আজ: রবিবার, ১৪ অগাস্ট ২০২২ইং, ৩০শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৫ই মহর্‌রম, ১৪৪৪ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৭, শনিবার |



kidarkar

বিশ্বের সবচেয়ে বিপদজনক পর্যটক স্থান

tourশেয়ারবাজার ডেস্ক: অপরূপ সুন্দর আমাদের এই পৃথিবীতে, দৃষ্টি নন্দন জায়গার অভাব নাই। এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্তেপর্যটকরা ভিড় জমিয়ে চলেছে এই প্রাকৃতিক দৃশ্য অবলোকোনের জন্য। এত সুন্দরের মাঝে রয়েছে বিপদ। কিছু কিছু স্থান রয়েছে যা পর্যটকদের প্রাণহানীরও কারণ হতে পারে!

ডেথ ভ্যালি:

যদি পৃথিবী আমাদের বাড়ি হয়, তবে ডেথ ভ্যালি তার তপ্ত চুল্লি। এই মরুভূমির রেকর্ডকৃত সর্বোচ্চতাপমাত্রার – ১৩৪ ডিগ্রী ফারেনাইট (৫৬.৭ ° সে)। অগ্নিতপ্ত সূর্য এবং মৃত্যু উপত্যকায় সমুদ্রের তাপ আপনাকে দ্রুত স্থান ত্যাগ করতে বাধ্য করবে। সর্বোচ্চ ১৪ ঘণ্টা জল ছাড়া আপনি এখানে টিকে থাকতেপারবেন।

death-valley

 

ডানাকিল মরুভূমি, ইরিত্রিয়া:

দহন তাপমাত্রা ১২০ ডিগ্রী ফারেনহাইট (৯ডিগ্রী সি), এই আগ্নেয়গিরি বিষাক্ত গ্যাস ছিটিয়ে চলেছে – আফ্রিকার ডানাকিল মরুভূমির তুলনায় আরো ভয়াবহ কিছু নাই। বেশিরভাগ মানুষ এই ভয়ানক জায়গাটিকে’হেল অন আর্থ’ মনে করে, কিন্তু সারা বিশ্বের অনেক সাহসী পর্যটকদের এখনো আকর্ষণ করে চলেছে।অভিজ্ঞ গাইড ছাড়া ডানাকিল মরুভূমি পরিদর্শন নিষিদ্ধ ।

The Danakil Desert, Eritrea

সিনবং আগ্নেয়গিরি, ইন্দোনেশিয়া:

সুমাত্রার ইন্দোনেশিয়ান দ্বীপে অবস্থিত একটি সক্রিয় আগ্নেয়গিরি হল সিনবং আগ্নেয়গিরি। এখানে ঘন অগ্নিপাত ঘটে, আর এতে প্রায়ই হাজার হাজার মানুষ আশ্রয় বা জীবিকা ছাড়া হয়ে পড়ে। নিকটবর্তীশহরগুলি এবং গ্রামগুলি ইতিমধ্যেই লাভা এবং ছাইতে বেশ কয়েকবার আচ্ছাদিত হয়েছে- ২০১০,২০১৩,২০১৪ এবং ২০১৫ সালে। সর্বশেষ বিস্ফোরণ ঘটেছে ২৭শে ফেব্রুয়ারী ২০১৬। এইঅগ্ন্যুত্পাত্যে আগ্নেয় গ্যাস, পাথর, এবং ছাই মারাত্মক ভাবে ২৫০০ মিটার উচ্চতায় নির্গত হয়েছিল।

 

Sinabung Volcano, Indonesia

 

এলিফ্যান্ট কিংডম থাইল্যান্ডের চুনবুরিতে

এলিফ্যান্ট কিংডম , থাইল্যান্ড, আসলে একটি কুমির খামার।  পর্যটকদের আসার জন্য মালিক একটি ছোট একটি দাঁড়ানোর জায়গা তৈরি করে ছবিতে দেখুন এবং সেখানে দাঁড়িয়ে পর্যটকরা কুমিরকে খাওয়াতে পারে! দাঁড়ানোর যায়গাটিতে একটি পাতলা কাঠের এবং একটি প্লাস্টিকের ব্যারেলের উপর কিছু সুষম খাবার থাকে এবং এর কাছাকাছি নেট দিয়ে অর্ধেক ঘেরাও করে দেওয়া আছে। পর্যটকরা রডের মাথায় মাংস বেধে দেয় এবং কুমির তা লাফ দিয়ে খেয়ে নেয়, বিষয়টা এতটাই ভয়াবহ সেখানে পর্যটকেরাও তাদের মাংস খাওয়াতে খাওয়াতে কেঁপে ওঠা ক্রস আঁকড়ে ধরে থাকেন এবং তারপরও রড নাড়তে থাকে যেমন ক্ষুধার্ত পশুরা মাংসের জন্য তাদের কাছে পৌঁছায়

