আজ: শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২ইং, ১৫ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৩রা রবিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

২২ নভেম্বর ২০১৫, রবিবার |



kidarkar

শীতকালে বেশি বিয়ে হয় কেন!

merryশেয়ারবাজার ডেস্ক: শীতকাল চলে এসেছে। আর এ সময়ে দেখা যাবে বেশি বেশি বিয়ে হতে। একের পর এক বিয়ের নিমন্ত্রণ এসে হাজির হবে আপনাদের সামনে। তবে কখনও ভেবে দেখেছেন, শীতকালেই কেন সবাই ঝটপট বিয়ের পিঁড়িতে বসে পড়ে। গরমের দিনে কিন্তু বিয়েটা খুবই কম হয়। চলুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক শীতকালে বেশি বেশি বিয়ে করার কিছু কারণসমূহ-

এনার্জি:

বিয়ে মানেই ৪-৫ দিনের ধকল। সবাই মিলে হাত লাগিয়ে সারতে হয়। রাত জাগা, প্রভৃতি উৎপাতে এনার্জি খরচ হয় বিস্তর। তাই শীতই সই। শীতে অনেক কাজ করলেও এনার্জিতে ঘাটতি দেখা যায় না।

উপোসের জন্য শীতকালই বেস্ট:

সেই কোন ভোরে খই দই খেয়ে সারাদিন উপোস, গরমে সইবে? শরীর ডিহাইড্রেট হয়ে বিয়ের সময় মাথা ঘুরিয়ে একশা। কিন্তু শীতে উপোসটা কোনও ব্যাপারই নয়।

সাজগোজের ব্যাপারটাও ইমপর্ট্যান্ট:

এ দেশের যা আবহাওয়া, শীতের পর বাকি সময়টায় মেকআপ লাগিয়ে সাজলে মুশকিল। ঘেমে নেয়ে গলে গলে পড়ে সব সাজ। তাই কনের সাজ হোক বা বরের, শীতে যেমন খুশি সাজো। বর-কনে ছাড়া বাকিরাও বিয়েবাড়ির সাজের আনন্দ নিতে পারে চুটিয়ে।

কত ফুল, কত ডেকরেশন:

কৃত্রিম ফুলের প্রয়োজনও হয় না শীতকালে। ডালিম, রজনীগন্ধা, অর্কিড, গাঁদা, গোলাপ, জুঁই – সব টাটকা টাটকা পাওয়া যায় হাফ দামে। এবেলা সাজালে ওবেলায় পচে যায় না।

যত খুশি খাও:

শীতে সাধারণত হজমশক্তির বৃদ্ধি ঘটে। তাই ফিশফ্রাই, রোগানজোশ, বিরিয়ানি, পোলাও সবই এক থাকায় গপগপিয়ে সাবাড় করা যায় বিনা দ্বিধায়। তা ছাড়া, শীতকালীন কিছু বিশেষ খাবার ওঠে, যেমন গুড়, কমলা লেবু ইত্যাদি… সে সব খাওয়াদাওয়াকে অন্য মাত্রায় পৌঁছে দেয়।

হানিমুনের চার্ম:

বিয়ের পর খুব বেড়ানো যায়। রোদের তাপ নেই, ক্লান্তি নেই। বরের হাত ধরে নতুনের স্বাদটা ভালোই উপভোগ করা যায় শীতে। হানিমুনটাও হয় অনেক ভাল।

 

শেয়ারবাজারনিউজ/মু

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.