আজ: শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২ইং, ১৫ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৩রা রবিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

১৬ অক্টোবর ২০১৬, রবিবার |



kidarkar

ফেসবুকের ডিএসইউ গ্রুপের তিন অ্যাডমিনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ

f3115619c5aea29743ab094258b04ede-58025078e8e9eশেয়ারবাজার ডেস্ক: সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের ডেসপারেটলি সিকিং আনসেনসর্ড (ডিএসইউ) নামের গ্রুপের তিন অ্যাডমিনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বুধবার বিকালে রাজধানীর কলাবাগান থানার পান্থপথ এলাকা থেকে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) সহকারী কমিশনার (এসি) জাহাঙ্গীর হাসানের নেতৃত্বে একটি টিম গ্রুপটির তিন অ্যাডমিনকে গ্রেফতার করে। তারা হলেন, ময়মনসিংহের  আসিফ রানা, কুমিল্লার জুবায়ের আহমেদ ও শেরপুরের তৌহিদুল ইসলাম অর্ণব। তাদের সবার বয়স ২০ থেকে ২৪ বছরের মধ্যে। তারা কেউ স্থায়ীভাবে ঢাকায় থাকে না। তবে মাঝেমাঝে তারা ঢাকায় আসে। গ্রুপের অ্যাডমিনরা মিলে কোনও রেস্টুরেন্ট বা হোটেলে আড্ডা দেয়।

পর্নোগ্রাফি ছড়ানো, অশ্লীল আলাপচারিতাসহ এমন কোনও নোংরামি নেই, যা এই গ্রুপে প্রচারিত হতো না। গ্রুপটিতে মোট ১৮ জন অ্যাডমিন ও একজন ক্রিয়েটর রয়েছে। তাদের মধ্যে আবার ৮জন তরুণী। মালয়েশিয়ায় বসে প্রবাসী বাংলাদেশি  মো. রাহুল চৌধুলী এই গ্রুপটির ক্রিয়েটর তদারকি করছে।

তদন্ত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা জানান, গ্রুপটির ১৮ জন অ্যাডমিন রয়েছে। একজন ক্রিয়েটর, সে মালয়শিয়ায় থাকে। অ্যাডমিনদের মধ্যে আটজন তরুণীও রয়েছে। তারা হলো, আনিকা তাসনিম, তৌহিদা রিমি, নূমানা আফরোজ অর্পি, আফরিন মুন, মেহেজাবীন মেহেনাজ, শানজানা তরি, তাহসিফা মিথি ও সৈয়দা নুসরাত শাহরিয়ার। তাদের গ্রেফতারে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে। তবে তাদের সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য এখনও পায়নি পুলিশ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই কর্মকর্তা বলেন, ‘গ্রেফতারকৃত আসিফ রানা, জুবায়ের আহমেদ ও তৌহিদুল ইসলাম ছাড়াও আরও সাত তরুণ অ্যাডমিন রয়েছে। তারা হলো, মো. মারুফ হোসেন, কাজী হৃদয়, দেওয়ান সাজ্জাদ হোসেন মুন্না, আরাফাত হুসাইন, আশরাফ হিমেল, নাহিল শাহরিয়ার ও ফাহিম শাহরিয়ার। গ্রুপটিতে যারা মূলত অ্যাক্টিভ থাকে, তাদের অ্যাডমিন করা হতো। আবার ইনক্টিভদের অ্যাডমিন থেকে সরিয়ে দিতো রাউল চৌধুরী।’

পুলিশ জানিয়েছে, গ্রেফতারকৃত তিন তরুণের কাছ থেকে যেসব ডিভাইস উদ্ধার করা হয়েছে, সেগুলো পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) ল্যাবে পাঠানো হয়েছে। তারা এসব ডিভাইস থেকে কী ধরনের কন্টেন্ট প্রকাশ করছে, তা মূলত যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে। এসব নিশ্চিত হওয়ার পর তাদের বিরুদ্ধে তথ্য প্রযুক্তি আইনে মামলা দায়ের করা হবে। আটকের পর তাদের ৫৪ ধারায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে। তারা বর্তমানে কারাগারে রয়েছে।

শেয়ারবাজারনিউজ/এম.আর

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.