আজ: রবিবার, ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ইং, ২২শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১২ই রজব, ১৪৪৪ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

২১ ডিসেম্বর ২০২২, বুধবার |


kidarkar

শুরু হল আবাসন খাতের সবচেয়ে বড় আয়োজন রিহ্যাব ফেয়ার ২০২২


নিজস্ব প্রতিবেদক : শুরু হল আবাসন খাতের সবচেয়ে বড় আয়োজন রিহ্যাব ফেয়ার ২০২২। বুধবার (২১ ডিসেম্বর) বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড হাউজিং অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (রিহ্যাব) আয়োজিত মেলার উদ্বোধন করেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম।

৫ দিন ব্যাপী এ মেলা চলবে ২৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত। এবারের ফেয়ারে ১৮০টি স্টল থাকছে। রিয়েল এস্টেট প্রতিষ্ঠান ছাড়াও ১৬ বিল্ডিং ম্যাটেরিয়ালস ও ১৩ অর্থলগ্নীকারী প্রতিষ্ঠানকে অংশগ্রহণ করার সুযোগ করে দিয়েছে রিহ্যাব।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী তাজুল ইসলাম, এমপি বলেন, “ঢাকাকে সুন্দরভাবে বসবাসযোগ্য করার জন্য ইতোমধ্যে ড্যাপ এর প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। ড্যাপ এ ফার হ্রাস এর বিষয়ে অনেকের মধ্য থেকে উদ্বেগ প্রত্যক্ষ করেছি। সবার যৌক্তিক দাবি বিবেচনা করবো। পরিকল্পিত ঢাকা গড়তে সবাইকে এগিয়ে আসার কথা বলেন তিনি।

মন্ত্রী বলেন, ড্যাবের সভাপতি হিসেবে কোনো পার্শয়ালিটি করিনি। আমি কারো পক্ষ-বিপক্ষে অবস্থান নিচ্ছি না। দেশের কল্যাণে কোথাও কোন কিছু করা হলে আমি সেটা অবশ্যই করবো। ৫০ বছর পর ঢাকার জনসংখ্যা হিসাব করেই আমরা সেটা করবো। ঢাকাসহ সারা দেশের নাগকিরদের আবাসনের স্বপ্ন পুরণে রিহ্যাব এর অবদান অনেক বড় বলেও অভিমত দেন এলজিআরডি মন্ত্রী।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন রিহ্যাব প্রেসিডেন্ট আলমগীর শামসুল আলামিন (কাজল)। রিহ্যাব সদস্য এবং ক্রেতাদের মধ্যে সেতুবন্ধন তৈরি করতে এই ফেয়ার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে মনে করেন তিনি।

রিহ্যাব প্রেসিডেন্ট বলেন, “অর্থনৈতিক অগ্রগতির সাথে সাথে মানুষের ভাল জায়গায় সুন্দর একটি ফ্ল্যাট নিয়ে থাকার আগ্রহ বাড়ছে। আমরা নাগরিকদের স্বপ্ন পূরণে কাজ করে যাচ্ছি। সাম্প্রতিক সময়ে প্রতিটি নির্মাণ সামগ্রীর অস্বাভাবিক মূল্য বৃদ্ধি এবং নতুন ড্যাপ এ ফার হ্রাসের কারণে আমরা আবাসন সেক্টর নিয়ে বড় ধরনের সংকটে রয়েছি। নতুন ড্যাপের ঘোষিত ফ্লোর এরিয়া রেশিও (ফার) হ্রাসের কারণে মূল ঢাকায় বেশিরভাগ ভবন হবে ৪ থেকে ৫ তলা। ফলে আগামীতে আবাসন সংকট আরো প্রকট হবে। কারণ ফ্ল্যাটের চাহিদা এবং যোগানের মধ্যে ভারসাম্যহীনতা তৈরি হবে। নতুন ড্যাপের প্রজ্ঞাপন জারি হওয়ার পর বিগত প্রায় ৪ মাসে আমাদের রিহ্যাব সদস্যরা জমির মালিকের সাথে কোন চুক্তি বা সমঝোতায় যেতে পারেনি। কেউ নতুন করে প্ল্যান পাশ করেনি। পুরাতন প্রকল্পগুলো নিয়েই অনেকে কাজ করছেন। ফলে আগামীতে ফ্ল্যাটের সংকট তৈরি হবে এবং দাম বাড়বে। ”

রিহ্যাব এর সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট ইন্তেখাবুল হামিদ, আবাসন খাতের বিভিন্ন অবদানের কথা তুলে ধরে বলেন, পরিকল্পিত ও আধুনিক বাসস্থান তৈরিতে গৃহঋণের অবদান অনস্বীকার্য। বর্তমান প্রেক্ষাপটে একজন নাগরিকের পক্ষে হাউজিং লোন ছাড়া ফ্ল্যাট বা প্লট ক্রয় করা প্রায় অসম্ভব। ক্রেতারা যাতে খুব সহজে এই ঋণ পেতে পারে সেই ব্যবস্থা করার জানি জানান তিনি।

রিহ্যাব এর ভাইস প্রেসিডেন্ট (প্রথম) কামাল মাহমুদ বলেন, এই মূহুর্তে যা আমাদের জন্য বড় সংকট তৈরি করেছে একটি নির্মাণ সামগ্রীর মূল্য বৃদ্ধি। অন্যটি ড্যাপ এ ফার হ্রাস। জিডিপিতে ১৫ শতাংশ অবদান রাখা আবাসন শিল্প আজ হুমকির মুখে।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন রিহ্যাবের ভাইস প্রেসিডেন্ট (ফিন্যান্স) ও ফেয়ার স্ট্যান্ডিং কমিটির চেয়ারম্যান প্রকৌশলী মোহাম্মদ সোহেল রানা। অনুষ্ঠানে ভাইস প্রেসিডেন্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট মোঃ আব্দুল কৈয়ূম চৌধুরী সহ রিহ্যাব পরিচালকবৃন্দ এবং অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।


আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.