ফিন্যান্সিয়াল লিটারেসি-পর্ব ১৪: লিষ্টিং ফি

শেয়ারবাজার রিপোর্ট: পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত প্রতিটি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডকে প্রাথমিক অবস্থায় অর্থাৎ যখন তালিকাভুক্ত হয় তখন স্টক এক্সচেঞ্জকে নির্দিষ্ট পরিমাণ ফি প্রদান করতে যাকে লিষ্টিং ফি বলা হয়। এছাড়া প্রতি বছরেই পরিশোধিত মূলধন বা ফান্ডের সাইজের ওপর নির্ভর করে লিষ্টিং ফি প্রদান করতে হয়। নিম্নে লিষ্টিং ফি’র বিস্তারিত দেয়া হলো:

প্রাথমিক অবস্থায়:

০১। সাধারণ শেয়ারের ক্ষেত্রে:

ক। যদি কোম্পানির পরিশোধিত মূলধন ১০ কোটি টাকা পর্যন্ত হয় তাহলে তার ০.২৫ শতাংশ অর্থ লিষ্টিং ফি বাবদ প্রদান করতে হবে। যেমন কোনো কোম্পানির পেইড আপ বা পরিশোধিত মূলধন ১০ কোটি টাকা হলে সে কোম্পানিকে (১০০০০০০০০*০.২৫%) ২ লাখ ৫০ হাজার টাকা লিষ্টিং ফি প্রদান করতে হবে।

খ। যদি কোম্পানির পরিশোধিত মূলধন ১০ কোটি টাকার উপরে হয় তাহলে সেই পরিশোধিত মূলধনের ০.১৫ শতাংশ অর্থ লিষ্টিং ফি বাবদ প্রদান করতে হবে।

০২। প্রেফারেড শেয়ার এবং ফিক্সড ইনকাম সিকিউরিটিজ এর ক্ষেত্রে:

ক। ইস্যুর সাইজ  ০-১০ কোটি টাকা পর্যন্ত হলে তাহলে তার ০.২৫ শতাংশ অর্থ লিষ্টিং ফি বাবদ প্রদান করতে হবে।

খ। ইস্যুর সাইজ ১০ কোটি টাকার উপরে হলে সেই পরিশোধিত মূলধনের ০.১৫ শতাংশ অর্থ লিষ্টিং ফি বাবদ প্রদান করতে হবে।

০৩। মিউচ্যুয়াল ফান্ড এবং অন্যান্য ফান্ডের ক্ষেত্রে: 

ক। ফান্ডের সাইজ  ০-১০ কোটি টাকা পর্যন্ত হলে তাহলে তার ০.২৫ শতাংশ অর্থ লিষ্টিং ফি বাবদ প্রদান করতে হবে।

খ। ফান্ডের সাইজ ১০ কোটি টাকার উপরে হলে সেই পরিশোধিত মূলধনের ০.১৫ শতাংশ অর্থ লিষ্টিং ফি বাবদ প্রদান করতে হবে।

এখানে উল্লেখ্য যে, প্রাথমিক লিষ্টিং ফি সর্বনিম্ন ৫০ হাজার টাকা এবং সর্বোচ্চ ১ কোটি টাকা হবে। এছাড়া যদি কোনো ইস্যুয়ার লিষ্টিংয়ের পর শেয়ার বৃদ্ধি করে তাহলে উপরে উল্লেখিত হারে লিষ্টিং ফি প্রদান করতে হবে।

বাৎষরিক লিষ্টিং ফি

প্রতিটি কোম্পানি বা মিউচ্যুয়াল ফান্ডকেই স্টক এক্সচেঞ্জকে বাৎষরিক লিষ্টিং ফি প্রদান করতে হয়। আর সাধারণত ৩১ মার্চের আগেই লিষ্টিং ফি প্রদান করতে হয়।

০১। সাধারণ শেয়ারের ক্ষেত্রে:

ক। যদি কোম্পানির পরিশোধিত মূলধন ১০০ কোটি টাকা পর্যন্ত হয় তাহলে তার ০.০৫ শতাংশ অর্থ লিষ্টিং ফি বাবদ প্রদান করতে হবে। যেমন কোনো কোম্পানির পেইড আপ বা পরিশোধিত মূলধন ৩০ কোটি টাকা হলে সে কোম্পানিকে (৩০০০০০০০০*০.০৫%) বছরে ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা লিষ্টিং ফি প্রদান করতে হবে।

খ। যদি কোম্পানির পরিশোধিত মূলধন ১০০ কোটি টাকার উপরে হয় তাহলে সেই পরিশোধিত মূলধনের ০.০২ শতাংশ অর্থ লিষ্টিং ফি বাবদ প্রদান করতে হবে।

০২। প্রেফারেড শেয়ার এবং ফিক্সড ইনকাম সিকিউরিটিজ এর ক্ষেত্রে:

ক। ইস্যুর সাইজ  ১০০ কোটি টাকা পর্যন্ত হলে তাহলে তার ০.০৫ শতাংশ অর্থ লিষ্টিং ফি বাবদ প্রদান করতে হবে।

খ। ইস্যুর সাইজ ১০০ কোটি টাকার উপরে হলে সেই পরিশোধিত মূলধনের ০.০২ শতাংশ অর্থ লিষ্টিং ফি বাবদ প্রদান করতে হবে।

তবে বাৎষরিক লিষ্টিং ফি সর্বনিম্ন ৫০ হাজার টাকা সর্বোচ্চ ৬ লাখ টাকা হবে।

 

 

শেয়ারবাজারনিউজ/ম.সা

আপনার মন্তব্য

*

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Top