আজ: শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪ইং, ১৮ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ১৯শে শাবান, ১৪৪৫ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

১৬ জানুয়ারী ২০২৩, সোমবার |

kidarkar

আইএমএফ-এর ৪.৫ বিলিয়ন ডলার ঋণ অনুমোদন হতে পারে ৩০ জানুয়ারি

নিজস্ব প্রতিবেদক : আইএমএফ-এর ৪.৫ বিলিয়ন ডলার ঋণ অনুমোদন হতে পারে ৩০ জানুয়ারি। জানুয়ারি শেষ সপ্তাহে অনুষ্ঠিতব্য আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) নির্বাহী বোর্ডের সভায় বাংলাদেশের ৪.৫ বিলিয়ন ডলারের ঋণ প্রস্তাব অনুমোদন করা হবে বলে আশা করা হচ্ছে।
সোমবার (১৬ জানুয়ারি) এক প্রেস বিবৃতিতে আইএমএফের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক (ডিএমডি) আন্তোয়নেট মনসিও সায়েহ জানিয়েছেন, আইএমএফের নির্বাহী বোর্ড ৩০ জানুয়ারি বাংলাদেশের সাথে ঋণ কর্মসূচির অনুমোদনের বিষয়ে বিবেচনা করবে বলে আশা করা হচ্ছে। আন্তোয়নেট মনসিও সায়েহ বর্তমানে বাংলাদেশে পাঁচ দিনের সফরে রয়েছেন।
কর্তৃপক্ষের স্বদেশী সংস্কার এজেন্ডাকে সমর্থন করার জন্য বাংলাদেশ এবং আইএমএফ সম্প্রতি বর্ধিত ক্রেডিট সুবিধা, বর্ধিত তহবিল সুবিধা এবং আইএমএফ-এর নতুন রেজিলিয়েন্স অ্যান্ড সাস্টেইনেবিলিটি ফ্যাসিলিটি (আরএসএফ) এর অধীনে একটি স্টাফ-লেভেল চুক্তিতে পৌঁছেছে।
তিনি লক্ষ্য করেছেন, সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বাংলাদেশি কর্তৃপক্ষের গৃহীত সামষ্টিক অর্থনৈতিক নীতিগুলো দেশের মুদ্রাস্ফীতি স্থিতিশীল রাখতে, ঋণ থেকে জিডিপি অনুপাত কম রাখতে সাহায্য করেছে।
“আজকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, গতকাল অর্থমন্ত্রী মোস্তফা কামাল এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আবদুর রউফ তালুকদারের সঙ্গে দেখা করার সুযোগ পেয়ে আমি অত্যন্ত আনন্দিত,”
“গত দশকে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি এবং সামাজিক উন্নয়নের জন্য আমি তাদের অভিনন্দন জানাই। দারিদ্র্য হ্রাসে স্থিতিশীল অগ্রগতি এবং জীবনযাত্রার মান উন্নয়নে ভূমিকা রেখেছে এগুলো,” তিনি যোগ করেন।
“বিশ্বের অন্যান্য দেশগুলোর মতো বাংলাদেশও শুরুতে মহামারি, এরপর ইউক্রেনের যুদ্ধের ফলে আসা ধাক্কার প্রভাব মোকাবেলা করছে,”
আইএমএফ ডিএমডি আরও বলেন, “আমরা বাংলাদেশের অর্থনীতিতে এসব ধাক্কার প্রভাব নিয়ে আলোচনা করেছি। এসব বিষয় মোকাবেলা করার জন্য বাংলাদেশের নেওয়া পদক্ষেপকে স্বাগত জানাই আমি।”

তিনি বলেন, “বাংলাদেশ পক্ষের সাথে] আলোচনায় আমরা কর রাজস্ব বাড়ানো এবং আরও দক্ষ আর্থিক খাত গড়ে তোলার দীর্ঘস্থায়ী চ্যালেঞ্জসহ এই কর্মসূচির মূল বিষয়গুলোর উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করেছি।”
“বেসরকারি বিনিয়োগ এবং রপ্তানি বহুমুখীকরণের সুবিধার্থে এইসব বিষয়ের সংস্কার বাংলাদেশের অর্থনীতিকে আরও স্থিতিস্থাপক করে তুলতে এবং দীর্ঘমেয়াদী, অন্তর্ভুক্তিমূলক ও টেকসই প্রবৃদ্ধির অনুকূল পরিস্থিতি তৈরি করতে সহায়তা করবে।”
জলবায়ু পরিবর্তন সংক্রান্ত দীর্ঘমেয়াদী চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় বাংলাদেশের পরিকল্পনার বিষয়ে আলোচনা করা হয়েছে উল্লেখ করে আন্তোয়নেট মনসিও সায়েহ বলেন, “বাংলাদেশের জলবায়ু খাতে বিনিয়োগের চাহিদাকে সমর্থনের জন্য সাশ্রয়ী, দীর্ঘমেয়াদী অর্থায়ন প্রদানের লক্ষ্য রাখে আইএমএফ এর আরএসএফ।”

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.