আজ: মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪ইং, ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১১ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

২৩ জুন ২০২২, বৃহস্পতিবার |

kidarkar

পাকিস্তানকে ২৩০ কোটি ডলার দিচ্ছে চীন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:পাকিস্তানে অর্থনৈতিক সংকট বাড়ছে। দক্ষিণ এশিয়ার এই দেশটিতে ক্রমেই কমছে রিজার্ভ, কমছে নিজস্ব মুদ্রার মানও। এই পরিস্থিতিতে অর্থনীতি বাঁচাতে ইসলামাবাদকে ২৩০ কোটি মার্কিন ডলার দিচ্ছে চীন।

মূলত ঋণ চুক্তির অধীনে ‘কয়েক দিনের মধ্যে’ চীনের কাছ থেকে বিপুল এই অর্থ হাতে পাবে পাকিস্তান। বৃহস্পতিবার (২৩ জুন) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে ভারতীয় বার্তাসংস্থা এএনআই।

পাকিস্তানের প্রধান সারির সংবাদমাধ্যম দ্য ডনের বরাত দিয়ে ভারতীয় এই বার্তাসংস্থাটি জানিয়েছে,  চীনের একাধিক ব্যাংকের কনসোর্টিয়াম এবং পাকিস্তান আগেই ২.৩ বিলিয়ন বা ২৩০ কোটি মার্কিন ডলারের একটি ঋণ সুবিধা চুক্তি স্বাক্ষর করেছিল। চুক্তির সর্বশেষ আপডেটে বুধবার পাকিস্তানের অর্থমন্ত্রী মিফতাহ ইসমাইল বলেছেন, ঋণ চুক্তির অধীনে চীন থেকে নগদ এই অর্থপ্রবাহ কয়েক দিনের মধ্যেই চলে আসবে বলে প্রত্যাশা করা হচ্ছে।

টুইটারে দেওয়া এক বার্তায় মিফতাহ ইসমাইল বলেছেন, ‘চীনা ব্যাংকের কনসোর্টিয়াম আজকে ১৫০০ কোটি আরএমবি (চীনা মুদ্রা) ঋণ সুবিধা চুক্তি স্বাক্ষর করেছে। পাকিস্তান এই স্বাক্ষর করেছে গতকাল। কয়েকদিনের মধ্যেই নগদ অর্থ চলে আসবে বলে আশা করা হচ্ছে। এই লেনদেন সহজতর করার জন্য আমরা চীনা সরকারকে ধন্যবাদ জানাই।’

পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারি সোশ্যাল মিডিয়ায় লিখেছেন, ‘প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই এবং চীনের জনগণের প্রতি (পাকিস্তান) কৃতজ্ঞ। চীনা কনসোর্টিয়াম অব ব্যাংক আজ ১৫০০ কোটি আরএমবি ঋণ সুবিধা চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছে। চীন হলো আমাদের সব সময়ের বন্ধু এবং যেকোনো পরিস্থিতিতে অব্যাহত সমর্থনের জন্য পাকিস্তানের জনগণ কৃতজ্ঞ।

পাকিস্তানের বিদেশি মুদ্রার রিজার্ভের অবস্থা খুবই খারাপ জায়গায় এসে পৌঁছেছে। পাকিস্তানের মুদ্রার মূল্যও ভয়ংকরভাবে কমে গেছে। এই সংকট থেকে উদ্ধার করতে চীনের একাধিক ব্যাংকের কনসোর্টিয়াম ইসলামাবাদকে ২৩০ কোটি মার্কিন ডলার দিচ্ছে।

সংবাদমাধ্যম বলছে, গত ১০ জুনের হিসেব অনুযায়ী, পাকিস্তানের স্টেট ব্যাংকের কাছে ৯০০ কোটি মার্কিন ডলার আছে, তা দিয়ে মাত্র ছয় সপ্তাহের আমদানির খরচ মেটানো সম্ভব। তাই চীনের থেকে ২৩০ কোটি ডলার পাওয়া পাকিস্তানের জন্য খুবই প্রয়োজন ছিল।

এদিকে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) সঙ্গেও পাকিস্তানের আলোচনা চলছে। তারা যাতে আগের মতো এক্সটেন্ডেড ফান্ড ফেসিলিটি দেয় তা নিয়ে আলোচনা অনেকদূর এগিয়েছে।

বুধবার রাতে আইএমএফ ও পাকিস্তান ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেট নিয়ে একটি সমঝোতায় পৌঁছেছে। সেখানে কীভাবে খরচ কমানো হবে এবং আয় বাড়ানো হবে, তা নিয়ে মতৈক্যে পৌঁছেছে উভয় পক্ষই।

দ্য ডন জানিয়েছে, সমঝোতা অনুযায়ী প্রতি মাসে পাঁচ রুপি করে পেট্রোলিয়াম লেভি বসানো হবে। ১০ মাস লেভি বসবে। কর আদায়ের টার্গেট করা হয়েছে ৪২ হাজার ২০০ কোটি রুপি। সংস্থাগুলোকে পভার্টি ট্যাক্স দিতে হবে। অতিরিক্ত বেতন ও পেনশনের জন্য যে তহবিল রাখা হয়েছিল, সেটাও বন্ধ করা হবে।

সূত্র: এএনআই, ডয়চে ভেলে

শেয়ারবাজার নিউজ/খা.হা.

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.