আজ: বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২ইং, ২৩শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৬ই জিলহজ, ১৪৪৩ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

১১ সেপ্টেম্বর ২০২১, শনিবার |



kidarkar

সপ্তাহ জুড়ে বাজার মূলধন বেড়েছে সাড়ে ২২ হাজার কোটি টাকা

শেয়ারবাজার রিপোর্ট: টানা আট কার্যদিবস উত্থান হয়েছে শেয়ার বাজারে। শুধু তাই নয়, রেকর্ড সৃষ্টি হওয়া এই বাজারের মূলধন ও মূল্য সূচক গেল সপ্তাহে আরও উচ্চতায় পৌঁছে গেছে। সর্বশেষ সপ্তাহে লেনদেন হওয়া পাঁচ কার্যদিবসের প্রতিদিনই বড় উত্থান হয়েছে শেয়ার বাজারে। এতে এক সপ্তাহেই দেশের প্রধান শেয়ার বাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) বাজার মূলধন সাড়ে ২২ হাজার কোটি টাকার ওপরে বেড়ে গেছে। ফলে ছয় সপ্তাহে ডিএসইর বাজার মূলধন বাড়লো ৫০ হাজার কোটি টাকার ওপরে।

বাজারের তথ্য বলছে, গত সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসের লেনদেন শেষে ডিএসইর বাজার মূলধন দাঁড়িয়েছে ৫ লাখ ৮৬ হাজার ৩১৮ কোটি টাকা। যা তার আগের সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে ছিল ৫ লাখ ৬৩ হাজার ৭১৫ কোটি টাকা। অর্থাৎ গেল সপ্তাহে ডিএসইর বাজার মূলধন বেড়েছে ২২ কোটি ৬০৩ কোটি টাকা। কোনও এক সপ্তাহে এতো মূলধন বাড়াকে স্বাভাবিক ঘটনা বলে মনে করেন মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম। তিনি বলেন, মূলধন বাড়লে বিনিয়োগকারীদের মনোবল বাড়ার পাশাপাশি বাজার আরও শক্তিশালী হয়।

বাজার বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, আগের পাঁচ সপ্তাহে বাজার মূলধন বেড়েছিল ২৯ কোটি ৩১১ কোটি টাকা। এই হিসাবে টানা ছয় সপ্তাহের উত্থানে বাজার মূলধন বেড়েছে ৫১ হাজার ৯১৪ কোটি টাকা। এর মাধ্যমে ডিএসইর বাজার মূলধন এযাবতকালের মধ্যে সর্বোচ্চ অবস্থানে রয়েছে। বাজার মূলধন বাড়লে বিনিয়োগকারীদের বিনিয়োগ করা অর্থের পরিমাণ বেড়ে যায়।

দেখা যাচ্ছে, গত সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নেওয়া ২১০টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বেড়েছে। আর দাম কমেছে ১৫৫টির। তবে ১৩টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। গত সপ্তাহে ডিএসইর প্রধান মূল্য সূচক ডিএসইএক্স বেড়েছে ২৭৭ দশমিক ৬৯ পয়েন্ট। আগের সপ্তাহে সূচকটি বেড়েছিল ১২৯ দশমিক ৭৪ পয়েন্ট। এর মাধ্যমে ইতিহাসের সর্বোচ্চ অবস্থাতে অবস্থান করছে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের প্রধান মূল্য সূচক ডিএসইএক্স।

মূল্য সূচকের ভুল গণনা বন্ধ করতে ২০১৩ সালের ২৭ জানুয়ারি নতুন সূচক ডিএসইএক্স চালু করে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ। ৪০৫৫ দশমিক ৯০ পয়েন্ট দিয়ে শুরু হওয়া সূচকটি এখন ৭ হাজার ২৫৮ দশমিক ৭৫ পয়েন্ট অবস্থান করছে।

প্রধান মূল্য সূচক নতুন উচ্চতায় পৌঁছানের পাশাপাশি গত সপ্তাহে বাছাই করা ভালো কোম্পানি নিয়ে গঠিত ডিএসই-৩০ সূচকও এখন ইতিহাসের সর্বোচ্চ অবস্থানে রয়েছে। গেল সপ্তাহে এই সূচকটি বেড়েছে ১৫০ দশমিক ৩০ পয়েন্ট। আগের সপ্তাহে সূচকটি বাড়ে ৪৩ দশমিক ৪১ পয়েন্ট। একইভাবে ইসলামী শরিয়াহ ভিত্তিতে পরিচালিত কোম্পানি নিয়ে গঠিত ডিএসই শরিয়াহ সূচকও ইতিহাসের সর্বোচ্চ অবস্থানে অবস্থান করছে। গত সপ্তাহজুড়ে সূচকটি বেড়েছে ৮৩ দশমিক ৬৫ পয়েন্ট। আগের সপ্তাহে সূচকটি বাড়ে ২১ দশমিক ৪৬ পয়েন্ট।

বাজারের তথ্য বলছে, গত সপ্তাহের প্রতি কার্যদিবসে ডিএসইতে গড়ে লেনদেন হয়েছে ২ হাজার ৭৭৭ কোটি ৬৩ লাখ টাকা। আগের সপ্তাহে প্রতিদিন গড়ে লেনদেন হয়েছিল ২ হাজার ২৩৪ কোটি ২২ লাখ টাকা। এই হিসাবে প্রতি কার্যদিবসে গড় লেনদেন বেড়েছে ৫৪৩ কোটি ৪১ লাখ টাকা। আর গত সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ১৩ হাজার ৮৮৮ কোটি ১৮ লাখ টাকা। আগের সপ্তাহে লেনদেন হয়েছিল ৮ হাজার ৯৩৬ কোটি ৮৯ লাখ টাকা। এর ফলে মোট লেনদেন বেড়েছে ৪ হাজার ৯৫১ কোটি ২৯ লাখ টাকা।

অপরদিকে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) গত পাঁচ কার্যদিবসে মোট ৪৬৮ কোটি ১৩ লাখ ৯১ হাজার ৩৭৪ টাকা লেনদেন হয়েছে। এর আগের সপ্তাহে লেনদেন হয়েছিল ৩৪১ কোটি ৭০ লাখ ৬৩ হাজার ৪৫৮ টাকা। এতে সিএসইর প্রধান সূচক সিএসইএক্স আগের সপ্তাহের চেয়ে ৮০৩ পয়েন্ট বেড়ে ২১ হাজার ১৩১ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে।

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.