আজ: শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ইং, ১১ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ১২ই শাবান, ১৪৪৫ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

০১ সেপ্টেম্বর ২০২২, বৃহস্পতিবার |

kidarkar

বছরের ব্যবধানে প্রবাসী আয় বেড়েছে সাড়ে ১২ শতাংশ

নিজস্ব প্রতিবেদক: চলতি বছরের আগস্ট মাসে ২০৩ কো‌টি ৮০ লাখ মার্কিন ডলারের রেমিট্যান্স এসেছে দেশে। দেশীয় মুদ্রায় (প্র‌তি ডলার ৯৫ টাকা ধ‌রে) যার পরিমাণ ১৯ হাজার ৩৬১ কোটি টাকা। যা গত বছরের (২০২১) আগস্ট মাসের চেয়ে ১২ দশমিক ৬ শতাংশ বেশি। কারণ গত বছরের একই সময়ে এসেছিলো ১৮১ কোটি টাকা। বৃহস্পতিবার (১ সেপ্টেম্বর) বাংলাদেশ ব্যাংক রেমিট্যান্স সংক্রান্ত সবশেষ প্রতিবেদনে সূত্রে এ তথ্য উঠেছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কর্মকর্তারা বলছেন, সরকারের নানা সুবিধা থাকায় গত বছরের একইসময়ের চেয়ে সদ্য বিদায়ী মাসে রেমিট্যান্স বেড়েছে। আগামীতে আরও বেশি আসবে, ডলার সংকটও কেটে যাবে। প্রণোদনা সুবিধা থাকায় এখন হুন্ডির মাধ্যমে টাকা আসার প্রবনতাও কমে আসবে বলে আশা করা হচ্ছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্যমতে, চলতি বছরের সদ্য বিদায়ী মাস আগস্টে ২০৩ কোটি ৮০ লাখ ডলারের (২০৩৮ মিলিয়ন ডলার) রেমিটেন্স এসেছে। গত বছরের আগস্ট-এ এসেছিলো ১৮১ কোটি ডলার (১৮১০ মিলিয়ন ডলার)। সে হিসাবে গত বছরের একই সময়ের ব্যবধানে রেমিটেন্স বেড়েছে ১২.৬ শতাংশ। চলতি বছরের জুলাই মাসে এসেছিল ২০৯ কোটি ডলারের রেমিট্যান্স। সে হিসাবে জুলাই অপেক্ষা আগস্টে প্রায় ৬ কোটি ডলারের রেমিট্যান্স কম কমেছে।

হিসাব বলছে ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে জুলাই ও আগস্টে মোট রেমিট্যান্স এসেছে ৪১৩ কোটি ৪০ লাখ ডলারের। যা তার আগের অর্থবছরের (২০২১-২২) চেয়ে ১২ দশমিক ৩ শতাংশ বেশি। ২০২১-২০২২ অর্থবছরের জুলাই ও আগস্ট মাসে রেমিট্যান্স এসেছিলো ৩৬৮ কোটি ২০ লাখ ডলার।

চলতি মাসে সবচেয়ে বেশি রেমিট্যান্স এসেছে ইসলামী ব্যাংকের মাধ্যমে। এরপর রয়েছে রাষ্ট্র মালিকানাধীন অগ্রণী ব্যাংকের মাধ্যমে। এর পরেই রয়েছে ডাচ–বাংলা ব্যাংক, রূপালী ব্যাংকে মাধ্যমে। তবে বিদেশি ব্যাংক আল-ফালাহ, হাবিব ব্যাংক ও ন্যাশনাল ব্যাংক অব পাকিস্তান, স্টেট ব্যাংক অব ইন্ডিয়ার মাধ্যমে কোনো রেমিটেন্স আসেনি।

কেন্দ্রীয় ব্যাং‌কের তথ্য অনুযায়ী, ২০২১-২০২২ অর্থবছরে প্রবাসী বাংলাদেশিরা ব্যাংকিং চ্যানেলের মাধ্যমে মোট ২ হাজার ১০৩ কোটি ১৭ লাখ (২১.৩ বিলিয়ন) মার্কিন ডলারের রেমিট্যান্স দেশে পাঠিয়েছিলেন। যা আগের অর্থবছরের (২০২০-২০২১) চেয়ে ১৫.১১ শতাংশ কম। ২০২০-২১ অর্থবছরে ২ হাজার ৪৭৭ কোটি ৭৭ লাখ (২৪.৭৭ বিলিয়ন) ডলারের রেমিট্যান্স পাঠিয়েছিলেন বিভিন্ন দেশে কর্মকরত প্রবাসী বাংলাদেশিরা।

এদিকে ডলারের দাম কমেছে খোলা বাজার ও এক্সচেঞ্জ হাউসগুলোয়। বৃহস্পতিবার (১ সেপ্টেম্বর) ১০৬ টাকা ৬০ পয়সা থেকে ১০৭ টাকা ২০ পয়সায় এক্সচেঞ্জগুলোতে ডলার বিক্রি হচ্ছে। আর খোলাবাজারে ডলার বিক্রি হচ্ছে ১০৮ থেকে ১০৯ টাকা ৫০ পয়সায়। আর আন্তঃব্যাংকে ৯৫ টাকা (কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ওয়েবসাইট) দাম রয়েছে।

১ টি মতামত “বছরের ব্যবধানে প্রবাসী আয় বেড়েছে সাড়ে ১২ শতাংশ”

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.