Tag Archives: সম্পাদকীয়

শঙ্কার কিছু নেই তবুও সতর্কতা প্রয়োজন

শঙ্কার কিছু নেই তবুও সতর্কতা প্রয়োজন

যদিও বাজারকে স্থায়ী স্থিতিশীল পর্যায়ে রাখার জন্য  সরকারসহ অন্যান্য স্টেকহোল্ডারদের আন্তরিকতার কোনো ঘাটতি নেই তবুও ‘সাবধানের মাইর নাই’ প্রচলিত এই প্রবাদটি মনে না রাখলেই নয়। যেভাবে সূচক ও লেনদেনের গতি বৃদ্ধি পাচ্ছে তাতে বর্তমান পুঁজিবাজার গতিশীলতার দিকে অগ্রসর হচ্ছে এতে কোনো সন্দেহ নেই। তবে এখই বিনিয়োগকারীদের সাবধানের সঙ্গে লেনদেন করতে হবে। অযৌক্তিক অতিরিক্ত দরে বিনিয়োগ করা থেকে

পুঁজিবাজার ট্রাইব্যুনাল নিয়ে চেয়ারম্যান কি ভাবছেন

পুঁজিবাজার বিষয়ক আদালত প্রতিষ্ঠার পর ইতিমধ্যে তিনটি মামলার রায় হয়ে গেছে। রায়ে প্রায় প্রত্যেকটি মামলার ফলাফল গেছে বিনিয়োগকারীদের পক্ষে। এ সংক্রান্ত খবরা খবর প্রকাশের পর অভিযুক্ত এবং কারসাজি চক্র বিশেষ করে বাংলাদেশের পুঁজিবাজার নিয়ে যারা খেলাধুলা করেন তারা একটু নড়েচড়ে বসেছেন। হিসাব কষে পা বাড়াচ্ছেন বাজারের দিকে। আর বিলম্বে হলেও ন্যায় বিচারের প্রত্যাশায় বুক বাধছেন

দয়া করে একবার যান অর্থমন্ত্রীর কাছে

শেয়ার বাজারে তালিকাভুক্ত ব্যাংকগুলোর এক্সপোজার লিমিট পরিপালনের দিনক্ষণ নিয়ে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে একটা উদ্বিগ্নভাব লক্ষ্য করা যাচ্ছে। পুঁজিবাজারে শীর্ষ খাত হিসাবে পরিচিত ব্যাংকগুলোতেই শেয়ার হোল্ডারের সংখ্যা সর্বাধিক। অধিকাংশ সময়ই এই খাতের লেনদেন এবং সূচকের গতির সাথে গোটা শেয়ার বাজারের লেনদেন ও সূচকের গতি নির্ভরশীল থাকে। আরো একটু পরিষ্কার করে বললে বলা যায় যে, ব্যাংকের শেয়ার নেই

পোর্টফোলিও সন্তান সমতুল্য: এতে জবরদস্তি হস্তক্ষেপ অপমানজনক

শেয়ার বাজারের যেসব বিনিয়োগকারী বিভিন্ন হাউজ বা মার্চেন্ট ব্যাংকের কাছ থেকে মার্জিন ঋণ নিয়ে এতদিন ব্যবসা করেছেন তারা এখন থেকে তাদের নিজস্ব ব্যাংক হিসাবের খাতায় আর কোম্পানির নগদ লভ্যাংশের টাকা পাবেননা। এই টাকা যোগ হবে সংশ্লিষ্ট হাউজে তার নামের হিসাবের খাতায়। পরে এই টাকা বিনিয়োগকারীর ঋণের টাকার সাথে সমন্বয় করে স্থিতি নির্ধারণ হবে। সম্প্রতি পুঁজিবাজার

বিএসইসিকে সাধুবাদ: তবে উদ্যোগ নিতে হবে পতন অসহনীয় হওয়ার আগেই

বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এন্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) একটি ইশারাতেই গত কয়েকদিন ধরে ঘুরে দাঁড়িয়েছে বাজার। যদিও বাজার যে পর্যায়ে চলে গিয়েছিল তার চেয়ে নিচে নামার আর কোন রাস্তা ছিলনা। তারপরও আমরা মনে করি শেষ পর্যায়ে হলেও বাজার ধরে রাখার জন্য বিএসইসির উদ্যোগটিতে ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক বিনিয়োগকারীরা প্রাণ ফিরে পেয়েছেন। তারা এতোদিন অব্যাহত পতন দেখতে দেখতে বাজার

আইডিআরএ’র মতো বাংলাদেশ ব্যাংকেরও শুভবুদ্ধির উদয় হোক

শেয়ার হোল্ডারদের স্বার্থ রক্ষায় একটি গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিয়েছে বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণকর্তৃপক্ষ (আইডিআরএ)। সিদ্ধান্তের আলোকে এখন থেকে যে সব জীবন বীমা কোম্পানি ব্যবস্থাপনা ব্যয় হিসেবে নিয়ম ভেঙ্গে অতিরিক্ত খরচ দেখাবে তাদেরকে লভ্যাংশ  দেয়ার ক্ষেত্রে  নিয়ন্ত্রণকারী এ সংস্থাটি আর বাধা দেবেনা। ফলে অতিরিক্ত ব্যয়ের দায়ে অভিযুক্ত জীবনবীমা কোম্পানিগুলোও এখন  লভ্যাংশ দিতে পারবে। নানা সঙ্কটে জর্জড়িত এবং প্রায়

Top