আজ: শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ইং, ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১০ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

২৭ এপ্রিল ২০১৫, সোমবার |



kidarkar

তসরিফার আইপিও লটারির ফল প্রকাশ: রিফান্ড বিতরণ ২ মে

Tosrifa2 copyশেয়ারবাজার রিপোর্ট: প্রাথমিক গণ প্রস্তাব (আইপিও) লটারির ফলাফল প্রকাশ করেছে বস্ত্র খাতের কোম্পানি তররিফা ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড। আবেদনকারীদের মধ্যে শেয়ার বরাদ্দ দেয়ার জন্য সোমবার সকাল সাড়ে ১০টায় রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে  শুরু হয় এ কোম্পানির আইপিও লটারির ড্র।

আইপিওর লটারির ড্র অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন কোম্পানির প্রধান অর্থকর্মকর্তা মো: জিল্লুর রহমান। এ সময় কোম্পানি সচিব মো. হায়দার, আইডিএলসি ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. মনিরুজ্জামান,  পোস্ট ইস্যুয়ার প্রতিষ্ঠান সেটকমের চেয়ারম্যান মো. ওয়ালিওল্লাহ এবং ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

ফলাফল দেখতে এখানে ক্লিক করুন:

ব্যাংক কোড:

সাধারণ বিনিয়োগকারী:

প্রবাসী বিনিয়োগকারী:

ক্ষতিগ্রস্থ বিনিয়োগকারী:

মিউচ্যুয়াল ফান্ড:

রিফান্ড ওয়ারেন্ট:

 

এদিকে তসরিফা ইন্ডস্ট্রিজ লিমিটেডের এ্যালটমেন্ট লেটার বা বরাদ্দপত্র ও রিফান্ড ওয়ারেন্ট বিতরণ আগামী ২ মে শনিবার শুরু হবে। এ কোম্পানির রিফান্ড ওয়ারেন্ট ২ মে থেকে শুরু হয়ে ৫ মে মঙ্গলবার পর্যন্ত বিতরণ করা হবে। প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ব্যাংক রশিদের বিনিময়ে বরাদ্দপত্র এবং রিফান্ড ওয়ারেন্ট বিতরণ চলবে। ঢাকা জেলা ক্রীড়া সংস্থা ও এজিবি কলোনি কমিউনিটি সেন্টার থেকে বরাদ্দপত্র এবং রিফান্ড ওয়ারেন্ট সংগ্রহ করতে পারবেন আবেদনকারীরা।

জানা গেছে, ২ মে শনিবার ‘ঢাকা জেলা ক্রীয়া সংস্থায়’ ব্র্যাক ব্যাংক এবং ইনভেস্টমেন্ট কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ (আইসিবি) লিমিটেডের অনুমোদিত সকল শাখা সমূহের বরাদ্দপত্র ও রিফান্ড ওয়ারেন্ট বিতরণ করা হবে।

৩ মে রোববার ‘ঢাকা জেলা ক্রীয়া সংস্থায়’ ইস্টার্ণ ব্যাংক, কমার্শিয়াল ব্যাংক এবং ইসলামি ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের অনুমোদিত সকল শাখা সমূহের বরাদ্দপত্র ও রিফান্ড ওয়ারেন্ট বিতরণ করা হবে। একই দিনে ‘এজিবি কলোনি কমিউনিটি সেন্টারে’ মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক লিমিটেডের অনুমোদিত শাখা সমূহের বরাদ্দপত্র ও রিফান্ড ওয়ারেন্ট বিতরণ করা হবে।

৪ মে, সোমবার ‘ঢাকা জেলা ক্রীয়া সংস্থায়’ সাইথইস্ট ব্যাংক এবং প্রাইম ব্যাংক লিমিটেডের অনুমোদিত সকলশাখা সমূহের বরাদ্দপএ ও ওয়ারেন্ট রিফান্ড বিতরণ করা হবে। এছাড়াও ‘এজিবি কলোনি কমিউনিটি সেন্টারে’ ওয়ান ব্যাংক লিমিটেডের অনুমোদিত শাখা সমূহের বরাদ্দপএ ও ওয়ারেন্ট রিফান্ড বিতরণ করা হবে।

৫ মে, মঙ্গলবার ‘ঢাকা জেলা ক্রীড়া সংস্থায়’ সিটি ব্যাংক এবং অনিবাসী বাংলাদেশী (এনআরবি) অনুমোদিত সকল মিউচ্যুয়াল ফান্ড ও পোর্টফলিও ও পোর্টফলিও হিসাবসমূহের বরাদ্দপএ ও ওয়ারেন্ট রিফান্ড বিতরণ করা হবে। এছাড়া ‘এজিবি কলোনি কমিউনিটি সেন্টারে’ এনসিসি ব্যাংক এবং দি প্রিমিয়ার ব্যাংক লিমিটেডের অনুমোদিত সকল শাখা সমূহের বরাদ্দপত্র ও রিফান্ড ওয়ারেন্ট বিতরণ করা হবে।