মাউন্ট ওয়াশিংটন ইউ.এস.এ 

মাউন্ট ওয়াশিংটন সামিট পৃথিবীর দ্রুততম বাতাসের জন্য বিশ্বের রেকর্ড করে। এখানে সর্বোচ্চ রেকর্ডকৃত গতি হল প্রতি ঘন্টায় ২03 মাইল (327 কিমি / ঘণ্টা)। তবে শক্তিশালী বাতাস এই এলাকার একমাত্র উদ্বেগ নয় – হিমায়িত তাপমাত্রা যা -40 ডিগ্রী কম এবং একটানা ভারী তুষারপাত হয়ে ওয়াশিংটনকে মারাত্মকভাবে বিপজ্জনক করে তোলে। তা ছাড়াও উচ্চতা – 6,288 ফুট (1,917 মিটার) – মাউন্ট ওয়াশিংটন বিশ্বের সবচেয়ে মারাত্মক শিখর । এভারেস্টের মাউন্ট এভারেস্টের শীর্ষে এটি মানুষের তুলনায় লোকেদের তুলনায় অনেক বেশি লাগে।

লাহা কুইমেডা গ্র্যান্ডে (স্নেক আইল্যান্ড), ব্রাজিল:

ব্রাজিলের উপকূলে লুকিয়ে থাকা এই দ্বীপ পৃথিবীর সবচেয়ে বিপজ্জনক স্থান হিসাবে স্বীকৃত। কারণ এইজায়গাটিতে বিশ্বের সবচেয়ে বিষাক্ত সাপে পূর্ণ। গবেষকরা দেখেছেন যে দ্বীপে প্রতি বর্গমিটারে পাঁচটি সাপথাকে। এখানে অনেক মানুষ মারা গেছে তারমধ্যে-বাতিঘর রক্ষাকর্তার মৃত্যু, যিনি সাপের আক্রমণে মারাযান। এ ঘটনার পর থেকে ব্রাজিলের সরকার পর্যটকদের প্রবেশ নিষেধ করে দেয়।

lha da Queimada Grande (Snake Island), BrazilLha Da Queimada Grande (Snake Island), Brazil

 

মাদিডি ন্যাশনাল পার্ক, বলিভিয়া

প্রথম দর্শনে, এই জায়গাটি অপরূপ সুন্দর দেখাবে, কিন্তু এটি আসলে খুব বিপজ্জনক। কারণ এটি বিশ্বেরসবচেয়ে বিষাক্ত এবং আক্রমনাত্মক প্রাণিকুলের বসবাস । এখানে কোন উদ্ভিদের সাথে খোঁচায় রাশএবং গুরুত্বর ক্ষত তৈরি হয় যার কারণে মৃত্যুও হতে পারে ।

Madidi National Park, BoliviaMadidi National Park, Bolivia

 

কমচাটকা উপদ্বীপ,রাশিয়া:

রাশিয়ান দূর প্রাচ্যে কমচাটকা উপদ্বীপ, এর নিজস্ব ডেথ ভ্যালিও রয়েছে। এটা বিখ্যাত গেসারস উপত্যকাথেকে দূরে অবস্থিত।এখানে বিষাক্ত গ্যাসে রয়েছ যার জন্য প্রতিটি জীবন্ত বস্তুর একটি হুমকির মুখেদাড়িয়ে আছে। গাছপালা ও প্রাণীরা দ্রুত মারা যায়, মানুষেরা খুব শীঘ্রই অসুস্থ বোধ করতে শুরু করেএবং জ্বর, মাথা ঘোরা এবং ঠাণ্ডা হয়ে যায়।

Valley of Death, Kamchatka, RussiaValley Of Death, Kamchatka, Russia

 

বিকিনি এটল, মার্শাল দ্বীপপুঞ্জ:

মহাসাগরের কোথাও হারিয়ে গেছে এই দ্বীপটি ,দেখতে স্বর্গের মত। কিন্ত বিকিনি এটল বেশ কয়েকটিপারমাণবিক পরীক্ষা কর্মসূচির আওতায় ছিল,দ্বীপটি তেজস্ক্রিয় বিকিরণ অঞ্চলে পরিণত হয়েছিল। মানুষজানতাদের বাড়ি ছেড়ে চলে যেতে বাধ্য হয়, এমনকি আজও এটি জীবিত প্রাণীর জন্য বিপজ্জনক।

Bikini Atoll, The Marshall Islands

শেয়ারবাজারনিউজ/মু

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.