প্রথম প্রান্তিকে আর্থিক খাতের কোম্পানির ইপিএস বেড়েছে ৬৭ শতাংশ

শেয়ারবাজার রিপোর্ট: দেশের শেয়ারবাজারে নন-ব্যাংকিং আর্থিক খাতে তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর শেয়ার প্রতি মুনাফা (ইপিএস) আগের অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় ৬৭ শতাংশ বেড়েছে। কোম্পানিগুলোর প্রকাশিত ২০১৯ সালের প্রথম প্রান্তিকের (জানুয়ারি-মার্চ’১৯) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

জানা গেছে, আর্থিক খাতে ২৩টি প্রতিষ্ঠান রয়েছে এর মধ্যে একমাত্র আইসিবি বাদে বাকী সব কোম্পানি আর্থিক হিসাব শেষে ডিসেম্বর। বাকী ২২ কোম্পানির মধ্যে ১৫টি চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৯টির ইপিএস বেড়েছে, ইপিএস কমেছে ৪টির, লোকসান থেকে মুনাফায় ফিরেছে ১টি এবং লোকসানে রয়েছে ১টি কোম্পানি।

প্রথম প্রান্তিকের আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী, কোম্পানিগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি শেয়ার প্রতি আয় বেড়েছে বিডি ফাইন্যান্সের। আলোচিত সময়ে কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.০৬ টাকা, যা আগের বছর ছিল ০.০১ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানির ইপিএস বেড়েছে ০.০৫ টাকা বা ৫০০ শতাংশ।

আইপিডিসির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৬৭ টাকা, যা আগের বছর ছিল ০.৩১ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানির ইপিএস বেড়েছে ০.৩৬ টাকা বা ১১৬.১২ শতাংশ।

ফাস ফাইন্যান্সের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.১২ টাকা, যা আগের বছর ছিল ০.০৬ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানির ইপিএস বেড়েছে ০.০৬ টাকা বা ১০০ শতাংশ।

উত্তরা ফাইন্যান্সের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩.০৪ টাকা, যা আগের বছর ছিল ২.২৮ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানির ইপিএস বেড়েছে ০.৭৬ টাকা বা ৩৩.৩৩ শতাংশ।

ইউনাইটেড ফাইন্যান্সের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৩৯ টাকা, যা আগের বছর ছিল ০.৩০ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানির ইপিএস বেড়েছে ০.০৯ টাকা বা ৩০ শতাংশ।

ন্যাশনাল হাউজিং অ্যান্ড ফাইন্যন্সের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৫৮ টাকা, যা আগের বছর ছিল ০.৪৮ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানির ইপিএস বেড়েছে ০.১০ টাকা বা ২০.৮৩ শতাংশ।

ইসলামীক ফাইন্যান্সের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৩৭ টাকা, যা আগের বছর ছিল ০.৩১ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানির ইপিএস বেড়েছে ০.০৬ টাকা বা ১৯.৩৫ শতাংশ।

ডেল্টা ব্রাক হাউজিংয়ের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩.৪৩ টাকা, যা আগের বছর ছিল ৩.৩৮ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানির ইপিএস বেড়েছে ০.০৫ টাকা বা ১.৪৭ শতাংশ।

আইডিএলসির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.৪৮ টাকা, যা আগের বছর ছিল ১.৪৬ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানির ইপিএস বেড়েছে ০.০২ টাকা বা ১.৩৬ শতাংশ।

এদিকে, ইপিএস কমার মধ্যে সবচেয়ে বেশি কমেছে ইউনিয়ন ক্যাপিটালের। কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.০৫ টাকা, যা আগের বছর ছিল ০.১৮ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানির ইপিএস কমেছে ০.১৩ টাকা বা ৭২.২২ শতাংশ।

লংকাবাংলা ফাইন্যান্সের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.১২ টাকা, যা আগের বছর ছিল ০.১৬ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানির ইপিএস কমেছে ০.০৪ টাকা বা ২৫ শতাংশ।

জিএসপি ফাইন্যান্সের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৩৮ টাকা, যা আগের বছর ছিল ০.৪৪ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানির ইপিএস কমেছে ০.০৬ টাকা বা ১৩.৬৩ শতাংশ।

ফনিক্স ফাইন্যান্সের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৪৬ টাকা, যা আগের বছর ছিল ০.৫০ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানির ইপিএস কমেছে ০.০৪ টাকা বা ৮ শতাংশ।

এছাড়া লোকসান থেকে মুনাফায় ফেরা প্রাইম ফাইন্যান্সের শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ০.০৪ টাকা। যা আগের বছর একই সময় লোকসান ছিল ০.৫১ টাকা। আর লোকসানে থাকা বিআইএফসি শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ১.৭১ টাকা। যা আগের বছর ছিল ১.৯২ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানির লোকসান কমেছে ০.২১ টাকা।

শেয়ারবাজারনিউজ/এম.আর

আপনার মন্তব্য

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Top