মালিকানা বদলের গুজব: বলি হচ্ছেন বিনিয়োগকারীরা

Editorialপুঁজিবাজারে বেশকিছু কোম্পানির মালিকানা বদল গুজবের খবর এখন মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে। কোনো মতে বাজারে একটি কোম্পানির খবর ছড়ালেই সংশ্লিষ্ট কোম্পানির শেয়ার দর হু হু করে বাড়তে থাকে। এতে এক শ্রেণীর বিনিয়োগকারী আঙ্গুল ফুলে কলা গাছের স্বাদ পেলেও বেশিরভাগ বিনিয়োগকারীর হায় হায় করতে হচ্ছে। বিষয়টি বেশ উদ্বেগজনক হলেও নীতিনির্ধারণী মহল তথ্য-প্রমাণ আর অভিযোগের অভাবে কিছুই করতে পারছে না। এক্ষেত্রে বিনিয়োগকারীদেরই সচেতন হতে হবে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

গত একবছর ধরে মালিকানা যারা কিনছে এমন তালিকায় শীর্ষে রয়েছে এস আলম গ্রুপ। যেই কোম্পানিরই মালিকানা বদলের গুজব বের হয় সেটিই নাকি এস আলম গ্রুপ নামে বেনামে কিনে নেয়। অথচ এখনো পর্যন্ত তালিকাভুক্ত কোনো কোম্পানির মালিকানা এস আলম গ্রুপ কিনেছে বলে কোনো তথ্য প্রকাশিত হয়নি। সেন্ট্রাল ফার্মাসিউটিক্যালস আলিফ গ্রুপ কিনে নিচ্ছে এমন খবর গত এক বছর ধরে চলছে। সেই খবরে সেন্ট্রাল ফার্মার শেয়ার দর বেড়েছে। অথচ শেষ বেলায় দেখা গেলো আলিফ গ্রুপ আর সেন্ট্রাল ফার্মা কিনছে না। বিডি ওয়েল্ডিং, লিগ্যাসি ফুটওয়্যার, এমারেল্ড অয়েল, সিএনএ টেক্সটাইল, ফু-ওয়াং ফুড, বিচ হ্যাচারি, তুং-হাই নিটিং, অলটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ, ফ্যামিলিটেক্স, আইসিবি ইসলামী ব্যাংক ইত্যাদি কোম্পানির মালিকানা পরিবর্তনের খবর এখন ডিএসই পাড়া জুড়ে ছড়াচ্ছে।

অথচ আদৌ এসব খবরের কোনো ভিত্তি খুজে পাওয়া যায়নি। কোম্পানিগুলোর সঙ্গে কিংবা যারা কিনবে তাদের সঙ্গে সরাসরি বা মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে উল্টো তারা অবাক হয়ে যান। আর মালিকানা পরিবর্তনই হলেই যে রাতারাতি কোম্পানির অবস্থা পরিবর্তন হয়ে যাবে এমনটা ভাবাও অমূলক।

বর্তমানে প্রকৌশল খাতের কোম্পানি বিডি ওয়েল্ডিংয়ের শেয়ারদর ব্যাপক হারে বাড়ছে। চট্টগ্রামভিত্তিক একটি বড় কোম্পানি এর মালিকানায় আসছে, বাজারে এমন গুঞ্জন রয়েছে। গত মে মাসে যেখানে শেয়ারটির দর ছিল ১২ টাকা এখন তা ২৪ টাকা। এছাড়া লিগ্যাসি ফুটওয়্যারের মালিকানায় আসতে কুমিল্লা ইপিজেডের কোম্পানি রয়্যাল ডেনিম আলোচনা করছে বলে গুজব ছড়িয়েছে। এ খবরে শেয়ারটির দর গত জুনের ২০ টাকা থেকে বেড়ে গত অক্টোবরেই ৬০ টাকা ছাড়ায়।

তালিকাভুক্ত এমারেল্ড অয়েলের শেয়ারের মালিকানার পরিবর্তনের খবরে শেয়ারটির দর মাঝে মধ্যেই বাড়ছে। অবশ্য বেসিক ব্যাংক ঋণ কেলেঙ্কারিতে দুদকের মামলায় জড়িয়ে এর এমডি পলাতক হওয়ার পর কোম্পানিটির উৎপাদন ঢিমেতালে চলছে। বর্তমান পর্ষদ ও ব্যবস্থাপনা এর মালিকানায় পরিবর্তন আনার চেষ্টা করছেন। তবে ফল এখনও শূন্য।

গত প্রায় দেড় বছর ধরে গুঞ্জন আছে এস আলম গ্রুপ বস্ত্র খাতের কোম্পানি সিএনএ টেক্সটাইলের উদ্যোক্তা-পরিচালকদের শেয়ার কিনে নিচ্ছে। বাণিজ্যিক ব্যাংকের পাশাপাশি কয়েকটি ব্যাংকবহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠানও এ গ্রুপটি কিনতে যাচ্ছে বলে গুঞ্জন রয়েছে। নির্ভরযোগ্য বেশকিছু সূত্রে খবরটি সত্য বলে জানালেও সিএনএ টেক্সটাইলের চেয়ারম্যানের বক্তব্য সম্পূর্ণ বিপরীত।  ফু-ওয়াং ফুডের মালিকানার পরিবর্তনের খবরে গত জুনে শেয়ারটির দর ছিল ১৫ টাকা থেকে আগস্টেই তা ২৭ টাকায় ওঠে। এছাড়া গুঞ্জন আছে বস্ত্র খাতের তুং-হাই নিটিং ও অলটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ কিনতে যাচ্ছে আলিফ গ্রুপ। এ ছাড়া বন্ধ কোম্পানি বিচ হ্যাচারি, বস্ত্র খাতের ফ্যামিলিটেক্স, ব্যাংক খাতের আইসিবি ইসলামিকের মালিকানায় বড় পরিবর্তনের গুজব আছে।

এসব গুজবের খপ্পরে পড়ে এক শ্রেণীর বিনিয়োগকারীরা স্বল্প সময়ে লাভবান হচ্ছেন। অন্যদিকে যারাই তাদের ফাঁদে পা দিচ্ছেন তারাই ক্ষতির মুখে পড়ছেন। এ বিষয়ে বিনিয়োগকারীদের সচেতন হওয়ার কোনো বিকল্প নেই। অবশ্য ফিন্যান্সিয়াল লিটারেসির মাধ্যমে নিয়ন্ত্রক সংস্থাসহ সিকিউরিটিজ হাউজে গুজবের বিষয়ে বিনিয়োগকারীদের সচেতন করা হচ্ছে। কিন্তু লোভ বড় ভয়ানক জিনিষ। আর লোভ ত্যাগ করে সঠিক ও বস্তুনিষ্ট তথ্যের ওপর ভিত্তি করে বিনিয়োগ করাই স্মার্ট বিনিয়োগকারীর লক্ষণ।

শেয়ারবাজারনিউজ/ম.সা

 

আপনার মন্তব্য

*

*

Top