আজ: শনিবার, ২২ জুন ২০২৪ইং, ৮ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৪ই জিলহজ, ১৪৪৫ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

০৬ মে ২০১৫, বুধবার |

kidarkar

বিএফএমএফের প্রথম সভা: সেল-প্রেশার কমাতে উদ্যোগের সিদ্ধান্ত

BFMF_Sharebazarnewsশেয়ারবাজার রিপোর্ট: পুঁজিবাজারে হঠাৎ করেই সেল-প্রেশার বেড়ে যাওয়ায় অস্বাভাবিকভাবে ক্রমাগত সূচকের পতন ঘটছে। আর বাজারের স্থিতিশীলতা রক্ষায় এই সেল-প্রেশার কমানোর জন্য উদ্যোগ নিচ্ছে নবগঠিত সংগঠন বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল মার্কেট ফোরাম (বিএফএমএফ)।

সংগঠনটির প্রথম সভাতেই বাজারে স্থিতিশীলতা আনার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক এবং অর্থ মন্ত্রনালয়ের সাথে সমন্বিতভাবে দাবি জানানো হবে এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

বুধবার বাংলাদেশ ইনস্যুরেন্স অ্যাসোসিয়েশন (বিআইএ) কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সভায় এমনটাই আলোচনা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন সংগঠনটির মুখপাত্র এবং সাধারণ সম্পাদক আহসানুল ইসলাম টিটু। এছাড়া সংগঠনটিকে পূর্ণাঙ্গ রুপ দিতে একত্রিত হওয়া ছয় সংগঠনের নির্বাহী কমিটির তিনজন করে সদস্যের নাম প্রস্তাব করতে বলা হয়।

সভায় প্রথমেই উঠে আসে, গত কয়েকদিনের সেল-প্রেশারের কারণে বাজারের নিম্নমুখী প্রবনতার ব্যাপারটি। বাংলাদেশ ব্যাংকের এক্সপোজার লিমিট সংক্রান্ত নির্দেশনার কারনে বেশিরভাগ বানিজ্যিক ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে বাজারে তাদের বিপুল বিনিয়োগ কমিয়ে আনতে বাধ্য হচ্ছে। আর কেন্দ্রিয় ব্যাংক এ সময়সীমা ২০১৬ সালের ১জুন ঠিক করে দেয়ায় অতিরিক্ত এক্সপোজারে থাকা প্রতিষ্ঠানগুলো শেয়ার বিক্রির প্রবনতা দেখাচ্ছে। এ কারনেই বাজারে সার্বিক সূচক ১৫ মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন পর্যায়ে নেমে আসে। এ দূরাবস্থা কাটাতে তাই কেন্দ্রিয় ব্যাংককে নমনীয় মনোভাব দেখানোর জন্য প্রস্তাবনা দিতে যাচ্ছে বিএফএমএফ।

এছাড়া আসন্ন ২০১৫-২০১৬ অর্থবছরের বাজেটে পুঁজিবাজারের স্বার্থে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) কাছে দেয়া প্রস্তাবগুলো গুরুত্বসহকারে বিবেচনা করার জন্য একই প্রস্তাবনা অর্থ মন্ত্রনালয়ে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

অন্যদিকে, সংগঠনটির নীতি-নির্ধারকরা মনে করছেন বাজারে স্থিতিশীলতা আনার জন্য বিএফএমএফের এ উদ্যোগগুলো কার্যকর ভুমিকা রাখতে পারবে। তারা মনে করছেন, বাজার ধসের অন্যতম মূল কারণ বাংলাদেশ ব্যাংকের এক্সপোজার লিমিট সংক্রান্ত নীতিমালায় সময়ের বাধ্য-বাধকতা কিছুটা কমানো হলে অর্থাৎ এ আইন পরিপালনের নির্ধারিত সময়সীমা বাড়ানো হলে বিদ্যমান সেল-প্রেশার কমে আসবে।

সংগঠনটির মুখপাত্র আহসানুল ইসলাম টিটু শেয়ারবাজারনিউজ ডট কমকে বলেন, ‘বিএফএমএফের মাধ্যমে আসা চূড়ান্ত প্রস্তাবগুলো নিয়ে কেন্দ্রিয় ব্যাংকের গভর্নরের সাথে কয়েকদিনের মধ্যেই সাক্ষাত করা হবে। আশা করছি আমাদের এমন উদ্যোগগুলোতে বাজারে ইতিবাচক প্রভাব পড়বে।’

এ বিষয়ে বাংলাদেশ লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স কোম্পানিজ অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট মো. আসাদ খান শেয়ারবাজারনিউজ ডট কমকে বলেন, ‘মুলত সেল-প্রেশার কিভাবে কমানো যায় এবং আসন্ন বাজেটে আমাদের দাবিগুলো কিভাবে উপস্থাপন করা হবে এটা নিয়েই আলোচনা হয়। বাজেটে পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্ট সংগঠনগুলোর দাবি সংক্রান্ত একটি চিঠি আগামিকাল অর্থ মন্ত্রনালয়েও পাঠানো হচ্ছে।  ’

এদিকে বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমবিএ) পক্ষ থেকে সংগঠনটির ভাইস-প্রেসিডেন্ট আখতার হোসন সান্নামাত শেয়ারবাজারনিউজ ডট কমকে বলেন, ‘পুঁজিবাজারের প্রতি বাংলাদেশ ব্যাংক সাম্প্রতিক সময়ে আগের তুলনায় অনেকটাই নমনীয় মনোভাব দেখিয়েছে। অতি সম্প্রতি মিউচ্যুয়াল ফান্ডের প্রভিশনিং সংক্রান্ত নীতিমালাতেও কেন্দ্রিয় ব্যাংক অনেকটা ছাড় দিয়েছে। এতে আমরা আশা করছি এক্সপোজার লিমিটের মধ্যে বিনিয়োগ নিয়ে আসার যে নির্দেশনা আছে, সেক্ষেত্রেও কেন্দ্রিয় ব্যাংক পুঁজিবাজারের স্বার্থে ছাড় দেয়ার মনোভাব দেখাবে।’

বিএফএমএফ এর আহবায়ক শেখ কবির হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকটিতে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ব্রোকার্স  এসোসিয়েশনের আহবায়ক আহসানুল ইসলাম টিটু, বিএমবিএ,র ভাইস প্রেসিডেন্ট আখতার হোসেন সান্নামাত, বিএলএফসিএ এর প্রেসিডেন্ট আসাদ খানসহ অন্য প্রতিনিধিগণ উপস্থিত ছিলেন।

 

শেয়ারবাজারনিউজ/ও/তু/সা

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.