ক্যাটাগরি পরিবর্তনে মার্জিন সুবিধা বন্ধ: পুনরায় আইনটি স্থগিত করা হোক

২০০৯ সালে মার্কেট ছোট ছিলো। ঐ সময়ে শেয়ার সংকটের পাশাপাশি দরও ছিলো আকাশচুম্বী। যে কারণে কোনো কোম্পানির ক্যাটাগরি পরিবর্তন হলে বা নতুন কোম্পানি বাজারে আসলে প্রথম ৩০ কার্যদিবস মার্জিন সুবিধা দেয়া যাবে না বলে ২০০৯ সালের ১ অক্টোবর নির্দেশনা জারি করে নিয়ন্ত্রক সংস্থা (কমিশনের আদেশ নং-এসইসি/সিএমআরআরসিডি/২০০১-৪৩/১৬৯:তারিখ: অক্টোবর ০১, ২০০৯ এবং এসইসি/সিএমআরআরসিডি/২০০১-৫০/১৬৭; তারিখ অক্টোবর ০১, ২০০৯)।

তবে ২০১০-১১ সালে বাজার ধসের পর বিনিয়োগকারীদের লেনদেনে আগ্রহী করতে ২০১২ সালের ২৮ নভেম্বর উক্ত নির্দেশনাটি বাতিল করে কমিশন। তারপর থেকে ক্যাটাগরি পরিবর্তনে বা নতুন কোম্পানি বাজারে আসার পর থেকেই মার্জিন সুবিধা ভোগ করে বিনিয়োগকারীরা। এ সুবিধা ভোগের  তিন বছর পর ২০১৫ সালের ২৭ অক্টোবর পুনরায় আগের নির্দেশনায় ফিরে যায় নিয়ন্ত্রক সংস্থা। অর্থাৎ ২০১২ সালের Directive no,SEC/CMRRCD/2009-193/140 dated 28/11/2012 এবং আদেশ নং এসইসি/সিএমআরআরসিডি/২০০৯-১৯৩/১৩৯; তারিখ : ২৮/১১/২০১২ বাতিল করা হয়।

এরপর থেকে এখন পর্যন্ত আগের মতোই ক্যাটাগরি পরিবর্তনে বা নতুন কোম্পানি বাজারে আসার প্রথম দিন থেকে মার্জিন ঋণ প্রদানে সিকিউরিটিজ হাউজ বা মার্চেন্ট ব্যাংকগুলোর ওপর নিষেধাজ্ঞা রয়েছে।

কিন্তু এখন ২০০৯ সাল নেই। ২০১৭ থেকে ২০১৮ তে পদার্পন করতে যাচ্ছে শেয়ারবাজার। মার্কেটে এখন ২০০৯ এর মত শেয়ার সংকট নেই। পুঁজিবাজার আগের মতো ছোট নেই অনেক বড় হয়েছে। এখন শুধু আস্থা আর তারল্য সংকটে পুঁজিবাজার ভুগছে। আর এই তারল্য সংকট কাটাতে বিএসইসির যুগপোযোগী সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করা জরুরি হয়ে পড়েছে। যদিও ইতিমধ্যে বাজারে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে বিভিন্ন আইন প্রণয়ন করা হয়েছে। কিন্তু আস্থা আর তারল্য সংকট থাকলে যতই ইনজেকশন পুশ করা হোক না কেন বাজার ভালো অবস্থানে থাকে না। তাই ক্যাটাগরি পরিবর্তনে মার্জিন ঋণের সুবিধা দেয়া হলে বাজারে তারল্য বাড়বে। আর যত লেনদেন বেশি হবে ততই বিনিয়োগকারীদের আস্থা ফিরে আসবে। এতে বিনিয়োগকারীরা উপকৃত হওয়ার পাশাপাশি সামগ্রিক বাজারেও উন্নতি ঘটবে।

আর ‘এন’ থেকে ‘এ’ ক্যাটাগরিতে আসলে শেয়ারের কোন ফান্ডামেন্টাল পরিবর্তন হয়না। তাছাড়া বিনিয়োগকারীরা এখন এতো বোকা নয় যে ক্যাটাগরি পরিবর্তন হলেই হুমড়ি খেয়ে শেয়ার কিনবে। তাই ২০০৯ সালে বিধিবদ্ধ করা এই আইনটির এখন পরিবর্তন করা দরকার। ক্যাটাগরি পরিবর্তনে অপ্রয়োজনীয় এই punishment রুলটি এখন বাজারের জন্য উপযোগী নয়। আইনটি black rule এ পরিণত না করে সময় উপযোগী করে তৈরি করা সময়ের দাবি হয়ে উঠেছে।

 

 

শেয়ারবাজারনিউজ/ম.সা

 

 

 

আপনার মন্তব্য

*

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Top