আজ: শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪ইং, ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ৬ই জিলহজ, ১৪৪৫ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

০৭ জুলাই ২০২২, বৃহস্পতিবার |

kidarkar

এবার গমের আটা রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা ভারতের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:ইউক্রেন যুদ্ধের জেরে টালমাটাল বৈশ্বিক পরিস্থিতিতে এবার গমের আটা এবং সুজির মতো খাদ্যপণ্যের রপ্তানি নিষিদ্ধ করছে ভারত। দেশটির সরকারের এক বিজ্ঞপ্তিতে গমের আটার রপ্তানি নীতি পরিবর্তন এবং এই খাদ্যপণ্য রপ্তানির আগে কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে ব্যবসায়ীদের অনুমতি নিশ্চিত করতে বলা হয়েছে।

তীব্র তাপদাহের কারণে উৎপাদন হ্রাস এবং অভ্যন্তরীণ বাজারে দাম রেকর্ড উচ্চতায় পৌঁছানোয় গত মে মাসের মাঝের দিকে গম রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে ভারত। দেশটির ব্যবসায়ীরা গমের আটা, সুজির মতো পণ্যও রপ্তানি নিষেধাজ্ঞার আওতায় আসতে পারে আশঙ্কায় এসব খাদ্যপণ্যের রপ্তানি বৃদ্ধি করে। যে কারণে দেশটির সরকার গম এবং গমের তৈরি আটা, সুজির রপ্তানি নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

বুধবার ভারতের ডিরেক্টরেট জেনারেল অব ফরেন ট্রেডের (ডিজিএফটি) জারি করা বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ইতোমধ্যে চালানের জন্য লোড করা অথবা শুল্ক পরিশোধ করা আটা এবং সুজি ৬ থেকে ১২ জুলাইয়ের মধ্যে রপ্তানির অনুমতি দেওয়া হবে। তবে ১২ জুলাই থেকে এসব খাদ্যপণ্য রপ্তানির ওপর নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হবে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়েছে, গম ও গমের আটার বৈশ্বিক সরবরাহে বিঘ্ন ঘটায় নতুন নতুন বিক্রেতা তৈরি হয়েছে এবং দামের ওঠানামা ও পণ্যের মান সম্পর্কিত সমস্যা দেখা দিয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে ভারত থেকে গমের আটা রপ্তানির গুণমান বজায় রাখা অপরিহার্য।

দেশটির সরকারের নতুন এই আদেশে বলা হয়েছে, গমের আটা ও গম থেকে প্রাপ্ত অন্যান্য পণ্যের রপ্তানি ‘অবাধ’ থাকবে, তবে সেজন্য আন্তঃমন্ত্রণালয় প্যানেলের কাছ থেকে অনুমোদন নিতে হবে।

দক্ষিণ এশিয়ার ঝুঁকিপূর্ণ অর্থনীতির বিভিন্ন দেশ এবং নিজেদের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য গত ১৩ মে গম রপ্তানিতে বিধিনিষেধ আরোপ করে বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম গমের উৎপাদনকারী ভারত। কিন্তু দেশটির বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা বলেছেন, ব্যবসায়ীরা কোনও বিধিনিষেধ ছাড়াই গম থেকে তৈরিকৃত খাদ্যপণ্য রপ্তানি করে আসছেন।

গত ফেব্রুয়ারিতে ভারতের সরকার চলতি বছরে রেকর্ড ১১১ মিলিয়ন টন গম উৎপাদনের পূর্বাভাস দিয়েছিল। সরকারের এই পূর্বাভাসের পর বিশাল পরিমাণ গম রপ্তানির আশা করা হয়েছিল। কিন্তু গত মার্চ-এপ্রিলের দিকে দেশটিতে তীব্র তাপদাহ বয়ে যায়। যে কারণে শীতকালীন প্রধান এই খাদ্যশস্যের উৎপাদনের পূর্বাভাস ৫ শতাংশ হ্রাস করতে বাধ্য হয় দেশটির সরকার।

গত ফেব্রুয়ারিতে ইউক্রেনে রাশিয়ার আগ্রাসনের পর বিশ্বজুড়ে গমের দাম প্রায় দ্বিগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। বিশ্বের অনেক আমদানিকারক দেশ এই খাদ্যশস্যের তীব্র ঘাটতির মুখোমুখি হয়েছে।

সূত্র: রয়টার্স, এএনআই।

 

শেয়ারবাজার নিউজ/খা.হা.

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.