উল্লেখ্য, যারা নির্ধারিত তারিখের মধ্যে রিফান্ড ওয়ারেন্ট সংগ্রহ করতে ব্যর্থ হবে, তাদের নিজ ঠিকানায় তাদের ঝুঁকিতে কুরিয়ারের মাধ্যমে পাঠানো হবে। তবে যেসব বিনিয়োগকারী এবি ব্যাংক লিমিটেড, আল-আরফা ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড, আল-ফালাহ ব্যাংক, ব্যাংক এশিয়া লিমিটেড, ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেড, কমার্শিয়াল ব্যাংক অব সিলন পিএলসি, ঢাকা ব্যাংক লিমিটেড, ডাচ্-বাংলা ব্যাংক লিমিটেড, ইস্টার্ন ব্যাংক লিমিটেড, এক্সিম ব্যাংক লিমিটেড, ফাস্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড,হাবিব ব্যাংক, এইচএসবিসি ব্যাংক, আইএফআইসি ব্যাংক, ইসলামি ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড, মিডল্যান্ড ব্যাংক, যমুনা ব্যাংক লিমিটেড, মার্কেন্টাইল ব্যাংক লিমিটেড, মিউচুয়্যাল ট্রাস্ট ব্যাংক লিমিটেড, ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেড, ন্যাশনাল ব্যাংক অব পাকিস্তান, এনসিসি ব্যাংক লিমিটেড, ওয়ান ব্যাংক লিমিটেড, প্রিমিয়ার ব্যাংক লিমিটেড, প্রাইম ব্যাংক লিমিটেড, শাহাজালাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড, সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড, সাউথ বাংলা এগ্রিকালচার অ্যান্ড কমার্স ব্যাংক (এসবিএসি)লিমিটেড, সাউথইস্ট ব্যাংক লিমিটেড, স্ট্যান্ডার্ড চার্টাড ব্যাংক, স্টেট ব্যাংক অব ইন্ডিয়া, দি সিটি ব্যাংক ট্রাস্ট ব্যাংক এবং ট্রাস্ট ব্যাংক লিমিটেডে যাদের অ্যাকাউন্ট আছে তাদের নিজ নিজ অ্যাকাউন্টে রিফান্ড জমা হয়ে যাবে। তবে প্রবাসী বিনিয়োগকারীরা এ সুযোগ পাবে না।

জানা যায়, এ কোম্পানির আইপিও আবেদনে সর্বমোট ৬৭০ কোটি ৩৬ লাখ ৯৪ হাজার ৪০০ টাকা বা  চাহিদার সাড়ে ১০ গুণ বেশী আবেদন জমা পড়েছে।

তসরিফা ইন্ডাস্ট্রিজের আইপিওতে সাধারণ বিনিয়োগকারীরা জমা দিয়েছেন ৫১৬ কোটি ২২ লাখ ১৬ হাজার ৮০০ টাকার আবেদন, ক্ষতিগ্রস্থ বিনিয়োগকারীরা দিয়েছেন ৫১ কোটি ১২ লাখ ২৭ হাজার ৬০০টাকা, প্রবাসী বিনিয়োগকারীরা দিয়েছেন ২১ কোটি ৪০ লাখ ৩২ হাজার টাকা এবং মিউচ্যুয়াল ফান্ডে জমা পড়েছে ৮১ কোটি ৬২ লাখ ১৮ হাজার টাকার আবেদন। যা মোট আবেদনের ১০.৫০ গুণ।

জানা যায়, এ কোম্পানির আইপিওতে স্থানীয় বিনিয়োগকারীরা ২৪ মার্চ থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত  আবেদন জমা দেন। আর প্রবাসী বিনিয়োগকারীদের জন্য  আইপিও আবেদনের সুযোগ ছিল ৯ এপ্রিল পর্যন্ত।

পুঁজিবাজার থেকে ৬৩ কোটি ৮৭ লাখ ২১ হাজার ২০০ টাকা সংগ্রহ করবে তসরিফা ইন্ডাস্ট্রিজ। এ লক্ষ্যে ২ কোটি ৪৫ লাখ ৬৬ হাজার ২০০টি শেয়ার ছাড়বে কোম্পানিটি। তসরিফা ইন্ডাষ্ট্রিজ প্রতিটি শেয়ার সর্বমোট ২৬ টাকায় ইস্যু করছে। এক্ষেত্রে ১০ টাকা ফেসভ্যালুর সঙ্গে ১৬ টাকা প্রিমিয়াম নির্ধারণ করা হয়েছে। আইপিও আবেদনের জন্য ২০০টি শেয়ারে একটি লট নির্ধারণ করা হয়েছে।

পুঁজিবাজার থেকে সংগৃহীত অর্থে বর্তমান ব্যবসায় সম্প্রসারণ ও আইপিও খাতে ব্যয় করবে  তসরিফা ইন্ডাস্ট্রিজ।

৩১ ডিসেম্বর ২০১৩ সমাপ্ত অর্থবছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী এ কোম্পানির  শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২.৪৯ টাকা এবং প্রতি শেয়ারে সম্পদ হয়েছে (এনএভি) ৩৪.৪১ টাকা।

কোম্পানিটির ইস্যু ম্যানেজাররের দায়িত্বে রয়েছে আইডিএলসি ইনভেস্টমেন্টস লিমিটেড।

এর আগে বাংলাদেশ সিকিরিটিজ এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) ৫৩৮তম সভায় এ কোম্পানিকে আইপিওর অনুমোদন দেয়া হয়।

 

শেয়ারবাজারনিউজ/অ

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.