ভারতের পুঁজিবাজারেও লাল-সবুজের টানাটানি

শেয়ারবাজার ডেস্ক: বাংলাদেশের মতো ভারতের পুঁজিবাজারেও লাল-সবুজের টানাটানি চলছে।  বাজারে অনিশ্চয়তা ও অস্থিরতা কমার তেমন লক্ষণ এখনও দেখা যায়নি। পরপর কয়েক দিন পতনের পরে মাঝেমধ্যে সূচক সবুজে ফিরলেও তা ধরে রাখতে পারছে না। সকালে বাজার বেশ খানিকটা উপরে খুললেও বিকেলে তা আবার লালে চলে যাচ্ছে। এই রকম টানাপড়েনে সপ্তাহ শেষে সেনসেক্স থেমেছে ৩৩,৩০৭ পয়েন্টে, নিফটি ১০,২২৭ অঙ্কে।

বড় দুই সূচকের অবস্থান খুব নীচে না হলেও, এই পর্বে ভাল রকম জমি খুইয়েছে বহু ছোট এবং মাঝারি শেয়ার। পিএনবি-কাণ্ডের পরে বড় রকমের পতন হয়েছে বেশির ভাগ রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্ক শেয়ারের। এই অবস্থায় ন্যাভ নেমেছে অনেক ইকুইটি ফান্ডের। গত কয়েক মাসে সেনসেক্স ৩৩-৩৬ হাজারের মধ্যে ঘোরাফেরার সময়ে যাঁরা শেয়ার ও ফান্ডে লগ্নি করেছেন, তাঁদের বেশির ভাগই এখনও লাভের মুখ দেখেননি। বরং হয়তো কিছুটা লোকসানই হয়েছে। ইকুইটিতে লগ্নি করলে অবশ্য এই সাময়িক লোকসানকে ধরলে চলবে না। ৩১ মার্চের আগে দাম বাড়লে শেয়ার বিক্রি করে লাভ ঘরে তুলবেন বলে যাঁরা অপেক্ষায় ছিলেন, তাঁরাও হতাশ। এপ্রিল থেকে চালু হবে দীর্ঘকালীন মূলধনী লাভকর। অবশ্য ছাড় আছে প্রথম এক লক্ষ টাকার লাভে।

দেশের ভিতর ও আন্তর্জাতিক কয়েকটি ঘটনা বিশেষ ভাবে ভাবাচ্ছে বাজারকে। পিএনবি কাণ্ডের বড় প্রভাব পড়ছে নানা শিল্পে। হিরে শিল্পে, বিশেষ করে নীরব মোদী ও তাঁর মামা মেহুল চোক্সীর সংস্থাগুলিতে কাজ হারিয়েছেন বহু মানুষ। খাঁটি কি না, তা নিয়ে সন্দেহ বাড়ায় চাহিদা কমেছে হিরে ও দামি পাথরের। সন্দেহ দেখা দিয়েছে ব্যাঙ্কগুলির পাহাড় পরিমাণ অনাদায়ী ঋণের কতটা সত্যিকারের ব্যবসায়িক কারণে, আর কতটা অন্য কারণে, তা নিয়ে। সন্দেহ, আরও জালিয়াতি লুকিয়ে থাকতে পারে এই সব ঋণের মধ্যে। সেই সব প্রকাশ পেলে বাজারের পক্ষে আদৌ ভাল হবে না। পিএনবি-কাণ্ড প্রকাশ্যে আসার পরে ব্যাঙ্ক ঋণ দেওয়ার ক্ষেত্রে অনেক বেশি কড়া হয়েছে। এতে কিন্তু ব্যবসায় ঋণ-প্রবাহ ব্যাহত হচ্ছে। অনেক সৎ ব্যবসায়ী সমস্যায় পড়ছেন।

আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে জল ঘোলা হচ্ছে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প অ্যালুমিনিয়াম ও ইস্পাতে আমদানি শুল্ক বসানোয়। এতে তৈরি হয়েছে বাণিজ্য যুদ্ধের পরিস্থিতি। আতঙ্কে পড়েছে টাটা স্টিল, সেল ও নালকোর শেয়ার দর। অনাদায়ী ঋণ ও ট্রাম্পের এই সিদ্ধান্ত— দু’টিই কিন্তু ভোগাবে একটু বড় মেয়াদে।

 

শেয়ারবাজারনিউজ/ম.সা

আপনার মন্তব্য

Top