আজ: শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ইং, ১১ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ১২ই শাবান, ১৪৪৫ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

২২ অগাস্ট ২০১৫, শনিবার |

kidarkar

শ্রেষ্ঠত্ব লড়াইয়ে মুখোমুখি বোল্ট-গ্যাটলিন

Bolt_Gatlin_innerশেয়ারবাজার ডেস্ক: ২০০৮ সালে বেইজিং অলিম্পিকে তিনটি সোনা জিতে হৈচৈ ফেলে দিয়েছিলেন উসাইন বোল্ট। সাত বছর পর সেই বেইজিংয়েই শ্রেষ্ঠত্বের লড়াইয়ে নামতে যাচ্ছেন জ্যামাইকার গতি-তারকা।

শনিবার থেকে চীনের রাজধানীতে শুরু হতে যাওয়া বিশ্ব অ্যাথলেটিকস চ্যাম্পিয়নশিপে বিশ্বের দ্রুততম মানবের সবচেয়ে বড় প্রতিদ্বন্দ্বী ডোপিংয়ের দায়ে চার বছরের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে ট্র্যাকে ফেরা জাস্টিন গ্যাটলিন।

২০০৯ সাল থেকে ১০০ ও ২০০ মিটার দৌড়ের বিশ্ব রেকর্ড বোল্টের অধিকারে। বেইজিং ও লন্ডন অলিম্পিক থেকে তাঁর সংগ্রহ ছয়টি সোনা। বিশ্ব চ্যাম্পিয়নেও আটটি সোনা জিতে নিজেকে নিয়ে গেছেন অনতিক্রম্য উচ্চতায়। কিন্তু এ বছরটা তেমন ভালো কাটছে না তাঁর। চোট আর ছন্দহীনতার জন্য বেইজিংয়ে বোল্টের সাফল্য নিয়ে কিছুটা হলেও সন্দেহের দোলাচল।

গ্যাটলিনের সঙ্গে মুখোমুখি লড়াইয়ে অবশ্য দারুণ সফল বোল্ট। মার্কিন তারকার বিপক্ষে সাতবার দৌড়ে ছয়বারই জয় পেয়েছেন তিনি। যদিও এই পরিসংখ্যানের কারণে কোনো ধরনের আত্মতৃপ্তিতে ভুগতে রাজি নন অনেকের মতেই সর্বকালের সেরা স্প্রিন্টার, তিনি বলেন, ‘সব প্রতিযোগিতাই সমান। একটি প্রতিযোগিতায় কে সবচেয়ে ভালো ছন্দে আছে আর সে সুযোগ কীভাবে কাজে লাগাচ্ছে, সেটাই গুরুত্বপূর্ণ। আমি তাই কোনো দুশ্চিন্তা করছি না। আমি কখনো পরিসংখ্যানের দিকেও তাকাই না। এটা হলো ট্র্যাক অ্যান্ড ফিল্ডের লড়াই। এখানে কখন কী ঘটবে তা আগে কেউই বলতে পারে না।’

অন্যদিকে গ্যাটলিন আছেন দারুণ ছন্দে। গত মাসে রোম ডায়মন্ড লিগ মিটের ১০০ মিটার স্প্রিন্টে ৯.৭৫ সেকেন্ডে সবাইকে পেছনে ফেলে বোল্টের একটা রেকর্ড ভেঙে ফেলেছেন তিনি। এই প্রতিযোগিতায় আগের সেরা টাইমিং ছিল বোল্টের, ৯.৭৬ সেকেন্ড। তিন বছর আগে ইতালির রাজধানীতে জ্যামাইকান তারকা  ‘রেকর্ড’টা গড়েছিলেন গ্যাটলিনের অনুপস্থিতিতে।

মাদক গ্রহণের দায়ে ২০০৬ থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত চার বছর নিষেধাজ্ঞার শাস্তি পাওয়া গ্যাটলিনের সময়টা দারুণ কাটছে। জুনে কাতারের দোহা ডায়মন্ড লিগে ৯.৭৪ সেকেন্ডে গড়েছিলেন এ বছরের সেরা টাইমিংয়ের রেকর্ড। বেইজিংয়ে দুই গতি-তারকার লড়াই তাই জমজমাট হওয়ার কথা!

 

শেয়ারবাজারনিউজ/অ

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.