আজ: শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২ইং, ১৮ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১লা জিলহজ, ১৪৪৩ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

২৭ জানুয়ারী ২০২১, বুধবার |



kidarkar

এনবিআরকে আগে ব্যবসাবান্ধব পরিবেশ তৈরি করার আহবান অর্থমন্ত্রীর

শেয়ারবাজার ডেস্ক: কর আদায় বাড়াতে এনবিআরকে আগে ব্যবসাবান্ধব পরিবেশ তৈরি করতে হবে বলে মনে করেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। ব্যবসায়ীদের সহায়তা ও সেবা করেই তাদের কাছ থেকে কর আদায় করতে হবে। ভয়ভীতির উর্ধে থেকে তারা যেন ব্যবসাটা করতে পারেন সেদিকেও খেয়াল রাখা প্রয়োজন। আবার রাজস্ব আদায়ের বিষয়টিও মাথায় রাখার তাগিদ দিয়ে তিনি বলেন, কেবল ব্যবসায়ীরা জিতবে আর এনবিআর ঠকবে তা হবে না। তাদেরও (ব্যবসায়ীদের) দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হতে হবে। দুই লাখ টাকার বেশি শুল্ককর অনলাইনে পরিশোধ বাধ্যতামূলক করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন রাজস্ব বোর্ড চেয়ারম্যান আবু হেনা মোঃ রহমাতুল মুনিম। রাজস্ব ব্যবস্থাপনার আধুনিকায়নে গুরুত্ব দিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, এটি বাস্তবায়ন করা সম্ভব হলে

জিডিপিতে রাজস্বের অবদান বাড়বে। মঙ্গলবার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় রাজস্ব ভবনে আন্তর্জাতিক কাস্টমস দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ভার্চুয়ালি) অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল এসব কথা বলেন। কিছু ত্রুটি-বিচ্যুতি আছে স্বীকার করে তিনি বলেন, চেষ্টা চলছে যাতে ব্যবসাবান্ধব করা যায়। ব্যবসায়ীদের সহায়তা করা গেলে এনবিআর শক্তিশালী হবে, রাজস্ব আদায়ও বাড়বে। অর্থমন্ত্রী বলেন, সবচেয়ে বেশি অভিযোগ এনবিআর নিয়ে। আপনাদের (এনবিআর কর্মকর্তাদের) যাতে কেউ কিছু বলতে না পারে। অর্থমন্ত্রী বলেন, একসময় গণমাধ্যমে আসত ইটপাথর পাঠিয়েও রফতানি দেখানো হয়। এখন যেহেতু দীর্ঘদিন ধরে এ ধরনের খবর দেখা যায় না, ধরে নিচ্ছি এনবিআর সঠিকভাবে কাজ করছে। অতীতের বছরগুলোতে আন্তর্জাতিক কাস্টমস দিবস উপলক্ষে আড়ম্বরপূর্ণ

অনুষ্ঠান আয়োজন করা হলেও করোনা ভাইরাসের মহামারী পরিস্থিতিতে এবার অনেকটা অনাড়ম্বরপূর্ণভাবেই দিবসটি পালন করেছে এনবিআর। এনবিআর চেয়ারম্যান আবু হেনা মোঃ রহমাতুল মুনিমের সভাপতিত্বে সেমিনারে উপস্থিত ছিলেন ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি ফজলে ফাহিম। রাজস্ব ব্যবস্থাপনার আধুনিকায়নে গুরুত্ব দিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, এটি বাস্তবায়ন করা সম্ভব হলে জিডিপিতে রাজস্বের অবদান বাড়বে। তবে সরকারী প্রকল্পের ব্যয়ে যে রাজস্ব ছাড় দেয়া হয়, তা হিসাবভুক্ত হলে রাজস্বের পরিমাণ আরও বেশি দেখা যাবে উল্লেখ করে অর্থমন্ত্রী এসব ছাড়ের আলাদা হিসাব রাখার ওপর গুরুত্ব দেন। তিনি বলেন, গত পাঁচ বছরে ১৪ থেকে ১৫ শতাংশ হারে রাজস্ব আদায় বেড়েছে। এটি আরও ১০ শতাংশ হারে বাড়ানো যায়। তবে আমদানিকৃত পণ্য

