আজ: রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ইং, ১৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৯ই জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

১৭ নভেম্বর ২০২২, বৃহস্পতিবার |


kidarkar

বেড়েছে আমদানি ব্যয়, লোকসানে এসিআই


শাহ আলম নূর : নিয়মিত মুনাফা করা এবং শেয়াহোল্ডারদের মোটা অংকের লভ্যাংশ দেয়া ওষুধ ও রসায়ন খাতের প্রতিষ্ঠান অ্যাডভান্স কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রি লিমিটেড এসিআই লিমিটেড এবার লোকসানের কবলে পড়েছে।

চলমান সামষ্টিক অর্থনৈতিক প্রভার পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত প্রতিষ্ঠান অ্যাডভান্স কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রি লিমিটেড (এসিআই) উপর ছায়া ফেলেছে। একটি সর্বজনীনভাবে ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান এসিআই ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম ত্রৈমাসিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) ১৮.৬ কোটি টাকার নিট লোকসান করেছে৷

তবে তালিকাভুক্ত জায়ান্ট কোম্পানিটি আগের অর্থবছরের একই সময় জুলাই-সেপ্টেম্বর মাসে মুনাফা করেছিল ৩০.১২ কোটি টাকা। প্রতিষ্ঠানটির আর্থিক চিত্র দেখলে বোঝা যায় আর্থিক মন্দার প্রভাব ভাল ভাবে লেগেছে। এতে কোম্পানিটি সর্বশেষ ত্রৈমাসিকে তার ব্যবসায়িক অগ্রগতিতে একটি বিশাল আঘাতের সম্মুখীন হয়েছে।
ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) ওয়েবসাইটে পোস্ট করা একটি ফাইলিং অনুসারে দেখা যায় মার্কিন ডলারের বিপরীতে টাকার অবমূল্যায়নের কারণে আমদানি ব্যয় অনেক বৃদ্ধির পেয়েছে। ফলে চলতি অর্থবছরের জুলাই-সেপ্টেম্বর মাসে এর একীভূত মুনাফা হ্রাস পেয়েছে।
তবে ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানটির চলতি অর্থবছরের প্রথম ত্রৈমাসিকে উল্লেখযোগ্য পরিমান আয় প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছে। এসময়ে তাদের বিক্রয় বিক্রয় বৃদ্ধি পাওয়াকে আয় বৃদ্ধির মুল কারন বলে মনে করা হচ্ছে।

১৯৭৩ সাল থেকে এসটিআই লি: ফার্মাসিউটিক্যালস, ভোগ্য পণ্য, কৃষিপণ্য এবং খুচরা চেইন সোপ’র ব্যবসা পরিচালনা করে আসছে।

ওষুধ ও কৃষি প্রক্রিয়াজাত-শিল্পের রাসায়নিক দ্রব্য তৈরি করলেও এসিআই এখন একটি পরিপূর্ণ গ্রুপ হিসেবে ব্যবসা করছে। এখন ফার্মাসিউটিক্যালস কিংবা অ্যাগ্রোকেমিক্যালসে ব্যবসা সীমাবদ্ধ নেই। ওষুধ, ভোগ্যপণ্য, কৃষি প্রক্রিয়াজাত ও প্রযুক্তিসহ নানা ক্ষেত্রে ব্যবসা সম্প্রসারণ করা হয়েছে। শুরুতে কৃষকের চাহিদা বিবেচনায় সার উৎপাদনে বিনিয়োগ করে এসিআই। এরপর মাটির পুষ্টি রক্ষা, অ্যাগ্রোনোমিক প্র্যাকটিস ট্রেনিং, সময়মতো ফসল বাজারজাতকরণ ও বাজার সম্ভাবনা বিবেচনায় নিয়ে এসিআইকে নানা খাতে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

এসিআই’র আরেক সহযোগী প্রতিষ্ঠান এসিআই লজিস্টিকস। বাংলাদেশে সুপারশপ ব্যবসায় এক দশকের পথচলায় ব্র্যান্ড হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে ‘স্বপ্ন’। ২০০৮ সালে পথচলার শুরুর পর বর্তমানে ‘স্বপ্ন’র ২০০টিরও বেশি আউটলেট রয়েছে। ব্র্যান্ড ভ্যালুকে পুঁজি করেই আজকের এ অবস্থানে এসেছে প্রতিষ্ঠানটি। ক্রেতা ও টার্নওভারে দেশের সুপারশপগুলোর মধ্যে ‘স্বপ্ন’ শীর্ষ অবস্থানে রয়েছে। দৈনিক প্রায় ৪৫ হাজারের বেশি গ্রাহককে সেবা দেওয়া প্রতিষ্ঠানটি চার হাজারের বেশি কর্মীর ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় এগিয়ে চলেছে।
পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত প্রতিষ্ঠান অ্যাডভান্স কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রি লিমিটেড (এসিআই) গত ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২২ তারিখে সমাপ্ত প্রথম প্রান্তিকের (জুলাই’২২-সেপ্টেম্বর’২২) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। আলোচিত প্রান্তিকে সমন্বিতভাবে কোম্পানিটি লোকসান দিয়েছে।

