আজ: শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ইং, ৩রা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১০ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

২৯ ডিসেম্বর ২০২০, মঙ্গলবার |



kidarkar

চাঁপাইনবাবগঞ্জে বেড়েছে ডায়রিয়া

শেয়ারবাজার ডেস্ক: চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর হাসপাতালে কয়েকদিন থেকে বেড়েই চলছে ডায়রিয়া আক্রান্ত শিশুর সংখ্যা। হাসপাতালের ৬টি বেডের বিপরীতে প্রতিদিন ৪৫-৫০ জন ডায়রীয়া রোগী ভর্তি হচ্ছে ডায়রিয়া ওয়ার্ডে।

আর রোগী বেশি হওয়ায় বেড না পেয়ে হাসপাতালের মেঝেতেই চিকিৎসা নিচ্ছে রোগীরা। মেঝেতে থেকে চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ হতে এসে অনেকেই আরো অসুস্থ হচ্ছে বললেন রোগীর স্বজনরা। আর বাড়তি রোগীর কারণে কিছুটা হলেও হিমসিম খাচ্ছেন শিশু ওয়ার্ডের ডাক্তার ও নার্সরা। আর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক বলছেন পর্যাপ্ত ঔষুধ ও ডাক্তার-নার্স রয়েছে। ডায়রীয়া থেকে রক্ষার জন্য সবাইকে সাবধান থাকা ও গরম পোশাক পড়ার পরার্মশ দিচ্ছেন ওয়ার্ডের কর্মরত ডাক্তাররা।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেলা আধুনিক হাসপাতালে গত এক সপ্তাহ থেকে ঠান্ডা জনিত কারণে ডায়রীয়ায় আক্রান্ত শিশু স্বাভাবিকভাবে ভর্তি হলেও গত তিনদিন থেকে প্রতিদিন ৪০-৫০ জন করে ডায়রীয়ায় আক্রান্ত শিশু ভর্তি হচ্ছে। গত এক সপ্তাহে প্রায় ৩ শ’র বেশি শিশু ডায়রীয়া আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছে। ডায়রীয়া ওয়ার্ডে ৬ বেডে গাদাগাদি করে জায়গা না পেয়ে হাসপাতালের মেঝেতে চিকিৎসা নিচ্ছে তারা।

জুনিয়র কনসালটেন্ট (শিশু) মাহফুজ রায়হান বলছেন, গত এক সপ্তাহে শিশুদের যে ডায়রিয়ার হারটা অনেকাংশে বৃদ্ধি পেয়েছে। প্রতিদিন জরুরি বিভাগের মাধ্যমে ৫০ জনের বেশি শিশু ডায়রীয়া ওয়ার্ড ভর্তি হচ্ছে। সদর হাসপাতালে একজন শিশু ডাক্তার হওয়ায় বাড়তি রোগীর কারণে চিকিৎসা সেবা দিতে আমাকে হিমহিস খাতে হচ্ছে। তিনি আরো বলেন, শিশু ওয়ার্ডের নার্সরা এবিষয়ে বড় ধরনের ভূমিকা রেখেই চলছে। আর মেঝেতে থেকে চিকিৎসা নিলে সুস্থ হওয়ার চেয়ে অসুস্থ হওয়ার কথাও বললেন ডাক্তার মাহফুজ রায়হায়।

আর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডাঃ মোঃ মুমিনুল হক বলেন, ঠান্ডার সময় ডায়রিয়ায় বেশি আক্রান্ত হয়ে থাকে শিশুরা। তবে হাসপাতালে পর্যান্ত পরিমাণ ঔষুধ, ডাক্তার-নার্স রয়েছ। পরিস্থিতি লাগালের মধ্যে রয়েছে। ডায়রীয়া নিয়ে কোন ধরণের আতংকিত না হয়ে গরম পোশাক, খাবার স্যালাইন খাওয়ার পরার্মশ দিচ্ছেন ডাক্তাররা।

শেয়ারবাজার নিউজ/মি

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.