আজ: শনিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২২ইং, ১৫ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৪শে জমাদিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

১৮ অগাস্ট ২০২১, বুধবার |



kidarkar

ব্যাংকের দর পতনের দিনে নেতিবাচক পুঁজিবাজার

শেয়ারবাজার ডেস্ক: ব্যাংকের শেয়ারের দাম দল বেঁধে বাড়লেও তা ধরে রাখতে না পেরে পরের দিনই পতনের যে বিষয়টি এর আগে একাধিকবার ঘটেছে, তা আবারও দেখা গেল ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে। সব কটি ব্যাংকের শেয়ারদর বৃদ্ধির পরদিন দুই একটি বাদে কমে গেল সিংহভাগের দাম।

ব্যাংকের পাশাপাশি ব্যাপক দরপতন ঘটল আর্থিক খাতেও। দিনের প্রায় পুরোটা সময় উত্থান হলেও শেষ বেলায় বস্ত্র খাতেও দেখা গেল দরপতন। প্রকৌশল খাতেও দিনটি ভালো যায়নি।

সব মিলিয়ে উত্থানে থাকা পুঁজিবাজারে ছন্দপতন হলো। সকাল ১০টা থেকে লেনদেন শুরু হয়ে বেলা পৌনে একটা পর্যন্ত উত্থানে থাকলেও শেষ পৌনে দুই ঘণ্টায় বিক্রয়ের চাপে সূচকের পতন হলো। আর যত কোম্পানির শেয়ার দর বেড়েছে, কমেছে তার প্রায় দেড়গুণ। দর সংশোধনের দিন লেনদেনও কমে গেছে।

এক বছরেরও বেশি সময় ধরে পুঁজিবাজারে চাঙাভাবে মূল্য সূচক প্রায় দ্বিগুণ হয়ে গেলেও তার পুরোপুরি ছাপ নেই ব্যাংক খাতে।

সবচেয়ে বড় বাজার মূলধনের খাতটিতে শেয়ারের দাম একেবারে বাড়েনি এমন নয়। তবে কোম্পানিগুলো যে লভ্যাংশ দিয়েছে এবং চলতি বছর যে হারে তারা আয় করেছে, শেয়ার প্রতি যে সম্পদ মূল্য আছে, এসবের বিবেচনায় শেয়ার দর অবমূল্যায়িত বলেই মত দিয়ে থাকেন পুঁজিবাজার বিশ্লেষকরা।

এর ভিড়ে মাঝেমধ্যে ব্যাংকগুলোর শেয়ার দর দল বেঁধে বাড়ে, কিন্তু তা ধরে রাখা যায় না। যেসব গত ২৭ মে এক দিনে সবগুলো ব্যাংকের শেয়ার দর বেড়ে যে অবস্থানে পৌঁছে, সেখান থেকে কমে লেনদেন হচ্ছে ২০টির মতো ব্যাংক। আর বেড়েছে ১০ থেকে ১২টির দর।

অথচ চলতি বছর যে লভ্যাংশ বিনিয়োগকারীরা পেয়েছেন, তা অনেকটাই অপ্রত্যাশিত বলা যায়। করোনার বছরে ব্যাংকের আয়ে কমে আসবে-এমন আশঙ্কায় শেয়ার দর কমছিল, কিন্তু বছর শেষে দেখা যায়, আয় আসলে বেড়েছে। আর লভ্যাংশও বাড়িয়েছে বেশির ভাগ ব্যাংক।

চলতি বছর অর্ধবার্ষিক মুনাফার যে হিসাব প্রকাশ হয়েছে, তাতেও আয়ে ব্যাপক প্রবৃদ্ধি দেখা গেছে। শেয়ারপ্রতি আয় বেড়েছে বেশির ভাগ ব্যাংকের। কোনো কোনো ব্যাংকের আয় দ্বিগুণ হয়েছে, কোনোটির দেড়গুণ, কোনোদিন আড়াই গুণ, কোনোটির তিন গুণ, কোনোটির প্রায় চার গুণ হয়েছে। এমন ব্যাংকও আছে, যেটি গত চার বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ আয় করেছে এই সময়ে।

এর মধ্যেও ব্যাংকের শেয়ারদর যখন ঝিমুচ্ছে, তখন মঙ্গলবার ৩২টি ব্যাংকের মধ্যে লেনদেন হওয়া ৩১টিরই শেয়ার দর বেড়েছে। এর মধ্যে চারটির দাম বাড়ে দিনে যত বাড়া সম্ভব ততই। অর্থাৎ ১০ শতাংশ অথবা আশেপাশে। ৫ থেকে ৯ শতাংশের আশেপাশে দাম বাড়ে আরও বেশ কয়েকটির।

সেদিন লেনদেন স্থগিত থাকা ন্যাশনাল ব্যাংক, টানা লোকসানে থাকা আইসিবি ইসলামী ব্যাংক, নতুন তালিকাভুক্ত সাউথবাংলা এগ্রিকালচার অ্যান্ড কমার্স ব্যাংকের দর আজও বেড়েছে একদিনে যত বাড়া সম্ভব ততই। কিন্তু এর বাইরে কেবল ট্রাস্ট ব্যাংকের শেয়ারদর বেড়েছে ১০ পয়সা। কমেছে বাকি ২৮টির দর।

ব্যাংকের দল বেঁধে উত্থানের পর দিনই দল বেঁধে পতনের এই চিত্র এই খাতটি নিয়ে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে বিভ্রান্তি আর অনিশ্চয়তার বিষয়টিই সামনে নিয়ে এসেছে।

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.