আজ: শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২ইং, ২৮শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১২ই মহর্‌রম, ১৪৪৪ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

২৪ অগাস্ট ২০২১, মঙ্গলবার |



kidarkar

দেড় মাসে ৯ হাজার কোটি টাকা ঋণ নিয়েছে সরকার

শেয়ারবাজার ডেস্ক: নতুন অর্থবছরের দেড় মাস না যেতেই ব্যাংক থেকে প্রায় ৯ হাজার কোটি টাকা ঋণ নিয়ে ফেলেছে সরকার। এই অঙ্ক গত অর্থবছরের পুরো সময়ের অর্ধেক।

সঞ্চয়পত্র বিক্রি অস্বাভাবিক বেড়ে যাওয়ায় গত অর্থবছরে ব্যাংকব্যবস্থা থেকে খুব একটা ঋণ করতে হয়নি সরকারকে। বাজেটে যে লক্ষ্য ধরা হয়েছিল, তার ৫ ভাগের ১ ভাগ মাত্র ঋণ নিতে হয়েছিল। কিন্তু ২০২১-২২ অর্থবছরের শুরু থেকেই সরকার ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে চলেছে।

মহামারি করোনাভাইরাসের সংকট মোকাবিলায় টিকা কেনাসহ অন্যান্য খরচ মেটাতে গিয়ে বাড়তি ব্যয় হওয়ায় সরকারকে ব্যাংক থেকে ধার করে তা পূরণ করতে হচ্ছে। অর্থবছরের শুরুতে কাঙ্খিত রাজস্ব আদায় না হওয়ায় বাধ্য হয়েই সরকারকে ব্যাংকের দ্বারস্থ হতে হচ্ছে বলে মনে করেন অর্থনীতিবিদ আহসান এইচ মনসুর।

তিনি বলেন, ‘তবে এতে উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই। প্রতি অর্থবছরেই শুরু দিকে রাজস্ব আদায়ের গতি কম থাকে। সে কারণে সরকারকে ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে খরচ করতে হয়। এবার টিকার জন্য প্রচুর টাকা লাগছে। টিকার বাইরেও এই মহামারি নিয়ন্ত্রণে আনতে নানা ধরনের খরচ করতে হচ্ছে। তাই বাধ্য হয়ে সরকার ব্যাংক থেকে ঋণ নিচ্ছে। রাজস্ব আদায় বাড়লে এবং টিকার জন্য দাতা সংস্থাগুলো যে ঋণ দিতে চেয়েছে, তা পাওয়া গেলে পরে হয়তো আর এতো ঋণ নেয়ার প্রয়োজন হবে না।’

বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘ব্যাংক থেকে সরকারের ঋণ নেয়া ও পরিশোধ করা একটি চলমান প্রক্রিয়া। দেশের প্রয়োজনে সরকার ব্যাংক থেকে ঋণ নেয়, রাজস্ব আদায়সহ বিভিন্ন খাত থেকে আয় হলে সেই ঋণ পরিশোধ করে। বাজেটে যে লক্ষ্য ধরা হয়, সেটাকে ধরেই ঋণ নেয় সরকার। অর্থবছর শেষে সেই লক্ষ্য ছাড়িয়ে যায় কিনা, সেটাই বড় বিষয়।’

বাংলাদেশ ব্যাংক রোববার সর্বশেষ যে তথ্য প্রকাশ করেছে, তাতে দেখা যায়, চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরের ১ জুলাই থেকে ১২ আগস্ট পর্যন্ত ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে ১১ হাজার ১৩০ কোটি ৮৮ লাখ টাকা ঋণ নিয়েছে সরকার। এই ঋণের পুরোটাই নেয়া হয়েছে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো থেকে। এ সময়ে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে কোনো ঋণ নেয়নি সরকার। উল্টো আগের নেয়া ঋণের ২ হাজার ৫০৩ কোটি ৩২ লাখ টাকা পরিশোধ করেছে।

এতে চলতি অর্থবছরের ১২ আগস্ট পর্যন্ত (১ জুলাই থেকে ১২ আগস্ট) ব্যাংক থেকে সরকারের নিট ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৮ হাজার ৮৮৭ কোটি ১৪ লাখ টাকা।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্যে দেখা যায়, ১২ আগস্ট শেষে সরকারের ব্যাংকঋণের স্থিতি দাঁড়িয়েছে ২ লাখ ১২ হাজার ৬১০ কোটি ৫ লাখ টাকা। গত অর্থবছরের জুন শেষে এই স্থিতি ছিল দুই লাখ এক হাজার ৫৩৮ কোটি টাকা।

