আজ: মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪ইং, ১৪ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৯শে জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

২৮ জানুয়ারী ২০২৩, শনিবার |

kidarkar

অন্য দেশের হাসিঠাট্টার আচারই এখন দেশের বাস্তবতা (ভিডিও

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ বদলে যাচ্ছে বাজারের ধরণ। দামের ভারে পিষ্ট নগরবাসী কেজি দরের পরিবর্তে এখন পণ্য কিনছেন গ্রাম হিসেবে। সেই হিসেব পেরিয়ে ভাগ করে পণ্য বিক্রি যেন নতুন মাত্রা। একসময় যা ছিলো চিন্তার বাইরে, অর্থের ওজনে তা আজ নিম্নবিত্তের প্রাত্যহিক বিষয়। মুখ লুকিয়ে আসছেন মধ্যবিত্তরাও।

এই যেমন, সময়ের সাথে চরিত্র পাল্টে গেছে ঢাকার বুড়িগঙ্গা পাড়ের পাইকারি পণ্যের বড় বাজার শ্যামবাজার। সম্প্রতি এখানে পাইকারি দামে পণ্য তো মেলেই না উল্টো জিনিসপত্রের দাম কয়েকগুণ বেড়েছে যাওয়ায় কেনাকাটার পরিমাণ কিলো থেকে নেমেছে গ্রামে।

কেবল তাই নয়, ব্রিটিশ আমলের মেট্রিক পদ্ধতিও এখন গিয়ে দখল করেছে বাঙালির ভাগা ব্যবস্থায়। অন্য দেশের এ আচারে যেখানে হাসিঠাট্টা হতো এখন দেশেই তা বাস্তবতা।

ক্রেতারা বলছেন, কেজিতে কেনা ক্ষমতা নেই, তাই আস্থা ভাগা ব্যবস্থায়। তাইতো, রোকেয়া কিংবা পেয়ারা বেগমের কাছে ধীরে ধীরে বাড়ছে মানুষের ভিড়। ১০ কিংবা ২০ টাকার ভাগে ভাগ বসাচ্ছেন মধ্যবিত্তরাও। তারা জানান, সংসারে তো খরচ কখনও কমে না, সেই সঙ্গে বাড়ছে জিনিসপত্রের দাম। তাই ১০-২০টাকার ভাগা ধরেই এখন কিনতে হচ্ছে বাজার থেকে।

সংসারের হিসাবটুকু ক্রেতা-বিক্রেতার কারোরই মেলেনা। তাই যে যেভাবে পারছেন চালিয়ে যাচ্ছেন টিকে থাকার সংগ্রাম। তারা বলেন, আমরা হইছি গরীব, আমরা না পারি খয়রাত করতে না পারি চাইয়া খাইতে। অন্য বাজারে কিনতে গেলে আরও দাম বেশি। কমদামে এখানে পাই তাই এখানে আসি।

সীমিত আয়ের এই মানুষগুলোর কাছে যাদুর শহরটা দিনে দিনে যেন আরও নিষ্ঠুর হয়ে উঠছে।

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.