কম দরে শেয়ার কিনছেন বিনিয়োগকারীরা

শেয়ারবাজার রিপোর্ট: সপ্তাহের চতুর্থ কার্যদিবসে দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সূচকের উত্থানে শেষ হয়েছে লেনদেন। এদিন শুরু থেকেই ক্রয় প্রেসারে সূচক টানা বাড়লেও ২ ঘন্টা পর উত্থানের মাত্র কিছুটা হ্রাস পায়। বুধবার লেনদেন শেষে সূচকের পাশাপাশি বেড়েছে বেশিরভাগ কোম্পানির শেয়ার দর। আর টাকার অংকে লেনদেন আগের দিনের তুলনায় কিছুটা বেড়েছে। আলোচিত সময়ে ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৬২১ কোটি টাকা। যা দেড় মাসের সর্বোচ্চ।

উল্লেখ্য, এর আগে গত ২৮ ডিসেম্বর, ২০১৭ ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) লেনদেন হয়েছিলো ৬২৮ কোটি ৪ লাখ ৭৭ হাজার টাকা।

এ প্রসঙ্গে একাধিক মার্চেন্ট ব্যাংক ও ব্রোকারেজ হাউজের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, বেশকিছু দিন বাজরে শেয়ার দর নিম্নমূখী অবস্থান ছিলো। আর এমন বাজারে শেয়ার ক্রয় না করলে দীর্ঘমেয়াদে লাভবান হতে পারবেন না বিনিয়োগকারীরা। যার ফলে কম দামে শেয়ার কিনে নিচ্ছেন বিনিয়োগকারীরা। এ কারণে গতকালের ধারবাহিকতায় আজও বাজারে ক্রয় চাপ বেড়েছে।

আজ দিন শেষে ডিএসইর ব্রড ইনডেক্স আগের দিনের চেয়ে ১৩ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ৬১০২ পয়েন্টে। আর ডিএসই শরিয়াহ সূচক ৩ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ১৪১০ পয়েন্টে এবং ডিএসই ৩০ সূচক ৪ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ২২৫০ পয়েন্টে। দিনভর লেনদেন হওয়া ৩৩৫টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ১৭৫টির, কমেছে ১২৫টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৫টির। আর দিনশেষে লেনদেন হয়েছে ৬২১ কোটি ১৯ লাখ ৮৩ হাজার টাকা।

এর আগের কার্যদিবস অর্থাৎ সোমবার ডিএসইর ব্রড ইনডেক্স আগের দিনের চেয়ে ৬ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করে ৬০৮৮ পয়েন্টে। আর ডিএসই শরিয়াহ সূচক ১ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করে ১৪০৬ পয়েন্টে এবং ডিএসই ৩০ সূচক ১ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করে ২২৪৬ পয়েন্টে। আর ওইদিন লেনদেন হয়েছিল ৫০৩ কোটি ৬৬ লাখ ৭৮ হাজার টাকা। সে হিসেবে আজ ডিএসইতে লেনদেন বেড়েছে ১১৭ কোটি ৫৩ লাখ ৫ হাজার টাকা।

এদিকে, দিনশেষে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সাধারণ মূল্য সূচক সিএসইএক্স ৩১ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ১১ হাজার ৩৮৯ পয়েন্টে। দিনভর লেনদেন হওয়া ২৪১টি কোম্পানির ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ১৪৪টির, কমেছে ৭৭টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২০টির। আর দিনশেষে লেনদেন হয়েছে ২৬ কোটি ৩২ লাখ ৪৭ হাজার টাকা।

শেয়ারবাজারনিউজ/মু

আপনার মন্তব্য

Top