আইডিএলসি’র চোখে সেরা ১০ ব্যাংক

শেয়ারবাজার রিপোর্ট: ব্যাংক বহির্ভুত আইডিএলসি সেরা ১০ ব্যাংকের তালিকা তৈরি করেছে। রিটার্ন অন ইক্যুইটি (আরওই), মুনাফা, ঋণ প্রবৃদ্ধি, আমানত প্রবৃদ্ধি, আয় প্রতি খরচ (রিস্ক টু ইনকাম), খরচে ঝুঁকি (কস্ট অব রিস্ক) সূচক পর্যালোচনা করে এই তালিকা তৈরি করা হয়েছে। আর এদের সঙ্গে তুলনায় আইডিএলসিও যে অনেক ভাল অবস্থানে রয়েছে তাই দেখানো হয়েছে।

সম্প্রতি প্রকাশিত আইডিএলসি’র মাসিক প্রতিবেদনে এমন তথ্য দেওয়া হয়েছে। তালিকাটি প্রতিষ্ঠানগুলোর ২০১৮ বছরের অর্ধবার্ষিক আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে তৈরি করা হয়েছে।

সেরা ১০ ব্যাংকের মধ্যে রয়েছে- ব্যাংক এশিয়া, ব্র্যাক ব্যাংক, ডাচ বাংলা ব্যাংক, ইস্টার্ন ব্যাংক, ইসলামী ব্যাংক, ন্যাশনাল ব্যাংক, প্রাইম ব্যাংক, পূবালী ব্যাংক, সিটি ব্যাংক এবং ইউনাইটেড কমার্সিয়াল ব্যাংক।

রিটার্ন অন ইক্যুইটি: মোট ইক্যুইটি থেকে সবচেয়ে বেশি আয় এসেছে আইডিএলসি’র। তাদের আরওই ১৭.৭ শতাংশ। এরপরই রয়েছে ব্র্যাক ব্যাংক। তাদের আরওই ১৭.৬ শতাংশ। এছাড়া পূবালী ব্যাংকের আরওই ১৭.৪ শতাংশ, ডাচ বাংলা ব্যাংকের ১৬.৩ শতাংশ, ইস্টার্ন ব্যাংকের ১২.৪ শতাংশ, ইসলামী ব্যাংকের ১১.৮ শতাংশ, ব্যাংক এশিয়ার ১১.৩ শতাংশ, সিটি ব্যাংকের ১০.৭ শতাংশ, ইউনাইটেড কমার্সিয়াল ব্যাংকের ৮.৩ শতাংশ, ন্যাশনাল ব্যাংকের ৬.৫ শতাংশ এবং প্রাইম ব্যাংকের আরওই ৬.৪ শতাংশ।

কর পরবর্তী প্রকৃত মুনাফা: মুনাফায় সেবার উপরে রয়েছে ইসলামী ব্যাংক। তাদের কর পরিশোধের পর প্রকৃত মুনাফা ৩৩ কোটি টাকা। এরপর রয়েছে যথাক্রমে ব্র্যাক ব্যাংক ২৫০ কোটি টাকা, পূবালী ব্যাংক ২২০ কোটি টাকা, ডাচ বাংলা ১৬০ কোটি টাকা, সিটি ব্যাংক ১৪০ কোটি টাকা, ইস্টার্ন ব্যাংক ১৩০ কোটি টাকা, ন্যাশনাল ব্যাংক ১৩০ কোটি টাকা, ব্যাংক এশিয়া ১২০ কোটি টাকা, ইউনাইটেড কমর্সিয়াল ব্যাংক ১১০ কোটি টাকা, আইডিএলসি ১১০ কোটি টাকা এবং প্রাইম ব্যাংক ৮০ কোটি টাকা।

