বিনিয়োগকারীর কথা এর সকল সংবাদ

বিনিয়োগকারীর দৃষ্টিতে স্মল ক্যাপ: স্বল্প মূলধনী চেয়ে বড় মূলধনীর দিকে নজর দেয়া উচিত

বিনিয়োগকারীর দৃষ্টিতে স্মল ক্যাপ: স্বল্প মূলধনী চেয়ে বড় মূলধনীর দিকে নজর দেয়া উচিত

শেয়ারবাজার রিপোর্ট: চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যেই শুরু হচ্ছে স্বল্প মূলধনী কোম্পানিগুলোর জন্য নতুন বাজার। যেখানে ৫ কোটি টাকার নিচে মূলধনী কোম্পানি তালিকাভুক্ত হতে পারবে না। এ বিষয়ে বাংলাদেশ পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারী ঐক্য পরিষদের সভাপতি মিজান-উর-রশিদ চৌধুরী বলেন, এ মূহুর্তে নিয়ন্ত্রক সংস্থা সহ সকলকে স্বল্প মূলধনীর চেয়ে বড় মূলধনীর দিকে নজর দেয়া জরুরী। মিজান উর রশিদ বলেন,

অর্থমন্ত্রীর আশ্বাসে আবারও মার্কেটে এসেছি-আবুল হাশেম

আল-মুনতাহা ট্রেডিং কো: লিমিটেডে শেয়ার ব্যবসা করেন মো: আবুল হাশেম (হাউজ কোড ০৫৬)। ১৯৯৬ ও ২০১০-১১ সালের শেয়ারবাজার ধসের চিত্র খুব কাছ থেকেই দেখেছেন। ১৯৯৬ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশুনা অবস্থায় শিক্ষকদের প্ররোচনায় তিন লাখ টাকা পুঁজি নিয়ে শেয়ারবাজারে প্রবেশ করেন। শেয়ারবাজার সম্পর্কে তেমনটা জ্ঞান অর্জন না করার ফলে শুরুতেই ধাক্কা খেয়ে বসেন আবুল হাশেম। তারপর

ক্যান্সার রোগের চিকিৎসা প্যারাসিটামলে কাজ করে না

বাজারের এই ক্রান্তিলগ্নে বিএসইসির দায়িত্বশীলতার পরিচয় দেয়া উচিত। মনে রাখতে হবে ইস্যুয়ার কোম্পানিগুলো সবসময় বিএসইসির উপর নির্ভরশীল। আমরা এর বিপরীত চিত্র দেখতে চাই না। ২০১১ সাল থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত তালিকাভুক্ত বেশিরভাগ কোম্পানি ইস্যু ম্যানেজারের সহায়তায় অনৈতিকভাবে বাজার থেকে হাজার হাজার কোটি টাকা উত্তোলন করেছে। যার বেশিরভাগ বর্তমানে ইস্যুমূল্যের নিচে অবস্থান করছে। এ সমস্ত কোম্পানিকে

বুক বিল্ডিং পদ্ধতিতে বিনিয়োগকারীরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে

শেয়ারবাজার রিপোর্ট: বাংলাদেশ পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারী ঐক্য পরিষদের সভাপতি এ.কে.এম. মিজান-উর-রশিদ চৌধুরী বলেছেন, বুক বিল্ডিং পদ্ধতিতে এ পর্যন্ত যত কোম্পানি তালিকা্ভুক্ত হয়েছে কোনোটির অবস্থাই ভালো নেই। কেপিসিএল থেকে শুরু করে ইউনিক হোটেল পর্যন্ত সব কোম্পানির অবস্থাই নাজেহাল। বিনিয়োগকারীরা বিপুল পরিমাণ অর্থ এসব কোম্পানিতে হারিয়েছেন। তার ওপর বর্তমানে পাবলিক ইস্যু রুলসের নতুন আইন প্রণয়ন করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ

মার্জিন ঋণে জর্জরিতদের উদ্ধার করুন

যারা মার্জিন ঋণে জর্জরিত হয়ে আছেন তাদের উদ্ধারের ব্যবস্থা করুন। যতদিন না তারা এ জাল থেকে বেরিয়ে আসতে পারবে ততদিন এ বাজার মানুষের আস্থা অর্জন করতে পারবে না। বাজারকে ঘিরে মানুষ যতদিন অনাস্থায় ভুগবে ততদিন নতুন সূর্যের আশা করাটা বোকামী ছাড়া আর কিছুই নয়। বাজারের প্রতি দেশের মানুষ ও বিনিয়োগকারীদের আস্থা ফিরিয়ে আনতে হলে ভর্তুকীর

