কৌশলগত বিনিয়োগকারী: চীনা প্রস্তাবে কিছু শর্তের ব্যাখ্যা চেয়েছে বিএসইসি

শেয়ারবাজার রিপোর্ট: দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) কৌশলগত বিনিয়োগকারী হওয়ার ক্ষেত্রে চীনের শেনঝেন ও সাংহাই স্টক এক্সচেঞ্জের কনসোর্টিয়াম এমন কিছু শর্ত দিয়েছে যার ব্যাখ্যা চেয়েছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি)।

কৌশলগত বিনিয়োগকারী অনুমোদনের জন্য ডিএসই’র প্রস্তাব পর্যালোচনার বিষয়ে বিএসইসি’র গঠিত কমিটি এমন ব্যাখ্যা চেয়ে ডিএসইতে চিঠি পাঠিয়েছে।

ডিএসই’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) কেএএম মাজেদুর রহমান বলেন, ‌কমিশনের কমিটি কিছু শর্তের বিষয়ে ব্যাখ্যা চেয়েছে।

বিএসইসি সূত্রে জানা যায়, চীনের কনসোর্টিয়াম কৌশলগত বিনিয়োগকারীর চুক্তি যুক্তরাজ্যের আইন অনুযায়ি করার শর্ত দিয়েছে। যা ডিমিউচ্যুয়ালাইজেশন আইনের পরিপন্থী। এছাড়া কোন বিবাদ দেখা দিলে লন্ডনের আন্তর্জাতিক আরবিটেশন অনুযায়ি সমাধানের প্রস্তাব এবং নতুন কৌশলগত বিনিয়োগকারী অন্তর্ভূক্তির ক্ষেত্রে চীনের কনসোর্টিয়ামের লিখিত অনুমোদন লাগার শর্তকে বাংলাদেশের আইনের পরিপন্থী বলে মনে করছে বিএসইসির পর্যালোচনা কমিটি।

এদিকে ডিএসইর কোন নতুন শেয়ার ইস্যুর আগে চীনের কনসোর্টিয়ামের লিখিত অনুমোদনসহ আরও কিছু শর্ত দিয়েছে। যেগুলো ডিএসইর আর্টিকেলে সংযোজন করা হলে, চীনের কৌশলগত বিনিয়োগকারীর অনুমোদন ছাড়া ডিএসই গুরুত্বপূর্ণ কোন সিদ্ধান্ত নিতে পারবে না বলে বিএসইসি পর্যালোচনা কমিটির দাবি।

চীনের কনসোর্টিয়ামের অন্য শর্তগুলোর মধ্যে রয়েছে- পরিচালকদের সংখ্যা পরিবর্তনের আগে চীনের কৌশলগত বিনিয়োগকারীর লিখিত অনুমোদন লাগবে। এছাড়া ১৫ শতাংশের অধিক যে কোন স্থায়ী সম্পদের বিষয়ে, একক বা যৌথভাবে ১০ কোটি টাকার অধিক ঋণ গ্রহণ, যেকোন ১০ কোটি টাকার উপরে চুক্তি, একক বা যৌথভাবে ১০ কোটি টাকার উপরে বিনিয়োগ, কৌশলগত বিনিয়োগকারীর স্বার্থ জড়িত যে কোন ইস্যু, যেকোন ধরনের ইনটেলেকচ্যুয়াল সম্পত্তি অর্জন, চীনের কৌশলগত বিনিয়োগকারী তার ইচ্ছা অনুযায়ি যে কাউকে পরিচালক হিসেবে নিয়োগদানের প্রস্তাব, সেটেলম্যান্ট গ্যারান্টি ফান্ড কন্টিবিউশন বাদ বা স্থগিত করতে হবে এবং ডিএসইর আইপিও সংক্রান্ত যে কোন ইস্যু যেমন, শেয়ারের মূল্য নির্ধারন, স্পন্সর নির্ধারন, অবলেখক নিয়োগ, প্রসপেক্টাস অনুমোদন ও ইস্যু মূল্য নির্ধারনের আগে লিখিত অনুমোদন নেওয়ার শর্ত দিয়েছে চীনের কনসোর্টিয়াম। এছাড়া আর্টিকেল ১৩৫ অনুযায়ি ২৫ শতাংশ শেয়ার ধারনকারীর সঙ্গে ডিএসই চুক্তি করতে না পারার আইনটি থেকে চীনের কৌশলগত বিনিয়োগকারীকে অব্যাহতি দেওয়ার শর্ত দেওয়া হয়েছে। আর এইসব শর্তগুলোকে ডিএসইর আর্টিকেল পরিবর্তন করে সংযোজন করতে হবে।

চীনের কনসোর্টিয়াম যে ৩০০ কোটি টাকার কারিগরি সহায়তা দেবে বলে ডিএসই দাবি করছে, তা নির্ধারণে কোন নিরপেক্ষ মূল্যায়ন নেই বলে বিএসইসির পর্যালোচনা কমিটির তদন্তে উঠে এসেছে।

ডিএসইর কৌশলগত বিনিয়োগকারী ইস্যুতে গত ২২ ফেব্রুয়ারি বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক ফরহাদ আহমেদকে আহবায়ক ও নির্বাহী পরিচালক মো. মাহবুবুল আলমকে সদস্য সচিব করে ৪ সদস্যের কমিটি করে বিএসইসি। কমিটির অন্য দুই সদস্য হলেন নির্বাহী পরিচালক ড.এটিএম তারিকুজ্জামান ও নির্বাহী পরিচালক মো. আনোয়ারুল ইসলাম।

শেয়ারবাজারনিউজ/আ

আপনার মন্তব্য

Top