পদ্মাবতীকে নিয়ে উত্তাল ভারত!

RUHশেয়ারবাজার ডেস্ক: ইতিহাস নির্ভর ভারতীয় সিনেমা ‘পদ্মাবতী’। সিনেমাটি নির্মাণের শুরু থেকেই বিভিন্ন বাধা-বিপত্তির মধ্য দিয়ে যেতে হচ্ছে পরিচালক সঞ্জয়লীলা বানশালিকে। একের পর এক দুর্যোগ সিনেমাটির নির্মাণ থেকে শুরু করে সব কাজকেই পিছিয়ে দিচ্ছে। আবার রাজপুত করনি সেনা সহ হিন্দুত্ববাদী সংগঠনগুলির বিক্ষোভ, একের পর এক হুমকি ও বাধা চলছেই।

ভারতীয় গণমাধ্যম সূত্রে কিছুদিন আগে জানা যায়, আগামী ১ ডিসেম্বর মুক্তি পাচ্ছে না দীপিকা-শাহিদ-রণবীরের ‘পদ্মাবতী’। প্রথমে ফিল্মটি সেন্সর বোর্ডের কাছে পাঠানো হলেও পদ্ধতিগত কিছু সমস্যার কারণে সেটি ফেরত পাঠানো হয়েছে।

সমস্যাগুলি মিটিয়ে ফিল্ম নির্মাতাদের তরফে সেটি ফের সেন্সরের জন্য পাঠাতে নির্দেশ দিয়েছে সেন্ট্রাল বোর্ড অফ ফিল্ম সার্টিফিকেশন।

এছাড়া CBFC-র নিয়ম অনুসারে কোনও ফিল্ম জমা দেওয়ার পর তাকে সার্টিফিকেট দেওয়ার ক্ষেত্রে ন্যূনতম ৬১ দিন সময় লাগে। সেক্ষেত্রে ফিল্মটি সেন্সর বোর্ডে সার্টিফিকেট পেতে দেরি হলে কোনও ভাবেই ১ ডিসেম্বর মুক্তি করানো সম্ভব হবে না প্রযোজনা সংস্থার পক্ষে।

এরপরে সেন্সর থেকে বলা হয়েছিল পদ্মাবতীর কিছু দৃশ্য ডিলিট করার কথা। কিন্তু নির্মাতা সঞ্জয় লীলা ভানসালি তা করতে নারাজ। তাই সে সুপ্রিম কোর্টের শরণাপন্ন হন। আর আদালতও তার পক্ষে রায় দিয়েছে।

আদালতের ভাষ্যমতে, তারা সেন্ট্রাল বোর্ড অফ ফিল্ম সার্টিফিকেশনকে আরেকবার পুনর্বিবেচনার কথা জানিয়েছেন। দিপাক মিশরার তত্ত্বাবধানে এই রায় পাশ করা হয়।

শোনা যাচ্ছে ১ ডিসেম্বরের বদলে আগামী বছর ১২ জানুয়ারি মুক্তি পেতে পারে সঞ্জয়লীলা বনশালির ‘পদ্মাবতী’।

এদিকে ‘পদ্মাবতী’র মুক্তি রুখতে ইতিমধ্যে ১ ডিসেম্বর ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে করনি সেনা। তাঁদের অভিযোগ, কোনও ভাবেই রানি পদ্মিনীকে আলাউদ্দিন খলজির প্রেমিকা হিসাবে মেনে নেওয়া হবে না।

যদিও পরিচালক বনশালি থেকে শুরু করে সিনেমার কলা-কুশলীরা বারবার দাবি করে আসছেন, সিনেমায় কোনওভাবেই ইতিহাসকে বিকৃত করা হয়নি। তা সত্ত্বেও বিতর্ক থামছেই না।

এদিকে পদ্মাবতীর মুক্তি পিছনোর ঘটনায় ষড়যন্ত্র দেখছে বিরোধীরা। তাঁদের অভিযোগ, সেন্সর বোর্ডকে হাতিয়ার করে গুজরাট ভোটের আগে পদ্মাবতীর মুক্তি আটকাতে চাইছে মোদী সরকার।

শেয়ারবাজারনিউজ/মু

আপনার মন্তব্য

*

*

Top