গবেষণা সংস্থা পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক ও ব্র্যাক ব্যাংকের চেয়ারম্যান আহসান এইচ মনসুর বলেন, অর্থবছরের শুরুতে সরকারের ব্যয় অনুপাতে আয় কম থাকে। ফলে এ সময়ে ব্যাংকব্যবস্থা থেকে বেশি ঋণ করতে হয়। সাধারণত ব্যাংকব্যবস্থা থেকে সরকার বেশি ঋণ নিলে বেসরকারি খাত ঋণ না পাওয়ার আশঙ্কা থাকে। তাতে দেশের বিনিয়োগে নেতিবাচক প্রভাব পড়ে।

তবে করোনার কারণে বেসরকারি খাতে ঋণের চাহিদা কম থাকায় সরকারকে বেশি ঋণ দিতে ব্যাংকগুলোর সমস্যা নেই বলে জানান তিনি।

আহসান এইচ মনসুর বলেন, ‘আমাদের এখন সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন টিকা। যে করেই হোক, দ্রুততর সময়ের মধ্যে দেশের বেশিরভাগ মানুষকে টিকার আওতায় আনতে হবে। সরকারও সে চেষ্টা করে যাচ্ছে। আর এ জন্য যদি ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে করতে হয়, তাতেও কোনো সমস্যা নেই। দাতাদের কাছ থেকে টিকার ঋণ পাওয়া গেলে, পরে সেটা সমন্বয় করা যাবে।’

প্রতিবছরই বড় অঙ্কের ঘাটতি রেখে বাজেট পেশ করে আসছে সরকার। এই ঘাটতি মেটানো হয় দুটি উৎস থেকে। অভ্যন্তরীণ ও বৈদেশিক উৎস। বৈদেশিক খাত থেকে প্রয়োজনীয় অর্থ সহায়তা পাওয়া না গেলে অভ্যন্তরীণ উৎসর ওপরই বেশি নির্ভর করতে হয় সরকারকে।

অভ্যন্তরীণ উৎসর মধ্যে রয়েছে ব্যাংকব্যবস্থা ও সঞ্চয়পত্র। চলতি অর্থবছরে ব্যাংকব্যবস্থা থেকে সরকারের ৭৬ হাজার ৪৫২ কোটি টাকা নিট ঋণ নেয়ার লক্ষ্য ধরা হয়েছে। আর সঞ্চয়পত্র থেকে ঋণ নেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৩২ হাজার কোটি টাকা।

সঞ্চয়পত্র বিক্রি অস্বাভাবিক বেড়ে যাওয়ায় গত ২০২০-২১ অর্থবছরে সরকারের ব্যাংক ঋণের তেমন প্রয়োজন হয়নি। মূল বাজেটে ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে ৮৪ হাজার ৯৮০ কোটি টাকা ঋণ নেয়ার লক্ষ্য ধরা হয়েছিল। তবে সঞ্চয়পত্র থেকে প্রত্যাশার তুলনায় অনেক বেশি ঋণ আসায় সংশোধিত বাজেটে ব্যাংক থেকে ঋণ নেয়ার লক্ষ্য কমিয়ে ৭৯ হাজার ৭৪৯ কোটি টাকায় নামিয়ে আনা হয়।

কিন্তু অর্থবছর শেষে ব্যাংক থেকে সরকারের ঋণের পরিমাণ দাঁড়ায় ১৮ হাজার কোটি টাকা। এ হিসাবে দেখা যায়, গত অর্থবছরে সংশোধিত লক্ষ্যের ৪ ভাগের ১ ভাগ ঋণও নিতে হয়নি সরকারকে।

তবে ২০১৯-২০ অর্থবছরে ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে ৬৬ হাজার ৯০৭ কোটি ৬০ লাখ টাকার রেকর্ড পরিমাণ ঋণ নিয়েছিল সরকার, যা ছিল ওই অর্থবছরের বাজেটের লক্ষ্যের চেয়ে দ্বিগুণেরও বেশি। বাংলাদেশের ইতিহাসে এক অর্থবছরে এর আগে কখনোই ব্যাংক থেকে এত বেশি ঋণ নেয়নি সরকার।

রাজস্ব আদায়ে ভাটা ও কড়াকড়ি আরোপে সঞ্চয়পত্র বিক্রি কমে যাওয়ায় ব্যয় মেটাতে সরকারকে বাধ্য হয়ে ওই বছরে এত বেশি ঋণ করতে হয়েছিল।

১ টি মতামত “দেড় মাসে ৯ হাজার কোটি টাকা ঋণ নিয়েছে সরকার”

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.