আজ: সোমবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২১ইং, ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৯শে রবিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

০৩ অক্টোবর ২০২১, রবিবার |



kidarkar

সেপ্টেম্বরে কমেছে রেমিট্যান্স প্রবাহ

  • সেপ্টেম্বরে রেমিট্যান্স এসেছে ১৭২ কোটি মার্কিন ডলার
  • আগস্টে রেমিট্যান্স এসেছিল ১৮১ কোটি ডলার
  • জুলাইয়ে রেমিট্যান্স এসেছিল ১৮৭ কোটি ডলার
  • গত বছরের সেপ্টেম্বরের তুলনায় কমেছে প্রায় ২০%
  • গত ১৫ মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন রেমিট্যান্স
  • সবচেয়ে বেশি রেমিট্যান্স এসেছে ইসলামী ব্যাংকের মাধ্যমে

শেয়ারবাজার রিপোর্ট: গত সেপ্টেম্বর মাসে দেশে রেমিট্যান্স এসেছে ১ দশমিক ৭২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বা ১৪ হাজার ৬৭২ কোটি ৭০ টাকা (১ ডলার ৮৫ টাকা)। যা এর আগের মাস আগস্টের চেয়ে ৭১৩ কোটি টাকা কম। আগস্টে রেমিট্যান্স এসেছিল ১৫ হাজার ৩৮৫ কোটি টাকা।

তার আগের মাস জুলাইয়ে এসেছিল ১ দশমিক ৮৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বা ১৫ হাজার ৯০৭ কোটি টাকা। জুলাইয়ের তুলনায় সেপ্টেম্বরে এক হাজার ২৩৫ কোটি টাকা কম এসেছে। এ নিয়ে গত তিন মাসে রেমিট্যান্স প্রবাহ নিম্নমুখি।

বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, সেপ্টেম্বর মাসে রেমিট্যান্স এসেছে ১৭২৬ দশমিক ২৯ মিলিয়ন (১.৭২ বিলিয়ন) মার্কিন ডলার বা ১৪ হাজার ৬৭২ কোটি ৭০ লাখ টাকা, যা তার আগের বছরের একই সময়ের (২০২০ সালের সেপ্টেম্বর) তুলনায় তিন হাজার ৬১০ কোটি ৮০ লাখ কোটি টাকা কম। ২০২০ সালের সেপ্টেম্বর মাসে রেমিট্যান্স এসেছিল ২.১৫ মিলিয়ন ডলার বা ১৮ হাজার ২৪৩ কোটি ৫০ লাখ টাকা।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য বলছে, গত ৫ জুলাই থেকে ৩০ সেপ্টেম্বর- এই তিন মাসে প্রবাসীরা পাঠিয়েছেন ৫৪০ কোটি ৮০ লাখ ডলার। আগের বছরের একই সময়ে (২ জুলাই থেকে ৩০ সেপ্টেম্বর) পাঠিয়েছিলেন ৬৭১ কোটি ৩০ লাখ ডলার। অর্থাৎ গত অর্থবছরের তুলনায় প্রবাসী আয় কমেছে ১৩০ কোটি ডলার।

এদিকে, গত তিন মাসে রেমিট্যান্স প্রবাহ কমায় কারণ হিসেবে করোনাভাইরাসের কথা বলছেন বিশেষজ্ঞরা। তারা জানান, গত বছরের শুরুতে মহামারি করোনার কারণে প্রবাসীরা বেশ অনিশ্চয়তায় ছিলো। ফলে তাদের যে জমানো টাকা ছিলো তা দেশে পাঠিয়েছিলেন। অনেকে চাকরি হারিয়ে কিংবা ব্যবসা-বাণিজ্য বন্ধ করে সব অর্থ দেশে এনেছেন।

তারা আরও বলছেন, করোনার কারণে হুন্ডি প্রবণতা কমায় বৈধ চ্যানেলে দেশে অর্থ  আসে।এতে রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়ে।কিন্তু এখন করোনা প্রবণতা কমেছে। অনেক দেশের ব্যবসা-বাণিজ্য সচল হয়েছে। সচল হয়েছে ভ্রমণ ও যোগাযোগ ব্যবস্থা। ফলে ব্যাংকিং চ্যানেলের বাইরে অর্থের চাহিদা বেড়ে গেছে। তাই রেমিট্যান্স প্রবাহ কম।

বিষয়টি নিয়ে পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর মনে করেন, হুন্ডি বেড়ে যাওয়ার কারণে ব্যাংকিং চ্যানেলে রেমিট্যান্স কমেছে। তবে দেশে ফেরা প্রবাসীদের অনেকেই বিদেশে যেতে পারেননি। এ কারণে প্রবাসী-আয় কমেছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, সেপ্টেম্বরে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে রেমিট্যান্স এসেছে ৩৬ কোটি ১৪ লাখ ডলার। বিশেষায়িত দুটি ব্যাংকের মাধ্যমে এসেছে ৩ কোটি ৭২ লাখ ডলার। এছাড়া বেসরকারি ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে ১৩২ কোটি ডলার এবং বিদেশি ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে ৭৬ লাখ ডলার রেমিট্যান্স এসেছে।

সবচেয়ে বেশি রেমিট্যান্স এসেছে ইসলামী ব্যাংকের মাধ্যমে। সেপ্টেম্বরে এই ব্যাংকের মাধ্যমে রেমিট্যান্স এসেছে ৪৬ কোটি মার্কিন ডলার।

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.