কোম্পানিগুলো সুযোগ পেলেও বঞ্চিত বিনিয়োগকারীরা

শেয়ারবাজার রিপোর্ট: যে বাজেট হয়েছে তাতে পুঁজিবাজারের সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কোন লাভ হয়নি। লাভ হয়েছে ব্যাংক, মার্চেন্ট ব্যাংক, ব্রোকারেজ হাউজ এবং প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের। এমনটাই মনে করেন কাজী ফিরোজ রশিদ সিকিউরিটিজ হাউজে লেনদেন করা মো: শাহ আলম নামক একজন সাধারণ বিনিয়োগকারী। তার বিও অ্যাকাউন্ট নং ২৪৫৩৮০০৩৫৯। তিনি ২০০৪ সাল থেকে শেয়ার ব্যবসা শুরু করেন। পুঁজিবাজার মন্দায় তার

বিনিয়োগকারীদের হাতে হারিকেন ধরিয়ে দিচ্ছে ডিএসই

শেয়ারবাজার রিপোর্ট: হাসান সিকিউরিটিজ হাউজের মাধ্যমে শেয়ার ব্যবসা শুরু করেন মো. ইসতিয়াক আহমেদ। তার বিও অ্যাকউন্ট নং: ১২০৪৮২০০২৩০০০৫০। যে পুঁজি নিয়ে শেয়ার ব্যবসা শুরু করেছিলেন তার সবটাই হারিয়ে বর্তমানে শোচনীয় অবস্থায় জীবন যাপন করছেন তিনি। বর্তমান বাজার পরিস্থিতি নিয়ে ইসতিয়াক আহমেদের অভিযোগ একটাই, কোনো কোম্পানির অস্বাভাবিক শেয়ার দর বাড়ার কারণে যদি মূ্ল্য সংবেদনশীল নোটিশ পাঠানো

মন্দা ভাব কাটাতে বাংলাদেশ ব্যাংককে সহায়ক ভুমিকা পালন করতে হবে- মো: কবির হোসেন।

শেয়ারবাজার রিপোর্ট: মো: কবির হোসেন ১৩ বছর প্রবাসে কাটিয়েছেন। এর মধ্যে হংকং-এ পাঁচ বছর কোরিয়াতে আট বছর। এরপর দুবাইয়ে দুই বছর ছিলেন। অনেক কষ্ট করে বেশ কিছু টাকা জমিয়ে ২০০৪ সালে দেশে ফিরে আসেন। দেশে ফিরে ব্যবসা করতে চেয়েছিলেন, কিন্তু বাকি দেয়ার ভয়ে এদিকে মন বসাতে পারলেন না। এক বন্ধুর কাছে পেলেন শেয়ার ব্যবসা করার বুদ্ধি।

পরিস্থিতির পরিবর্তন হলে দু’দিনের মধ্যে বাজার ভালো হবে- মো: মিজানুর রহমান

শেয়ারবাজার রিপোর্ট: মো: মিজানুর রহমান উপসাগরিয় যুদ্ধের সময় কুয়েত ছেড়ে বাংলাদেশে চলে আসেন। দেশে ফিরে বঙ্গবাজারে কাপড়ের ব্যবসা করতেন। তার এলাকার একজনের মাধ্যেমে প্রথম অল্প কিছু বিনিয়োগ করে শেয়ারবাজারে ব্যবসা শুরু করেন। আস্তে আস্তে শেয়ারবাজারের ব্যবসা বুঝে নিজেই ২০০১ সালে ‘এম অ্যান্ড জেড’ সিকিউরিটিজ হাউজের মাধ্যমে বিও অ্যাকাউন্ট খুলে শেয়ার ব্যবসা শুরু করেন। বর্তমানে তিনি

সর্বদলীয় জাতীয় সরকার গঠন করে দেশের অর্থনীতি রক্ষা করুন

দেশের অব্যাহত রাজনৈতিক সঙ্কটে স্তিমিত হয়ে পড়েছে শেয়ার বাজার। লাখ লাখ বিনিয়োগকারীর পথে বসার উপক্রম হয়েছে। এ অবস্থায় অস্থির হয়ে উঠেছেন বিনিয়োগকারীরা। বিনিয়োগকারীদের পক্ষে আজ রোববার বাংলাদেশ পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারী  ঐক্য পরিষদের সভাপতি এ.কে.এম.মিজান-উর-রশিদ চৌধুরী বিরাজমান পরিস্থিতির ওপর এক বিবৃতি দিয়েছেন। শেয়ার বাজার নিউজ ডটকমের পাঠকদের উদ্দেশ্যে বিবৃতিটি হুবহু তুলে দেয়া হলো। “ক্রান্তিকালের বেড়াজালে আবদ্ধ সমগ্র

Top