পুঁজিবাজার থেকে ২২৫ কোটি টাকা সংগ্রহ করবে বারাকা পতেঙ্গা

শেয়ারবাজার রিপোর্ট: ২টি বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের জন্য পুঁজিবাজার থেকে বুকবিল্ডিং পদ্ধতিতে ২২৫ কোটি টাকা সংগ্রহ করতে চায় বারাকা পতেঙ্গা পাওয়ার লিমিটেড। এর জন্য বুধবার আইপিও রোড শো করেছে কোম্পানিটি।

রাজধানীর বসুন্ধরা কনভেনশন মিলনায়তনে এই রোড শো অনুষ্ঠিত হয়।

রোড শোতে জানানো হয়, আইপিওর মাধ্যমে উত্তোলিত অর্থ ২ কোম্পানিতে ব্যয় করা হবে। এর মধ্যে কর্ণফুলী পাওয়ারে ৭২ কোটি ৬৭ লাখ ৫০ হাজার টাকা এবং বারাকা শিকলবাহা পাওয়ারে ব্যয় করা হবে ৭১ কোটি ৬৫ লাখ ৫০ হাজার টাকা। এই অর্থ থেকে কোম্পানিটি ৭৪ কোটি ৮৭ লাখ টাকা ব্যাংক ঋণও পরিশোধ করবে।

বিদ্যুৎ কেন্দ্র ২টি নিমার্ণে মোট খরচ হবে ১ হাজার ৫১০ কোটি টাকা। এর মধ্যে ব্যাংক অর্থায়ন ১ হাজার ৫৭ কোটি টাকা, আইপিও থেকে ১৪৪ কোটি ৩৩ লাখ টাকা, প্রেফারেন্স শেয়ার ১৫১ কোটি টাকা এবং অন্যান্য তহবিল থেকে ১৫৭ কোটি ৬৭ লাখ টাকা অর্থায়ন করা হবে।

কোম্পানি ২টিতে বারাকা পতেঙ্গার ৫১ শতাংশ করে শেয়ার রয়েছে।

কোম্পানির প্রতিটি শেয়ারের অভিহিত মূল্য ১০ টাকা। কোম্পানির অনুমোদিত মূলধন ৩০০ কোটি টাকা। আর পরিশোধিত মূলধন ৯৯ কোটি ৪০ লাখ টাকা।

(জুলাই- ডিসেম্বর,১৭) ৬ মাসে কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় বা ইপিএস হয়েছে ১ টাকা ৫৪ পয়সা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিলো ১ টাকা ৯২ পয়সা। আলোচ্য সময়ে কর পরবর্তী মুনাফা হয়েছে ১৫ কোটি ৩০ লাখ টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ১৯ কোটি টাকা।

রোড শোতে কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক গোলাম রব্বানি চৌধুরী বলেন, যে কোম্পানি স্থাপনের জন্য আমরা পুঁজিবাজার থেকে টাকা উত্তোলন করতে চাচ্ছি। তা আমরা নির্ধারিত সময়ের আগেই সম্পন্ন করতে চাই। ১৫ মাসের মধ্যেই জাতীয় গ্রিডে আমরা বিদ্যুৎ পৌঁছাতে চাই। এই ২ প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন হলে বারাকা পতেঙ্গা ১৬৫ মেগাওয়াট ক্ষমতা সম্পন্ন প্রতিষ্ঠানে রূপ নেবে।

তিনি প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনারা আমাদের সাথে বিনিয়োগ করুন। পাশাপাশি দেশে অর্থনৈতিক উন্নয়নে অংশীদার হোন। পরে কোম্পানির পক্ষ থেকে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেওয়া হয়
২০১১ সালে ৭ জুলাই একটি কোম্পানি হিসেবে যাত্রা শুরু করে প্রতিষ্ঠানটি। পরে ২০১৪ সালের ২৮ এপ্রিল পাবলিক লিমিটেড কোম্পানি হিসেবে চট্টগ্রামের পতেঙ্গায় নিবন্ধিত হয়। সেখানে ফার্নেস অয়েল ভিত্তিক ৫০ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন পাওয়ার প্লান্টে রূপ লাভ করে।

এসময় কোম্পানির পরিচালক, ঊর্ধ্বতন কর্মকতাসহ ইস্যু ম্যানেজারসহ প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা উপস্থিত ছিলেন।

কোম্পানিটিকে আইপিওতে আনতে ইস্যু ম্যানেজারের দায়িত্ব নিয়েছে লংকাবাংলা ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড। আর রেজিস্টার টু দ্য ইস্যু হিসেবে দায়িত্ব নিয়েছে ইউনিক্যাপ ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড।

 

শেয়ারবাজারনিউজ/আ

আপনার মন্তব্য

Top