আজ: সোমবার, ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ইং, ২৩শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৩ই রজব, ১৪৪৪ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

১৭ নভেম্বর ২০২২, বৃহস্পতিবার |


kidarkar

জলবায়ু সম্মেলন

অর্থায়নের পরিবর্তে বীমা প্রকল্প, প্রাথমিক সুবিধায় বাংলাদেশ


ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক: জি-৭ নেতৃস্থানীয় অর্থনীতির জোট জলবায়ু পরিবর্তনজনিত কারণে ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোর জন্য গ্লোবাল শিল্ড নামে ২০ কোটি মার্কিন ডলার সহায়তা প্রকল্প চালু করেছে। গত সোমবার (১৪ নভেম্বর) মিসরে চলমান জলবায়ু সম্মেলনে (কপ২৭) এ প্রকল্প গঠন করা হয়। ফাইন্যান্স এন্ড কমার্স এ খবর দিয়েছে।

জলবায়ু পরিবর্তনজনিত কারণে ক্ষতিগ্রস্ত ৫৮টি দেশের স্বার্থ রক্ষাকারী জোট ভি২০ ক্ষতিপূরণ দাবি করার পরিপ্রেক্ষিতে ‘গ্লোবাল শিল্ড এগেইনষ্ট ক্লাইমেট রিস্কস’ শীর্ষক এ সহায়তা প্রকল্প চালু করা হয়।

এই প্রকল্পের সহায়তা প্রাপ্ত দেশগুলোর মধ্যে প্রাথমিক তালিকায় বাংলাদেশ অন্যতম একটি দেশ। বাংলাদেশ ছাড়াও এ তালিকায় দক্ষিণ এশিয়ার আরেক দেশ পাকিস্তানও রয়েছে। এছাড়াও প্রাথমিক তালিকায় রয়েছে কোস্টারিকা, ফিজি, ঘানা,ফিলিপাইন এবং সেনেগাল।

সম্মেলনে বলা হচ্ছে, জলবায়ু বিপর্যয়ের সময় দ্রুত সহযোগিতার জন্য পূর্বপরিকল্পিত অর্থ সহায়তার লক্ষ্যে বীমা প্রকল্পের মতো এই উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

এই প্রকল্পের সমালোচকেরা বলেন, ধীরগতির জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবগুলোকে বীমা কভার করে না। যেমন সমুদ্রের ক্রমবর্ধমান বা আবাদযোগ্য জমির ধীরগতির ক্ষতি বা এটি ঐতিহাসিক ক্ষতির জন্য দায়ী নয়। গত ২০ বছরে ভি২০ জোটের দেশগুলো জলবায়ু পরিবর্তন-সম্পর্কিত বিষয়ে তাদের জিডিপিতে ৫২৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার হারিয়েছে বলে অনুমান করা হচ্ছে।

এই বিষয়ে ঘানার অর্থমন্ত্রী এবং ভি২০ জোটের প্রধান কেন ওফোরি-আত্তা বলেন, এখানে এই প্রশ্নটি নেই যে ক্ষয়ক্ষতির জন্য কে অর্থায়ন করবে। কারণ এখানে আমরা সবাই অর্থ দিচ্ছি।

জার্মানির অর্থ ব্যবস্থাপনায় ডেনমার্ক সক্রিয়ভাবে সহযোগিতা করবে এই প্রকল্পে। এই সহায়তার মাধ্যমে অতি ঝুঁকিপূর্ণ ২০ দেশের জন্য রেখে নতুন সুরক্ষা প্রকল্প প্রতিষ্ঠা করা হবে। এই গ্লোবাল শিল্ড ঘোষণার মাধ্যমে উন্নত দেশগুলো ক্ষতিগ্রস্থদেশগুলোর জন্য কিছু করার বিষয়টি স্বীকার করে নিয়েছে যা একটি ভালো লক্ষণ বলে মন্তব্য করেছেন অ্যাকশন এইড ইন্টারন্যাশনালের গ্লোবাল লিড অন ক্লাইমেট জাস্টিসের তেরেস এন্ডারসন। তিনি বলেন, চলমান সম্মেলনে উন্নত দেশগুলোর উপর ক্ষয়ক্ষতির জন্য ক্ষতিগ্রস্থ দেশগুলোর অর্থায়নের চাপ রয়েছে, যাতে দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলো চাপ কাটিয়ে উঠতে পারে।

সিভিল সোসাইটি গ্রুপ এবং সাহায্য সংস্থাগুলোও সতর্ক করছে যে বীমা প্রকল্পটি তাদের গ্রিনহাউস গ্যাসের কারণে ক্ষতি এবং ক্ষতির জন্য বড় দূষণকারীদের অর্থ প্রদানের বিস্তৃত প্রচেষ্টা থেকে বিভ্রান্ত করার জন্য ব্যবহার করা উচিত নয়। দুর্বল দেশগুলো দীর্ঘদিন ধরে জলবায়ু-সম্পর্কিত ক্ষতির জন্য ক্ষতিপূরণের আহ্বান জানিয়ে আসছে। যে অর্থ এখানে সহায়তা দেয়া হচ্ছে তা প্রকৃত ক্ষতির তুলনায় অনেক কম বলে তিনি মন্তব্য করেন।

পরিবেশগত গ্রুপ ক্লাইমেট অ্যাকশন নেটওয়ার্ক ইউরোপের যার্চেল সাইমন বলেন, আমাদের ক্ষতির মাত্রায় একটি সমাধান দরকার এবং এর অর্থ ভর্তুকিযুক্ত বীমার বাইরে যাওয়া।

তিনি আরো বলেন, যথাযথ আন্তর্জাতিক তত্ত্বাবধান নিশ্চিত করতে জাতিসংঘের জলবায়ু আলোচনার তত্ত্বাবধানে নতুন তহবিল তৈরি করা উচিত, সাইডলাইনে নয়। ক্ষতি এবং ক্ষতির অর্থায়ন ঋণের বিপরীতে অনুদানের আকারে হওয়া দরকার যা দরিদ্র এবং উন্নয়নশীল দেশগুলোকে ঋণ-দুর্দশার থেকে ফিরে আনবে।

জি-৭ পক্ষে কথা বলতে গিয়ে জার্মানির উন্নয়নমন্ত্রী সভেনজা শুল্জে বলেন, প্রকল্পটি দুর্বল দেশগুলোর জন্য আরও ব্যাপক অর্থায়ন যোগাতে চালাকি বা কৌশল নয়, যা চলমান আলোচনায় একটি মূল সমস্যা হিসাবে রয়ে গেছে। আর এটি অবশ্যই একমাত্র সামাধান নয়।


আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.