আজ: বুধবার, ১০ অগাস্ট ২০২২ইং, ২৬শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১০ই মহর্‌রম, ১৪৪৪ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

০১ এপ্রিল ২০১৭, শনিবার |



kidarkar

বড় কোম্পানি থেকে মুনাফা তুলেছেন বিনিয়োগকারীরা

Weekly Bazarশেয়ারবাজার রিপোর্ট: দেশের শেয়ারবাজারে গত সপ্তাহের ৪ কার্যদিবসের মধ্যে ৩ দিনই কমেছে সূচক। এর পাশাপাশি কমেছে বেশিরভাগ কোম্পানির শেয়ার দরও। আর এর ফলে সাপ্তাহিক ব্যবধানে দেশের উভয় স্টক এক্সচেঞ্জে নিম্নমুখী প্রবণতা বিরাজ করছে। আর তার ধারাবাহিকতায়  সপ্তাহ শেষে ডিএসইতে গড় লেনদেন হয়েছে ৯৩১ কোটি ৩৬ লাখ ৪৯ হাজার ৫৩৮ টাকা। আর সপ্তাহজুড়ে ডিএসইর লেনদেন কমেছে ৩৪.৫৭ শতাংশ।

বিভিন্ন সিকিউরিটিজ হাউজ ও মার্চেন্ট ব্যাংকের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বললে তারা জানান, বাজারের হেভিওয়েট কোম্পানি বলতে প্রথমেই রয়েছে ব্যাংক খাতের কোম্পানিগুলো। এ খাতে সপ্তাহজুড়ে দরপতন হলে পুরো বাজারে নেতিবাচক প্রভাব পড়ে। কারণ বাজার মূলধনের একটি বড় অংশ ব্যাংক সেক্টরের দখলে। ব্যাংকে খাতে দরপতনের কারণে পুরো বাজারে নেতিবাচক পড়েছে। এছাড়া মাসের শেষে বিনিয়োগকারীদের শেয়ার কেনার চেয়ে বিক্রির প্রবণতা বেশি থাকে। ক্রয়ের চেয়ে বিক্রয়ের পরিমাণ বেশি হওয়ায় বাজারে নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। এছাড়া দেশের বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি সামনে কোন দিকে মোড় নেয় সেটা দেখার জন্য অনেকে শেয়ার বিক্রি করে নগদ টাকা রেখেছেন। আবার কেউ কেউ বাজারে কারেকশনের অপেক্ষায় রয়েছেন বলে মনে করছেন বাজার সংশ্লিষ্টরা।

বিশ্লেষণে দেখা গেছে, সপ্তাহিক ব্যবধানে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৬.৬২ পয়েন্ট বা ০.১২ শতাংশ কমেছে। আর ডিএসইএক্স শরিয়াহ সূচক বেড়েছে ২.২৪ পয়েন্ট বা ০.১৭ শতাংশ ও ডিএসই ৩০ সূচক বেড়েছে ১৪.০৯ পয়েন্ট বা ০.৬৮ শতাংশ। আর সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে ৩৩৩টি কোম্পানির শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৮৪টি, কমেছে ২২৫টি, অপরিবর্তিত রয়েছে ২৩টি  এবং লেনদেন হয়নি ১টি কোম্পানির। এগুলোর উপর ভর করে মোট ৩ হাজার ৭২৫ কোটি ৪৫ লাখ ৯৮ হাজার ১৫২ টাকা লেনদেন হয়েছে। দৈনিক গড় হিসাবে এ লেনদেন হয়েছে ৯৩১ কোটি ৩৬ লাখ ৪৯ হাজার ৫৩৮ টাকা। যা আগের সপ্তাহে ৫ হাজার ৬৯৩ কোটি ৪৪ লাখ ৭ হাজার ৪০৩ টাকা লেনদেন হয়েছিল। সে হিসেবে আগের সপ্তাহের তুলনায় ডিএসইতে মোট লেনদেনের পরিমান কমেছে ১ হাজার ৯৬৭ কোটি ৯৮ লাখ ৯ হাজার ২৫১ টাকা।

মোট লেনদেনের ৯৩.৫৮ শতাংশ এ ক্যাটাগরিভুক্ত, ৩.৮৫ শতাংশ বি ক্যাটাগরিভুক্ত, ১.৪৭ শতাংশ এন ক্যাটাগরিভুক্ত এবং ১.১১ শতাংশ জেড ক্যাটাগরিভুক্ত কোম্পানির শেয়ার ও ইউনিটের মধ্যে হয়েছে।

এদিকে, দেশের অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (সিএসই) প্রধান সূচক সিএসইএক্স কমেছে ৪.৬১ পয়েন্ট ০.০৪ শতাংশ। সপ্তাহজুড়ে সিএসইতে তালিকাভুক্ত মোট ২৮৩টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের শেয়ার লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৮২টি কোম্পানির। আর দর কমেছে ১৮৮টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৩টির। আর সপ্তাহজুড়ে লেনদেন হয়েছে ২৭৬ কোটি ৫৮ লাখ ৩৫ হাজার ৪৬৪ টাকার শেয়ার। যা আগের সপ্তাহে হয়েছিলো ৩৭২ কোটি ৫১ লাখ ৭৫ হাজার ৭৮ টাকার শেয়ার। সে হিসেবে বিদায়ী সপ্তাহে লেনদেন কমেছে ৯৫ কোটি ৯৩ লাখ ৩৯ হাজার ৬১৪ টাকা।

শেয়ারবাজারনিউজ/এম.আর

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.