আজ: সোমবার, ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ইং, ২৩শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৩ই রজব, ১৪৪৪ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

১৩ ডিসেম্বর ২০২২, মঙ্গলবার |


kidarkar

মূলধন ঘাটতিতে পড়েছে ১১টি ব্যাংক


শাহ আলম নূর : দেশের ১১ ব্যাংক সম্মিলিতভাবে সেপ্টেম্বরে ৩২,৬০৬ কোটি টাকার মূলধন ঘাটতির মুখোমুখি হয়েছিল, যা বছরের পর বছর ধরে চলা অনিয়মের কারণে তাদের ভঙ্গুর অর্থনৈতিক অবস্থাকে তুলে ধরে।
মুলধন ঘাটতিতে থাকা ব্যাংকগুলো মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক, অগ্রণী ব্যাংক, রূপালী, জনতা, সোনালী, রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক, বেসিক ব্যাংক, ন্যাশনাল ব্যাংক, আইসিবি ইসলামিক ব্যাংক, বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংক এবং পদ্মা ব্যাংক।
সংশ্লিষ্ঠরা মনে করছেন দুর্নীতি প্রধানত ব্যাংকগুলিতে সংঘটিত বড় মূলধন ঘাটতির জন্য দায়ী।
বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্যে দেখা যায় সেপ্টেম্বর পর্যন্ত, ১১টি ঋণদাতার মধ্যে বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের সবচেয়ে বেশি ঘাটতি ছিল ১৩,৪৯১ কোটি টাকা ।
রাষ্ট্রায়ত্ত অগ্রণীর ব্যাংকের ঘাটতি দাঁড়িয়েছে ২,৮৫১ কোটি টাকা। রাষ্ট্র পরিচালিত রূপালীর জন্য এটি ছিল ২,৩৯০ কোটি টাকা এবং অন্য একটি সরকারী মালিকানাধীন জনতা ব্যাঙ্কের জন্য মুলধন ঘাটতি ২,৩০০ কোটি টাকা।
বিশ্লেষকরা কেন্দ্রীয় ব্যাংককে সমস্যা সমাধানের জন্য অবিলম্বে ব্যবস্থা নেওয়ার আহ্বান জানান। কারণ এই ধরনের পরিস্থিতি আন্তর্জাতিক পর্যায়ে এবং স্থানীয় ব্যবসায়ীদের কাছে একটি নেতিবাচক সংকেত পাঠায়। বিদেশী ব্যাঙ্কগুলি সাধারণত ঋণদাতার সাথে কোনও ব্যবসা করার আগে তার মূলধনের ভিত্তি দেখেন।
বাংলাদেশের পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর বলেন, “বড় মূলধনের ঘাটতি বিদেশী ব্যাংকগুলোর জন্য একটি নেতিবাচক সংকেত দেয়। তাই দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হচ্ছে।” তিনি আর্থিক দুর্নীতি এবং শ্রেণিবদ্ধ ঋণের উচ্চ অনুপাতকে ঘাটতির জন্য দায়ী করেন।
সেপ্টেম্বরে ব্যাংকিং খাতে খেলাপি ঋণের পরিমাণ উল্লেখযোগ্যভাবে বেড়েছে, যা ব্যাংকিং খাতের মূলধন ভিত্তির ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে।
বাংলাদেশে কর্মরত ৬০টি ব্যাংকের খেলাপি ঋণ সেপ্টেম্বরে রেকর্ড ১৩৪,৩৯৬ কোটি টাকা বেড়ে ১,৪৩৬,২০০ কোটি টাকা হয়েচে। মোট বকেয়া ঋণের ৯.৩৬ শতাংশ খেলাপি হয়েছে। এক বছর আগে খেলাপি ছিল ৮.১২ শতাংশ।
