আজ: বুধবার, ১০ অগাস্ট ২০২২ইং, ২৬শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১০ই মহর্‌রম, ১৪৪৪ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

০৬ জুলাই ২০২২, বুধবার |



kidarkar

চামড়া কিনতে ৪৩৩ কোটি টাকা ঋণ দিচ্ছে ব্যাংকগুলো

নিজস্ব প্রতিবেদক:  পবিত্র ঈদুল আজহায় কোরবানির পশুর কাঁচা চামড়া কিনতে ব্যবসায়ীদের ৪৩৩ কোটি টাকা ঋণ দিচ্ছে সরকারি- বেসরকারি ব্যাংকগুলো। এসব ঋণের মধ্যে শুধু রাষ্ট্রায়ত্ত চার ব্যাংক (সোনালী, জনতা, অগ্রণী ও রূপালী) দেবে ২৫৮ কোটি টাকা। যার মধ্যে সবচেয়ে বেশি ১২০ কোটি টাকা দেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে জনতা ব্যাংক লিমিটেড। এসব ঋণের অধিকাংশই বিতরণ করা হয়েছে বলে বাংলাদেশ ব্যাংকের একটি সূত্রে জানা গেছে।

ব্যাংক সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ব্যবসায়ীদের মধ্যে চামড়া বাবদ ঋণ নিয়ে অন্য খাতে বিনিয়োগ করার প্রবণতা রয়েছে। এ কারণে খেলাপি হচ্ছেন তারা। তবে এসব খেলাপি আর চামড়ার ঋণ অন্য খাতে ব্যয় করা নিয়ে সতর্ক রয়েছে ব্যাংকগুলো। এসব কারণে কোরবানিতে চামড়া কেনার সংখ্যা বাড়লেও ঋণের পরিমাণ কমে আসছে।

ব্যবসায়ীদের মতে, দেশের চামড়াশিল্প এখন চীনের কাছে জিম্মি। তারা যে দাম দেয়, তা মেনে নিতে হয়। এরআগে বিভিন্ন দেশের ক্রেতা ছিল। চামড়ার দরদামও হতো। এখন এককভাবে ব্যবসা করছে চীন। তাছাড়া কেমিক্যালের ক্ষেত্রেও সিন্ডিকেট রয়েছে। যাদের বন্ড আছে, তারা চামড়ার ব্যবসা ছেড়ে কেমিক্যালের ব্যবসা করছেন। ইচ্ছামতো কেমিক্যালের দাম নির্ধারণ করছেন। ওয়েট ব্লু করতে চাইলে এখানে ৪৫ ধরনের কেমিক্যালের ব্যবহার হয়।

পূর্ণাঙ্গ চামড়া তৈরি করতে ৯২ প্রকারের কেমিক্যাল চামড়ায় ব্যবহার করা হয়ে থাকে। এরমধ্যে কিছু কেমিক্যালের দাম চারগুণ পর্যন্ত বেড়েছে। আন্তর্জাতিক বাজারে একটা দাম বাড়লে দেশি ব্যবসায়ীরা আরও দাম বাড়িয়ে দেন। এতে আমরা যে চামড়া কিনি তার তিনগুণ কেমিক্যালের পেছনে খরচ করতে হচ্ছে। কেমিক্যালের ব্যবসা সবার জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া উচিত। এতে সবাই কেমিক্যাল কম দামে পাবে, আবার চামড়ার ব্যবসাও ভালো হবে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মতে, এবার কাঁচা চামড়া সংরক্ষণে ট্যানারি মালিকরা ৪০০ কোটি টাকা ব্যাংক ঋণ পাবেন। তবে সরকারি-বেসরকারি ব্যাংক মিলে ৪৩৩ কোটি টাকা ঋণের লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করা হয়েছে। এরমধ্যে রাষ্ট্রায়ত্ত চার ব্যাংক ২৫৮ কোটি টাকা ঋণ বিতরণের লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে, যার মধ্যে জনতা ব্যাংকই দিচ্ছে ১২০ কোটি টাকা। গত বছর একই পরিমাণ ঋণ বিতরণের প্রস্তুতি থাকলেও শেষ পর্যন্ত জনতা ব্যাংক বিতরণ করে ৪০ কোটি টাকা।

এ বছর রূপালী ব্যাংক ৩০ কোটি টাকা ঋণ দিচ্ছে। অগ্রণী ব্যাংক দিচ্ছে ৮৩ কোটি টাকা এবং সোনালী ব্যাংকের লক্ষ্যমাত্রা ২৫ কোটি টাকা। নব্বই দশকে চামড়া খাতে ঋণ বিতরণের পর সেসব ঋণ ফেরত না আসায় বেসরকারি ব্যাংকগুলো এ খাতে ঋণ বিতরণ থেকে অনেকটাই মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে। এখন মূলত রাষ্ট্রায়াত্ত চার ব্যাংকই চামড়া কেনায় বেশি ঋণ দিয়ে থাকে। এর বাইরে বেসরকারি কয়েকটি ব্যাংক ঋণ দিচ্ছে।

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.