আজ: বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২ইং, ২৩শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৬ই জিলহজ, ১৪৪৩ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

০২ নভেম্বর ২০২১, মঙ্গলবার |



kidarkar

বিশ্বকাপ থেকে বিদায় বাংলাদেশ

স্পোর্টস ডেস্ক: বাংলাদেশের আশা যা একটু ছিল কাগজে-কলমে। শেষ দুই ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকা আর অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে জিততে পারলে, সঙ্গে অনেক ‘যদি-কিন্তু’র হিসাব মিলে গেলেই কেবল অসাধ্য সাধন হতো।

অস্ট্রেলিয়া ম্যাচ পর্যন্ত আর অপেক্ষা করতে হলো না। লজ্জার ব্যাটিং পারফরম্যান্স উপহার দিয়ে এক ম্যাচ থাকতেই টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিশ্চিত হয়ে গেলো টাইগারদের।

আবুধাবিতে আজ (মঙ্গলবার) দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে মাত্র ৮৪ রানে গুটিয়ে গিয়ে ৬ উইকেটে হেরেছে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের দল। ৩৯ বল হাতে রেখে পাওয়া এই জয়ে প্রোটিয়ারা সেমির পথে দিয়ে ফেলেছে এক পা।

হাতে মাত্র ৮৪ রান। বোলারদের মিরাকল কিছুই করতে হতো। শুরুটা অবশ্য দারুণই করেছিলেন তাসকিন-মেহেদিরা। ৩৩ রান তুলতেই প্রোটিয়াদের ৩ উইকেট তুলে নেন তারা।

তাসকিন এই ম্যাচে দারুণ বোলিং করছেন। ইনিংসের প্রথম ওভারেই দলকে সাফল্য এনে দেন এই গতিতারকা। দুর্দান্ত এক ডেলিভারিতে এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে ফেলেন রিজা হেনড্রিকসকে (৪)।

এরপর ২২ রানের একটি জুটি হয়েছিল কুইন্টন ডি কক আর ভ্যান ডার ডাসেনের মধ্যে। ইনিংসের পঞ্চম ওভারে সেই জুটিটি ভাঙেন শেখ মেহেদি। ১৫ বলে ১৬ করা ডি কককে বোল্ড করেন এই অফস্পিনার।

পরের ওভারে তাসকিনের আবারও আগুনে বোলিং। ওই ওভারে প্রথম তিন বলে এক রান দেওয়ার পর চতুর্থ বলে দারুণ এক ইনসুইঙ্গারে এইডেন মার্করামকে পরাস্ত করেন তাসকিন।

অনেকটা ভেতরে ঢুকে যাওয়া বল বুঝতে না পেরে ব্যাটটাই হাত থেকে ছুটে যায় মার্করামের। হতে পারতো হিটউইকেট কিংবা ইনসাইডেজে ক্যাচ। বেঁচে যান মার্করাম।

তবে পরের বলটিতে তাসকিন আর বাঁচতে দেননি প্রোটিয়া ব্যাটারকে (০)। এবার তার দারুণ ডেলিভারি ঠিক টেস্টের মতো ডিফেন্স করতে গেলে বল চলে যায় স্লিপে। সুযোগ হাতছাড়া করেননি নাইম শেখ।

শেষদিকে এসে ভ্যান ডার ডাসেনকে (২৭ বলে ২২) আউট করে পরাজয়ের ব্যবধান একটু কমিয়েছেন নাসুম আহমেদ। মিডঅনে অনেকটা দৌড়ে এসে দুর্দান্ত এক ক্যাচ নেন শরিফুল ইসলাম। পুরো টুর্নামেন্টে যে ক্যাচই ভুগিয়েছে বাংলাদেশকে।

৪ ওভারে মাত্র ১৮ রান খরচায় ২টি উইকেট নেন তাসকিন। একটি করে উইকেট মেহেদি হাসান আর নাসুম আহমেদের।

এর আগে আবুধাবিতে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে চরম বিপর্যয়ে পড়ে টাইগাররা। প্রোটিয়া বোলারদের তোপে ৩৪ রান তুলতেই হারিয়ে বসে ৫ উইকেট।

অথচ ওপেনিং জুটিতে ইতিবাচকই মনে হচ্ছিল নাইম শেখ আর লিটন দাসকে। সেই ইতিবাচকতা অবশ্য বেশিক্ষণ টেকেনি।

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.