ঋণ প্রবৃদ্ধি: এখানে সবচেয়ে এগিয়ে রয়েছে সিটি ব্যাংক। তাদের ঋণ প্রবৃদ্ধি ১৩.২ শতাংশ। এছাড়া ন্যাশনাল ব্যাংক ১০.৩ শতাংশ, আইডিএলসি ১০.৩ শতাংশ, ইস্টার্ন ব্যাংক ৯.৯ শতাংশ, ইসলামী ব্যাংক ৯.৪ শতাংশ, ব্র্যাক ব্যাংক ৭.১ শতাংশ, ডাচ বাংলা ৬.৫ শতাংশ, ইউনাইটেড কমার্সিয়াল ব্যাংক ৬.২ শতাংশ, পূবালী ব্যাংক ৫.৫ শতাংশ, ব্যাংক এশিয়া ৪.১ শতাংশ এবং প্রাইম ব্যাংক ০.৯ শতাংশ ঋণ প্রবৃদ্ধি রয়েছে।

আমানতে প্রবৃদ্ধি: এখানেও সবার উপরে সিটি ব্যাংক। তাদের আমানত সংগ্রহে ১৯.৪ শতাংশ প্রবৃদ্ধি ঘটেছে। এরপর রয়েছে যথাক্রমে ইস্টার্ন ব্যাংক ১৭.৩ শতাংশ, আইডিএলসি ১০.৩ শতাংশ, পূবালী ব্যাংক ৭.৭ শতাংশ, ব্র্যাক ব্যাংক ৬.৯ শতাংশ, ডাচ বাংলা ৬.৭ শতাংশ, ন্যাশনাল ব্যাংক ৬.২ শতাংশ, ইউনাইটেড কমার্সিয়াল ব্যাংক ৫.১ শতাংশ এবং ইসলামী ব্যাংক ৪.৮ শতাংশ আমানতে প্রবৃদ্ধি হয়েছে। তবে প্রাইম ব্যাংকের আমানতে কোন প্রবৃদ্ধি ঘটেনি। এছাড়া ব্যাংক এশিয়ার আমানতে প্রবৃদ্ধি ০.৪ শতাংশ কমেছে।

আয় প্রতি খরচ (রিস্ক টু ইনকাম): আয় প্রতি খরচ সবচেয়ে কম করেছে আইডিএলসি। তাদের মোট মুনাফা করতে ৩৮.৮ শতাংশ খরচ হয়েছে। এছাড়া ব্যাংক এশিয়া ৪০.১ শতাংশ, ইস্টার্ন ব্যাংক ৪৪.৮ শতাংশ, পূবালী ব্যাংক ৪৭ শতাংশ, ইসলামী ব্যাংক ৪৭.১ শতাংশ, ন্যাশনাল ব্যাংক ৫২.১ শতাংশ, প্রাইম ব্যাংক ৬০ শতাংশ, ইউনাইটেড কমার্সিয়াল ব্যাংক ৬০.১ শতাংশ, সিটি ব্যাংক ৬৩.১ শতাংশ, ব্র্যাক ব্যাংক ৬৪.৫ শতাংশ এবং ডাচ বাংলা ব্যাংক ৭৫.৬ শতাংশ খরচ হয়েছে।

কস্ট অব রিস্ক: কোম্পানির সকল প্রকার ঝুঁকি খরচে বিবেচনা করে এই সূচক তৈরি করা হয়েছে। এখানে ডাচ বাংলা ব্যাংকের ঝুঁকি সবচেয়ে কম। তাদের ঝুঁকি ০.৫ শতাংশ ঋণাত্মক রয়েছে। এরপর রয়েছে যথাক্রমে ব্র্যাক ব্যাংক ০.৪ শতাংশ, পূবালী ব্যাংক ০.৫ শতাংশ, সিটি ব্যাংক ০.৬ শতাংশ, আইডিএলসি ০.৬ শতাংশ, ন্যাশনাল ব্যাংক ০.৬ শতাংশ, ইসলামী ব্যাংক ০.৯ শতাংশ, ইউনাইটেড কমার্সিয়াল ব্যাংক ০.৯ শতাংশ, প্রাইম ব্যাংক ১ শতাংশ, ইস্টার্ন ব্যাংক ১.৪ শতাংশ এবং ব্যাংক এশিয়া ১.৪ শতাংশ কস্ট অব রিস্ক রয়ছে।

 

শেয়ারবাজারনিউজ/আ

আপনার মন্তব্য

*

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Top