ব্যাংকগুলিকে খেলাপি ঋণের বিপরীতে সমপরিমান প্রভিশনিং রাখতে হয়। উচ্চ প্রভিশন ব্যাংগুলোতে মূলধন’র ভিত্তিকে আঘাত করেছে।
মূলধনের ভিত্তি গত বছরের ডিসেম্বরের তুলনায় সেপ্টেম্বরে হ্রাস পেয়েছে কারণ মূলধন পর্যাপ্ততা অনুপাত (সিএআর) ১১.০৮ শতাংশের বিপরীতে ১১.০১ শতাংশে সঙ্কুচিত হয়েছে।
সিএআর যা মূলধন থেকে ঝুঁকি-ভারযুক্ত সম্পদের অনুপাত নামেও পরিচিত। একটি ব্যাংকের মূলধন এবং সম্পদ ব্যবহার করে তার আর্থিক শক্তি পরিমাপ করে। এটি আমানতকারীদের রক্ষা করতে এবং বিশ্বজুড়ে আর্থিক ব্যবস্থার স্থিতিশীলতা এবং দক্ষতার প্রচার করতে ব্যবহৃত হয়।
বাংলাদেশ ব্যাংকের আর্থিক স্থিতিশীলতা প্রতিবেদন অনুসারে, বাংলাদেশের ব্যাংকিং শিল্পের মূলধনের ভিত্তিও দক্ষিণ এশিয়ার সমকক্ষ দেশগুলির তুলনায় দুর্বল।
২০২১ সালে, পাকিস্তানের ব্যাঙ্কগুলি ১৮.৭ শতাংশের মূলধন পর্যাপ্ততার অনুপাত বজায় রেখেছিল, যেখানে শ্রীলঙ্কায় এটি ছিল ১৬.৫ শতাংশ এবং ভারতে ১৬.৬ শতাংশ।
আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের একজন প্রাক্তন কর্মকর্তা মনসুর বলেন, “যদি কোনো ব্যাংক মূলধনের ঘাটতির সম্মুখীন হয়, তাহলে তার ধাক্কা শোষণ করার ক্ষমতা কমে যায়।” ব্যাংকগুলোর মূলধনের ভিত্তি শক্তিশালী করতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অবিলম্বে ব্যবস্থা নেওয়া উচিত বলে তিনি মনে করেন।
সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের নির্বাহী পরিচালক ফাহমিদা খাতুন বলেন, কেন্দ্রীয় ব্যাংক এর আগে ব্যাংকগুলোতে বিপুল পরিমাণ পুঁজি ঢুকিয়েছিল, কিন্তু উদ্যোগটি সঠিকভাবে কাজ করেনি।
তিনি বলেন, “কর্পোরেট গভর্নেন্সের অভাব হল মূলধনের ঘাটতির প্রধান সমস্যা। যদি কেলেঙ্কারি অব্যাহত থাকে, তাহলে মূলধনের ঘাটতির অবস্থার উন্নতি হবে না।”
মূলধনের ভিত্তি শক্তিশালী করার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক ২০১৯ সালের মধ্যে ব্যাসেল-৩ নির্দেশিকা বাস্তবায়নের উদ্যোগ নিয়েছে।
ব্যাসেল-৩ হল ব্যাঙ্কিং সেক্টরের মধ্যে প্রবিধান, তত্ত্বাবধান, এবং ঝুঁকি ব্যবস্থাপনার উন্নতির জন্য ২০০৭-০৯ সালের বৈশ্বিক আর্থিক সঙ্কটের প্রতিক্রিয়া হিসাবে ব্যাসেল কমিটি অন ব্যাঙ্কিং সুপারভিশন দ্বারা তৈরি করা একটি আন্তর্জাতিকভাবে সম্মত পদক্ষেপ।
২০১৪ সালে বাংলাদেশ ব্যাংক’র উন্মোচিত একটি রোডম্যাপ। ব্যাঙ্কগুলিকে ২০১৯ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে সর্বনিম্ন নিএআর ১০ শতাংশ থেকে ১২.৫ শতাংশে উন্নীত করার কথা ছিল। কিন্তু লক্ষ্য পূরণে পিছিয়ে পড়েছে ব্যাংকিং খাত।


১ টি মতামত “মূলধন ঘাটতিতে পড়েছে ১১টি ব্যাংক”

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.