আজ: সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ইং, ১২ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৯শে সফর, ১৪৪৩ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

১২ মার্চ ২০১৭, রবিবার |



kidarkar

নৌবাহিনীকে ত্রিমাত্রিক বাহিনী হিসেবে গড়ে তুলতে পেরেছি

Hasinaশেয়ারবাজার ডেস্ক: ‘নবযাত্রা’ ও ‘জয়যাত্রা’ নামে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর বহরে প্রথমবারের মতো যুক্ত হলো দুটি সাবমেরিন। আজ রবিবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিতিতে চট্টগ্রাম নেভাল একাডেমির জেটিসংলগ্ন এলাকায় এক বিশেষ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে চীন থেকে কেনা দুটি সাবমেরিনের কমিশনিং অনুষ্ঠিত হয়।

এরপর প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু এই মার্চ মাসে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়ে শত্রুবাহিনীকে বিতাড়নের নির্দেশ দিয়েছিলেন। এ দেশের সব শ্রেণি-পেশার মানুষ তার নির্দেশে দেশকে শত্রুমুক্ত করলেন, স্বাধীন করলেন।

তিনি বলেন, সেই মার্চেই বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের প্রতিরক্ষানীতির আলোকে নৌবাহিনীতে যুক্ত হলো সাবমেরিন, যা বিশ্বে মাত্র অল্প ক’টি দেশ যুক্ত হতে পেরেছে। আমরা সেই কাতারে যুক্ত হতে পারলাম, এ জন্য গর্ববোধ করছি।

শেখ হাসিনা বলেন, আজ আমরা নৌবাহিনীকে ত্রিমাত্রিক বাহিনী হিসেবে গড়ে তুলতে পেরেছি। যারা সমুদ্র, আকাশ এবং স্থলভাগে শত্রুমুক্ত করতে পারঙ্গম। আমরা অতি অল্প সময়ের মধ্যে নৌবাহিনীতে অনেক আধুনিক যুদ্ধজাহাজ সংযুক্ত করেছি।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু মাত্র সাড়ে তিন বছরে একটি যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশকে গড়ে তুলেছেন। স্বাধীনতা সংগ্রামে ভারতে আশ্রয় নেওয়াদের পুনর্বাসন করেছেন। এই অল্প সময়ের মধ্যেই তিনি নৌবাহিনীসহ সশস্ত্র বাহিনীকে গড়ে তুলেছেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুর প্রতিরক্ষানীতির আলোকেই আমরা আমাদের সশস্ত্র বাহিনীকে গড়ে তুলছি, আধুনিকায়ন করছি। সাবমেরিনের প্রথম ক্রুদের অভিনন্দন জানিয়ে তিনি বলেন, বাঙালি জাতির ইতিহাস বীরের ইতিহাস। কাজেই আমি বিশ্বাস করি আপনারা নিজের মেধা ও পেশাগত কসরতের মাধ্যমে নৌবাহিনীর এই আধুনিক অভিযাত্রায় সফল হবেন। দেশের সমুদ্র সম্পদ আহরণ ও প্রতিরক্ষায় নিজেদের যোগ্যতা প্রমাণ করবেন।

শেখ হাসিনা বলেন, আমরা কারও সঙ্গে যুদ্ধে লিপ্ত হতে চাই না। তবে আমরা যদি আক্রান্ত হই তাহলে যেন উপযুক্ত জবাব দিতে পারি তার জন্য আমাদের পদক্ষেপ অব্যাহত থাকবে। শক্তি বজায় থাকলেই উন্নতি ত্বরান্নিত হবে এবং নিরাপদে থাকব সেটি আমরা বিশ্বাস করি।

‘নবযাত্রা’ ও ‘জয়যাত্রা’ নামে বাংলাদেশের প্রথম সাবমেরিন গত বছরের ২২ ডিসেম্বর চীন থেকে চট্টগ্রাম বন্দরে আনা হয়। এর আগে ১৪ নভেম্বর এই সাবমেরিনগুলো বাংলাদেশের কাছে হস্তান্তর করে চীন।

শেয়ারবাজারনিউজ/মু

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.