আজ: মঙ্গলবার, ০৪ অক্টোবর ২০২২ইং, ১৯শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৬ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

২৩ নভেম্বর ২০১৫, সোমবার |


kidarkar

পরিচালনা পর্ষদ নিয়ে বিপাকে সিটি ব্যাংক


city_bankশেয়ারবাজার রিপোর্ট: একই পরিবারের সদস্য হওয়ায় বেসরকারি দ্য সিটি ব্যাংক লিমিটেডের দুই পরিচালককে পদ ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। পাঁচ কার্যদিবসের মধ্যে এই নির্দেশ বাস্তবায়ন করে কেন্দ্রীয় ব্যাংককে জানাতে বলা হয়েছে।  কিন্তু এ নির্দেশ পালন করতে গেলে বিএসইসি’র আইন লঙ্ঘন করতে হবে। তাই কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্দেশনা নিয়ে বিপাকে পড়েছে ব্যাংকটি।

২২ নভেম্বর ব্যাংকটির চেয়ারম্যান রুবেল আজিজ ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক সোহেল আরকে হোসেনের কাছে এমন নির্দেশ দিয়ে চিঠি দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

জানা যায়, দ্য সিটি ব্যাংক লিমিটেডের ১২ সদস্যের পরিচালনা পর্ষদের  চারজনই রয়েছেন পারটেক্স গ্রুপের কর্ণধার এম এ হাশেম পরিবারের। এরা হলেন চেয়ারম্যান রুবেল আজিজ, পরিচালক আজিজ আল কায়সার, তাবাসসুম কায়সার ও সাইয়েদা সায়রিন আজিজ।

এদিকে ডিএসই সূত্রে জানা যায়, ৮৭৫ কোটি ৮০ লাখ টাকা মূলধনের এ ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদের কাছে ৩১.১১ শতাংশ শেয়ার রয়েছে। এর মধ্যে পরিচালনা পর্ষদে একই পরিবারের চারজন সদস্য রয়েছেন। এ চারজন সদস্যের মধ্যে ব্যাংকের চেয়ারম্যান রুবেল আজিজের কাছে রয়েছে ২ কোটি ১০ লাখ ৭ হাজার ৮৯টি শেয়ার। যা ব্যাংকের মোট শেয়ারের ২.৪৯ শতাংশ। একইভাবে আজিজ আল কায়সারের কাছে ২.৯১ শতাংশ শেয়ার, তাবাস্সুম কায়সারের কাছে ২.০০ শতাংশ শেয়ার এবং সৈয়দা শায়রিন কায়সারের কাছে ২.০১ শতাংশ শেয়ার রয়েছে।

কিন্তু সিটি ব্যাংক পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানি। তাই পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এন্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) আইন অনুযায়ী তালিকাভুক্ত কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদকে ন্যুনতম ৩০ শতাংশ শেয়ার ধারণ করতে হবে।

তাই কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্দেশ পালন করলে ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদের সম্মিলিতভাবে ধারণ করা শেয়ার ৩০ শতাংশ থেকে কমে যাবে।

অপরদিকে, ব্যাংক কোম্পানি আইনের ১৫ ধারার (১০) উপ-ধারায় বলা হয়েছে, বেসরকারি খাতের কোনো ব্যাংকে একই পরিবার থেকে একই সময়ে দুইজনের বেশি পরিচালক রাখা যাবে না।  এই ধারার ১১ উপ-ধারায় আরও বলা আছে, পরিচালকদের পারস্পরিক সমঝোতার ভিত্তিতে পদত্যাগের মাধ্যমে এই নির্দেশনা কার্যকর করতে হবে। তবে কোনো কারণে নিজেদের মধ্যে সমঝোতা করতে ব্যর্থ হলে পরিচালনা পরিষদের সভায় কাকে বাদ দেওয়া হবে তা লটারির মাধ্যমে নির্ধারণ করতে হবে। পরিবারের সদস্যদের ব্যাখ্যায় আইনে বলা হয়েছে, স্বামী বা স্ত্রী, পিতা, মাতা, পুত্র, কন্যা, ভাই, বোন এবং সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির ওপর নির্ভরশীল সবাই অন্তর্ভ‍ুক্ত হবে।

এর আগে ২০১৪ সালের ১২ অক্টোবর সাত দিনের মধ্যে একই পরিবার থেকে পরিচালক দুইজনে নামিয়ে আনতে দ্য সিটি ব্যাংককে নির্দেশ দিয়েছিলো কেন্দ্রীয় ব্যাংক। পরে ৩০ অক্টোবর পর্যন্ত সময় দেওয়া হয়।

কিন্তু এ বিষয়ে উচ্চ আদালতে রিট করেন ব্যাংকের পরিচালক দীন মোহাম্মদ। পরে শুনানি শেষে আদালতও রিটটি খারিজ করে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের পক্ষে রায় দিয়েছেন। দীর্ঘদিন আগে রিটটি খারিজ হলেও সিটি ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদ এখনও কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। তাই কেন্দ্রীয় ব্যাংক নতুন করে আবার চিঠি দিয়েছে।

এ বিষয়ে সিটি ব্যাংকের কোম্পানি সেক্রেটারি কাফি খানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি এ বিষয়ে কোন মন্তব্য জানাতে করতে রাজি হননি।

শেয়ারবাজারনিউজ/অ/মু


আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.