ব্যবসা পুনর্গঠনে সময় বাড়াতে বিএসইসি’র কাছে ইউনাইটেড এয়ারের আবেদন

শেয়ারবাজার রিপোর্ট: বন্ডের টাকা হাতে না পাওয়ায় আটকে আছে ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ (বিডি) লিমিটেডের পুনর্গঠন পরিকল্পনা। নিয়ন্ত্রক সংস্থার অনুমোদন পাওয়ার পরও পূর্বনির্ধারিত সময়ের মধ্যে স্কিম বাস্তবায়ন করতে পারেনি পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত এয়ারলাইন কোম্পানিটি। এজন্য বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) কাছে বাড়তি সময় চেয়ে আবেদন করেছে তারা।

সম্প্রতি বিএসইসির কাছে ইউনাইটেড এয়ার কর্তৃপক্ষের দেয়া চিঠি ও স্টক এক্সচেঞ্জের ডিসক্লোজার থেকে জানা গেছে, প্রাইভেট প্লেসমেন্টের মাধ্যমে বিদেশী একদল প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর নামে ৪০০ কোটি টাকার নতুন শেয়ার ইস্যু করে তাদের কাছ থেকে ৭টি উড়োজাহাজ ও যন্ত্রাংশ (তিনটি ইঞ্জিন) নেয়ার পরিকল্পনা অনুমোদনের আবেদন করেছিল ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ। প্রাপ্তব্য উড়োজাহাজগুলোর ডাউন পেমেন্ট, বর্তমান উড়োজাহাজগুলোর মেরামত, রক্ষণাবেক্ষণ ও কোম্পানির চলতি মূলধনের চাহিদা মেটাতে ২২৪ কোটি টাকার কুপন বিয়ারিং অবসায়নযোগ্য বন্ড ইস্যুরও অনুমোদন চেয়েছিল তারা। ২০১৬ সালেই বিএসইসি তাদের এ পরিকল্পনা অনুমোদন করে।

এর পরিপ্রেক্ষিতে এরই মধ্যে টিএসি এভিয়েশন লিমিটেড, ফিনিক্স এয়ারক্রাফট লিজিং প্রাইভেট লিমিটেড ও সুইফট এয়ার কার্গো নামের তিনটি কোম্পানির অনুকূলে নতুন শেয়ার ইস্যু করে ইউনাইটেড এয়ার। নির্ভরযোগ্য সূত্র নিশ্চিত করেছে, এসব শেয়ারসংশ্লিষ্টদের বিও হিসাবে এরই মধ্যে জমা হয়ে গেছে। তবে উড়োজাহাজের ডাউন পেমেন্ট দিতে না পারায় অন্য ৫টি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি বাস্তবায়ন করতে পারেনি তারা। বন্ড ইস্যু করতে না পারায় ডাউন পেমেন্ট দেয়ার মতো অর্থ কোম্পানির হাতে নেই।

বিএসইসিকে লেখা চিঠিতে কোম্পানিটি অভিযোগ করে, রেগুলেটরি অনুমোদনের পরও শুধু বন্ডের ম্যান্ডেটেড অ্যারেঞ্জার আইসিবি ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্টের কাছ থেকে যথেষ্ট সহযোগিতা না পাওয়াতেই বন্ড ইস্যু করে ২২৪ কোটি টাকা উত্তোলন করতে পারেনি তারা। এ কারণে মূলধন বাড়ানোর জন্য পাওয়া রেগুলেটরি অনুমোদনের মেয়াদও শেষ হয়ে গেছে।

দফায় দফায় নথিপত্র উপস্থাপন ও চিঠি চালাচালির পর বন্ডের অ্যারেঞ্জারের কাছ থেকে ইতিবাচক সাড়া পাওয়ায় এখন ইউনাইটেড এয়ার তাদের পরিকল্পনার অবশিষ্ট অংশ বাস্তবায়ন করতে আগ্রহী। তবে এখানে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে রেগুলেটরি অনুমোদনের মেয়াদ।

বিএসইসির কাছে দেয়া আবেদনে দেড় লাখ শেয়ারহোল্ডারের স্বার্থরক্ষায় কোম্পানি পুনর্গঠনের গুরুত্ব তুলে ধরেছে ইউনাইটেড এয়ার। ইকুইটি ও বন্ডের মাধ্যমে মূলধন বৃদ্ধির পূর্ববর্তী পরিকল্পনার পূর্ণ বাস্তবায়নের জন্য সময় বাড়িয়ে দেয়ার আবেদন করেছে তারা।

এ প্রসঙ্গে ইউনাইটেড এয়ারওয়েজের চেয়ারম্যান তাসবিরুল আহমেদ চৌধুরী বলেন, আমরা দ্রুত সময়ের মধ্যে এয়ারলাইনটি চালুর চেষ্টা করছি। কারণ এর সঙ্গে দেড় লাখ সাধারণ বিনিয়োগকারী জড়িত। তিনি বলেন, বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের পাওনা পরিশোধের জন্য আমরা এরই একটি প্রস্তাব পাঠিয়েছি। আশা করছি সব সমস্যা কাটিয়ে উঠে আবারো ফ্লাইট চালু করা সম্ভব হবে।

 

শেয়ারবাজারনিউজ/আ

আপনার মন্তব্য

*

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Top