে। সময় যত গড়াচ্ছে ততই ভাইরাল হয়ে পড়ছে সংবাদটি। তবে মেয়র আনিসুল হক মারা যায়নি বরং লন্ডনের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার উন্নতি হচ্ছে বলে তার স্ত্রী রুবানা হককে উদ্ধৃত করে শনিবার যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশ হাই কমিশনের সদ্য বিদায়ী প্রেস মিনিস্টার নাদিম কাদির এ তথ্য জানিয়েছেন। তিনি বলেন, “আনিসুল হকের অবস্থা আগের চেয়ে ভালো।”

সেরিব্রাল ভাসকুলাইটিসে (মস্তিষ্কের রক্তনালির প্রদাহ) আক্রান্ত আনিসুল গত ৪ আগষ্ট থেকে লন্ডনের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তাকে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) ঘুম পাড়িয়ে রাখা হয়েছে।এদিকে আনিসুলের শারিরীক অবস্থা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে গুজব না ছড়াতে সবার প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন আনিসুলের মালিকাধীন জাগো টিভির পরিচালক আবদুন নুর তুষার।

এক ফেইসবুক পোস্টে তিনি লিখেছেন, “আল্লাহর ওয়াস্তে থামেন! আমি, রুবানা হক, আনিস ভাইয়ের ছেলেমেয়েরা সবাই পালাক্রমে তাকে প্রতিদিন হাসপাতালে দেখতে যাই। এক মিনিট আগে আমি রুবানা হকের এর সাথে কথা বলেছি। তিনি তাকে হাসপাতালে দেখে ডাক্তারদের সাথে কথা বলে এসেছেন l

“তিনি দীর্ঘ সময় আইসিইউতে ঘুমে ছিলেন। এখন ধীরে ধীরে তাকে ওষুধ কমিয়ে এনে ডাক্তাররা পরবর্তী ধাপের চিকিৎসা দিচ্ছেন। আপনারা এতো হৃদয়হীন যে প্রতিদিন তার মৃত্যুর গুজব ছড়াচ্ছেন!”
আনিসুলের ‘পরবর্তী ধাপের চিকিৎসা’ চলছে
মেয়ের সন্তান জন্মদান উপলক্ষে গত ২৯ জুলাই লন্ডনে যান আনিসুল হক। সেখানে অসুস্থ বোধ করায় হাসপাতালে গেলে গত ৪ অগাস্ট পরীক্ষা চলার মধ্যেই তিনি সংজ্ঞা হারান।পরে তার সেরিব্রাল ভাসকুলাইটিস শনাক্ত করেন চিকিৎসকরা।

আনিসুল হকের পরিবারের ঘনিষ্ঠ একজন সে সময় বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেছিলেন, বেশ কিছুদিন ধরেই মেয়রের মাথা ঘোরার সমস্যা দেখা যাচ্ছিল। কিছুক্ষণ খারাপ লাগার পর আবার ঠিক হয়ে যেত।

“ঢাকায় তিনি বিশেষজ্ঞ ডাক্তার দেখিয়েছিলেন। ঢাকার চিকিৎসরা তাকে বিশ্রাম নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছিলেন। কিছুদিন আগে সিঙ্গাপুরে গেলে সেখানেও চিকিৎসকরা একই কথা বলেছিলেন।”

ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি আনিসুল হক ২০১৫ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র নির্বাচিত হন।

শেয়ারবাজারনিউজ/ম.সা

আপনার মন্তব্য

*

*

Top