সঠিকভাবে পরীক্ষা করতে না পারার বিষয়টি উল্লেখ করে অর্থমন্ত্রী পরীক্ষা বাড়ানোর জন্য আরও বেশি মেশিন (স্ক্যনার) বসানো হবে বলে জানান। একই সঙ্গে দেশের সব শুল্ক স্টেশনে একটি সমন্বিত ব্যবস্থা চালু করার ওপরও গুরুত্ব দেন। আলোচনায় অংশ নিয়ে এনবিআর চেয়ারম্যান দুই লাখ টাকার ওপরে শুল্ককর ইপেমেন্টের মাধ্যমে পরিশোধ বাধ্যতামূলক করার তথ্য জানিয়ে বলেন, এ লক্ষ্যে সফটওয়্যার তৈরি হয়ে গেছে। আগামী ১ এপ্রিল থেকে কমলাপুর আইসিডি কাস্টম হাউসে এটি শুরু হচ্ছে। দেশব্যাপী শুরু হবে জুলাই থেকে। এছাড়া স্ক্যানার কেনার কাজ চলছে। এটি দ্রুত বাস্তবায়ন করা হলে পণ্য খালাসে গতি বাড়বে। অনুষ্ঠানে রাজস্ব আদায়ে বিশেষ অবদান রাখায় তিনটি প্রতিষ্ঠান ও করোনায় মারা যাওয়া এনবিআর

কর্মকর্তাদের ডব্লিওসিও মেরিট অব মেরিট প্রদান করা হয়। রাজস্ব আদায়ে অবদান রাখায় ‘ওয়ার্ল্ড কাস্টমস অর্গানাইজেশন সার্টিফিকেট অব মেরিট এ্যাওয়ার্ড’ পেয়েছেন ১৭ ব্যক্তি ও তিন প্রতিষ্ঠান। মঙ্গলবার আন্তর্জাতিক কাস্টমস দিবস উপলক্ষে আয়োজিত সেমিনারে এ পুরস্কার দেয়া হয়। পুরস্কার পাওয়াদের মধ্যে সাত জন করোনায় মারা গেছেন। তারা হলেন- রাজস্ব কর্মকর্তা মোঃ ইদ্রিস আলী মণ্ডল, মোাঃ রহমত আলী, জসিম উদ্দিন মজুমদার, আনোয়ার জাবেদ, মোঃ কবির হোসেন সিকদার, সুকানী মোঃ কায়কোবাদ ও খোরশেদ আলম। পুরস্কার পাওয়া বাকি ১০ কর্মকর্তা হলেন- কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট আপীল কমিশনারেটের ঢাকা-২ এর কমিশনার কাজী মোস্তাফিজুর রহমান; ঢাকা কাস্টমস হাউসের কমিশনার মোঃ মোয়াজ্জেম হোসেন; কাস্টম গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক

মোহাম্মদ নেয়াজুর রহমান; এনবিআরের প্রথম সচিব এ এম নুরুল হুদী আজাদ; সিনিয়র সিস্টেম এনালিস্ট এ কে এম জাহিদ হোসেন; ঢাকা উত্তর কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেটের উপকমিশনার এবিলিন সাংমা; সিলেট কাস্টমসের রাজস্ব কর্মকর্তা মোঃ সামসাদ হোসেন; ঢাকা কাস্টম হাউসের সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা মোঃ শফিকুল ইসলাম; কমলাপুর আইসিডির কাস্টম হাউসের সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা মোঃ ইয়াকুত জাহিদ ও চট্টগ্রাম কাস্টম হাউসের সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা মোঃ আতিকুর রহমান। পুরস্কার পাওয়া প্রতিষ্ঠান তিনটি হলো- বাংলাদেশ মেডিক্যাল এ্যাসোসিয়েশন, চট্টগ্রাম কাস্টম হাউস ও ঢাকা কাস্টম হাউস।

শেয়ারবাজার নিউজ/মি

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.