আজ: শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২ইং, ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৭ই জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

০৪ অক্টোবর ২০২২, মঙ্গলবার |


kidarkar

নিজের তিন ছেলেকে ইউক্রেনে যুদ্ধে পাঠানোর ঘোষণা কাদিরভের


আন্তর্জাতিক ডেস্ক : সাত মাসেরও বেশি সময় ধরে ইউক্রেনে যুদ্ধ করছে রাশিয়ার সামরিক বাহিনী। যুদ্ধের শুরুতে রুশ সেনারা বিস্তীর্ণ ইউক্রেনীয় ভূখণ্ড দখলে নিলেও ইউক্রেনের সাম্প্রতিক বেশ কয়েক দফার পাল্টা হামলায় পিছু হটতে বাধ্য হয়েছে রাশিয়া।

এই পরিস্থিতিতে ইউক্রেনের যুদ্ধে লড়াই করার জন্য নিজের তিন কিশোর ছেলেকে যুদ্ধক্ষেত্রে পাঠানোর ঘোষণা দিয়েছেন রাশিয়ার চেচনিয়া অঞ্চলের প্রধান রমজান কাদিরভ। তিনি রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের ঘনিষ্ঠ মিত্র বলে পরিচিত। সোমবার (৩ অক্টোবর) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আলজাজিরা।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইউক্রেনে যুদ্ধরত একটি ব্যক্তিগত সেনাবাহিনীর কমান্ড করেন রমজান কাদিরভ। পুতিনের ঘনিষ্ঠ এই মিত্র ইউক্রেনের যুদ্ধক্ষেত্রে সিরিজ ব্যর্থতার জন্য সাম্প্রতিক সময়ে মস্কোর সামরিক কর্মকর্তাদের ব্যাপক সমালোচনা করেছেন।

কাদিরভ এর আগে দাবি করেছিলেন, পূর্ব ইউক্রেনে (ব্যর্থতার জন্য) রাশিয়ান বাহিনীর কমান্ডারের পদক কেড়ে নেওয়া হোক এবং যুদ্ধের জন্য সামনের সারিতে পাঠানো হোক। তিনি কর্নেল-জেনারেল আলেকজান্ডার ল্যাপিনের সমালোচনাও করেন এবং তাকে ‘মাঝারি মানে’ বলে আখ্যায়িত করেন।

আলজাজিরা বলছে, পূর্ব ইউক্রেনের প্রধান শহর লাইম্যান থেকে রাশিয়ান বাহিনী প্রত্যাহারের পর থেকে চেচেন এই নেতা সামরিক প্রধানদের উদ্দেশে সমালোচনা মাত্রা বাড়িয়েছেন।

টেলিগ্রাম মেসেজিং অ্যাপে কাদিরভ নিজের সন্তানদের একটি ভিডিও পোস্ট করেছেন। যেখানে ১৬ বছর বয়সী আখমত, ১৫ বছর বয়সী এলি এবং ১৪ বছর বয়সী অ্যাডামকে অস্ত্র থেকে গুলি চালাতে দেখা যায়। তিনি সেখানে লিখেছেন, তারা (সন্তানরা) শিগগিরই ‘সবচেয়ে কঠিন কাজে’ যোগ দিবে।

কাদিরভ আরও বলছেন, তার কিশোর বয়সী ছেলেদের ‘খুবই অল্প বয়স থেকে’ যুদ্ধের জন্য প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে এবং জোর দিয়ে দাবি করেন যে- তিনি ‘তামাশা করছেন না’।

পুতিনের এই ঘনিষ্ঠ মিত্র বলেন, ‘এটি একটি সত্যিকারের লড়াইয়ে নিজেদের প্রমাণ করার সময়, আমি কেবল এই ইচ্ছাকে স্বাগত জানাতে পারি।’

ভিডিওটিতে কাদিরভের তিন ছেলেকে ছদ্মবেশী পোশাক এবং গাঢ় চশমা পরা অবস্থায় ট্যাংকে বসে কোমরে বাঁধা বন্দুক, রকেট লঞ্চার এবং মেশিনগান থেকে গুলি ছুড়তে দেখা গেছে। অনেক সময় এই কিশোরদের গোলাগুলির সময় হাসাহাসি বা থাম্বস-আপ অঙ্গভঙ্গি প্রদর্শন করতেও দেখা যায়।

সংবাদমাথ্যম বলছে, রাশিয়া এবং তার ইউক্রেনে আগ্রাসনের সবচেয়ে স্পষ্টবাদী সমর্থকদের একজন হচ্ছেন রমজান কাদিরভ। তিনি রাশিয়াকে (ইউক্রেনে) একটি ছোট কৌশলগত পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহার করার কথা বিবেচনা করার পরামর্শ দিয়েছিলেন।

অবশ্য ক্রেমলিন সোমবার ইউক্রেনে স্বল্প-মাত্রার পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহারের বিষয়ে কাদিরভের আহ্বান প্রত্যাখ্যান করেছে।

রুশ সরকারের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ কাদিরভের মন্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় বলেছেন: ‘এটি খুব আবেগপূর্ণ মুহূর্ত। (রাশিয়ান ফেডারেশনভুক্ত) অঞ্চলের প্রধানদের তাদের দৃষ্টিভঙ্গি প্রকাশ করার অধিকার রয়েছে। তবে কঠিন মুহূর্তে নিজের আবেগকে যেকোনো ধরনের মূল্যায়ন থেকে বাদ দেওয়া উচিত।’

পেসকভ অবশ্য ইউক্রেনে সামরিক অভিযানে চেচেন নেতার ‘বীরত্বপূর্ণ অবদানকে’ স্বাগত জানিয়েছেন।

উল্লেখ্য, ২০০৭ সাল থেকে চেচনিয়া প্রজাতন্ত্রের প্রধান হিসেবে দায়িত্বপালন করছেন রমজান কাদিরভ। রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের ঘনিষ্ঠ মিত্র হিসেবে পরিচিত এই ব্যক্তি ইউক্রেন যুদ্ধের শুরুতেই রুশ বাহিনীর পক্ষে যোগ দিয়েছিলেন।

ইউক্রেন যুদ্ধে গুরত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখার জন্য চলতি বছরের ২৮ মার্চ তাকে লেফটেন্যান্ট-জেনারেল পদে পদোন্নতি দেন পুতিন।


আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.