আজ: সোমবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২১ইং, ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৯শে রবিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

২৪ অক্টোবর ২০২১, রবিবার |



kidarkar

৯৫ কোটি টাকা সংগ্রহের সিদ্ধান্ত

এশিয়াটিক ল্যাবরেটরিজের রোড শো অনুষ্ঠিত

শেয়ারবাজার রিপোর্ট: বুক বিল্ডিং পদ্ধতির মাধ্যমে প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও)‌ মাধ্যমে পুঁজিবাজার থেকে অর্থ উত্তোলন করবে এশিয়াটিক ল্যাবরেটরিজ লিমিটেড। এজন্য রোববার (২৪ অক্টোবর) রবিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর রেডিসন ব্লু ওয়াটার গার্ডেন হোটেলে এই রোড শো অনুষ্ঠিত হয়। রোড শো’র উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এমডি ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন এশিয়াটিক ল্যাবরেটরিজের চেয়ারম্যান মিসেস তাহমিনা বেগম, নির্বাহী পরিচালক  মাকসুদ আহমেদ, পরিচালক সাদিয়া আহমেদ, কোম্পানীর সতন্ত্র পরিচালকগণ, কোম্পানী সচিবসহ অন্যান্য কর্মকর্তাবৃন্দ।

কোম্পানীর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মনির আহমেদ বলেন, “সফলভাবে আইপিও সস্পূর্ণের মাধ্যমে আমরা আমাদের কাঙ্খিত উৎপাদন ক্ষমতা এবং মার্কেট শেয়ার অর্জন করতে পারবো। প্রোজেক্টেড ফিনেনসিয়াল স্টেটমেন্ট অনুযায়ী, ২০২৫ এ আমাদের সেলস রেভিনিউ হবে ২৮৭.৬৩ কোটি করের পর নিট মুনাফা দাড়াঁবে ৭৩.৯২ কোটি টাকা এবং উৎপাদন ক্ষমতা বেড়ে হবে বছরে ২.৮৭ কোটি পিস। অর্থাৎ সেলস রেভিনিউ বর্তমান সেলস রেভিনিউ থেকে ৯৮% বাড়বে এবং পরিশোধের সময়কাল হবে ২.৫ বছর। আমরা বাংলাদেশের মার্কেটের চাহিদা পূরণ করে অন্যান্য উন্নত দেশগুলোতেও তখন রপ্তানি করতে পারবো। এশিয়াটিক ল্যাবরেটরিজ লিঃ এ বিনিয়োগ করার এখনই সেরা সময় এবং আমরা আমাদের শেয়ার হোল্ডারদের সঠিক রির্টান দিতে সক্ষম হব এবং পুঁজিবাজারে আমাদের পরবর্তী মাইলফলক শুরু করতে পারব।”

অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন ইস্যু ম্যানেজার-এর প্রতিনিধি, রেজিষ্টার অফ ইস্যু এর প্রতিনিধি, আড্ডাররাইটারসহ মার্চেন্ট ব্যাংক, ফান্ড ম্যানেজার, ইনসুরেন্স কোম্পানী, ডিএসই-সিএসই ট্রেক হোল্ডার, মিউচ্যুয়াল ফান্ড, এনবিএফআই ও পাবলিক ইস্যু আইন-২০১৫ অনুসারের অন্যান্য আর্থিক প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিগণ।

মার্কেট শেয়ার অর্জনের জন্য এবং বাংলাদেশের একটি সনামধন্য ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানীতে পরিণত করতে এশিয়াটিক ল্যাবরেটরিজ লিমিটেড বুক বিল্ডিং মেথডের মাধ্যমে বিএসইসির অনুমোদন সাপেক্ষে ৯৫ কোটি টাকার জন্য আইপিও-তে অংশগ্রহণ করছে। আইপিও-তে ব্যয়ের পর প্রতিষ্ঠানটি বাকি টাকা দিয়ে নতুন ফ্যাক্টরি বিল্ডিং স্থাপন, ক্যাপিটাল ম্যাশিনারিজ এবং লোন পরিশোধে ব্যয় করবে।

গত কয়েক বছরে লোকাল ওষুধ কোম্পানীগুলো গেম চেঞ্জার হিসেবে কাজ করছে। যার ফলে বাজারের ৯০% ওষুধ লোকাল কোম্পানীগুলোর দখলে রয়েছে। সাম্প্রতিককালে, ফার্মাসিউটিক্যাল মার্কেটের বেশ ভালো সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে এবং ধারণা করা হচ্ছে, ২০২৫ সালের মধ্যে এটি ৬ বিলিয়ন ডলারের মার্কেটে পরিণত হবে যা ২০১৯ থেকে ১১৪%  গ্রোথে থাকবে। যেহেতু এশিয়াটিকের তার গুনগত মানের কারণে ডাক্তারের কাছে অত্যন্ত সুনাম রয়েছে, তাই আমাদের একটি বিশাল সুযোগ রয়েছে একটি এন্টি ক্যান্সার প্ল্যান্ট স্থাপন করার, যা শুধু দেশেই সরবরাহ নয় বিদেশেও রপ্তানি করা যাবে বলে জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তারা।

অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিক ও উপস্থিত সকলের জন্য একটি প্রশ্নোত্তর পর্ব রাখা হয়, যেখানে এশিয়াটিক ল্যাবরেটরিজ লিমিটেড আইপিওতে আসার নানা বিষয় নিয়ে প্রশ্নের উত্তর প্রদান করেন কোম্পানীর ব্যবস্থাপনা পলিচালকসহ অন্যান্য পরিচালকবৃন্দ।

এশিয়াটিক ল্যাবরেটরিজ কোম্পানি আইন ১৯১৩ এর অধীনে ২৫শে জুলাই ১৯৭০ এ প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হয় এবং পরবর্তিতে তা ২০২০ এর ১২ মার্চ প্রাইভেট থেকে পাবলিক লিমিটেড কোম্পানীতে রূপান্তরিত হয়। ২০২০ সালে কোভিড-১৯ এর সময় প্রতিষ্ঠানটি এন্টিসেপটিক সলিউশন বাজারজাত করে এবং জীবন রক্ষাকারী কিছু ওষুধ সরকারিভাবে সরবরাহ করে।

 

 

 

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.