চলতি হিসাববছরের প্রথম প্রান্তিকে সমন্বিতভাবে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি ৩ টাকা ৯৪ পয়সা লোকসান হয়েছে। গত বছর একই সময়ে সমন্বিতভাবে শেয়ার প্রতি ৩ টাকা ৪২ পয়সা আয় হয়েছিল। গত ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২২ তারিখে কোম্পানিটির সমন্বিত শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ১৩৭ টাকা ৬০ পয়সা।
কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদ ২০২১-২২ এর জন্য ৫০ শতাংশ নগদ এবং ৫ শতাংশ স্টক লভ্যাংশের সুপারিশ করেছে যা আগের অর্থবছরের জন্য ৬৫ শতাংশ নগদ এবং ১৫ শতাংশ স্টক ছিল৷

১৯৭৬ সালে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে তালিকাভুক্ত, ফার্মা সেক্টর কোম্পানিটি ডিএসইতে ‘এ’ ক্যাটাগরির অন্তর্গত। এর পরিশোধিত মূলধন রয়েছে ৭২ কোটি টাকা। সোমবার ডিএসই ট্রেডিং ফ্লোরে এসিআই শেয়ার প্রতি শেয়ার ২৭৩.২ টাকায় লেনদেন হয়েছে।

ইবিএল সিকিউরিটিজের বিশ্লেষণ অনুসারে, স্টক ব্রোকার, ফার্মা, মোটর, খুচরা চেইন এবং খাদ্য বিভাগগুলি জুলাই-সেপ্টেম্বর মাসে মোট আয়ে যথাক্রমে ১৮.৭ শতাংশ, ১৭.৪ শতাংশ, ১৩.৯ শতাংশ এবং ৮.৬ শতাংশ অবদান রেখেছে।

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানি এডভান্স ক্যামিকেলস ইন্ডাস্ট্রিজ (এসিআই) লিমিটেডের সহযোগী প্রতিষ্ঠান এসিআই হেলথকেয়ার লিমিটেডের একটি ওষুধ যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে বিক্রি করার অনুমতি মিলেছে।
সাম্প্রতিক সময় যুক্তরাষ্ট্রের খাদ্য ও ওষুধ প্রশাসন (Food and Drug Administration-FDA) বিষয়টি নিশ্চিত করে কোম্পানিটিকে চিঠি দিয়েছে।

জানা যায়, এসিআই হেলথকেয়ার লিমিটেডের গ্যাবাপেনটিন (Gabapentin) নামের ওষুধ যুক্তরাষ্ট্রে রপ্তানির অনুমতি দিয়েছে এফডিএ। নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে অবস্থিত এসিআই হেলথকেয়ার লিমিটেডের কারখানায় উৎপাদিত গ্যাবাপেনটিন দেশটির বাজারে রপ্তানি হবে।

এসিআই সূত্রে জানা গেছে, সোনারগাঁওয়ে অবস্থিত এসিআই হেলথকেয়ার লিমিটেডের কারখানাটি মূলত রপ্তানিমুখী কারখানা। মূলত ওষুধের আন্তর্জাতিক বাজারের বিশাল সম্ভাবনাকে কাজে লাগানোর উদ্দেশ্যে এই কারখানা স্থাপন করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, ৪৯ কোটি ৮৮ লাখ টাকার পরিশোধিত মূলধনের এ কোম্পানিটি পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয় ১৯৭৬ সালে। প্রতিষ্ঠানটির মোট শেয়ার সংখ্যা ৪ কোটি ৯৮ লাখ ৮৯ হাজার ৫২৭টি। এর মধ্যে ৪৫ দশমিক ৪৯ শতাংশ শেয়ার রয়েছে উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের হাতে। বাকি শেয়ারের মধ্যে ২৫ দশমিক ৩৮ শতাংশ রয়েছে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছে। আর প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছে আছে ২৯ দশমিক ১৩ শতাংশ শেয়ার।


১ টি মতামত “বেড়েছে আমদানি ব্যয়, লোকসানে এসিআই”

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.