আজ: বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ইং, ৯ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ১০ই শাবান, ১৪৪৫ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

০৬ ডিসেম্বর ২০২৩, বুধবার |

kidarkar

বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় পার পাচ্ছেন না আওয়ামী লীগের হেভিওয়েট প্রার্থীরাও

শেয়ারবাজার ডেস্ক: দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় পার পাচ্ছেন না আওয়ামী লীগের হেভিওয়েট কোনো প্রার্থী। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গোপালগঞ্জ-৩ আসনেও লড়ছেন পাঁচজন। তবে নৌকার বিপক্ষে যারা প্রার্থী হয়েছেন তারা খুব বেশি পরিচিত মুখ নন। কয়েকটি আসনে আওয়ামী লীগের স্বতন্ত্র প্রার্থীরাই দলটির মনোনিত প্রার্থীদের শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বী হয়ে উঠতে পারেন।

আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া শেষ হয়েছে গত ৩০ নভেম্বর। নির্বাচন কমিশনে নিবন্ধিত ৪৪টি রাজনৈতিক দলের মধ্যে এই আওয়ামী লীগ–জাতীয় পার্টিসহ ২৯টি রাজনৈতিক দলের প্রার্থীরা এবার নির্বাচনে আসছেন। অন্যদিকে, বিএনপিসহ ১৫টি দলের কোনো প্রার্থী এই নির্বাচনে নেই।

নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, দেশের ৩০০টি সংসদীয় আসনে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের নৌকা চেয়েছেন ৩০৩ জন। পাঁচটি আসনে নৌকার বিপরীতে দুজন করে প্রার্থী মনোনয়ন জমা দিয়েছেন। এরই মধ্যে শেষ হয়েছে মনোনয়ন পত্র যাচাই বাছাই। গত সোমবার যাচাই–বাছাই শেষে ২ হাজার ৭১২ জন প্রার্থীর মধ্যে ৭৩১ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল করেছে নির্বাচন কমিশন। আর বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে ১ হাজার ৯৮৫ জনের মনোনয়নপত্র।

বিএনপি নির্বাচনে না এলেও আওয়ামী লীগের স্বতন্ত্র প্রার্থীরাই নির্বাচনকে জমিয়ে তুলেছে। এবারের নির্বাচনে অংশ নিতে রেকর্ড সংখ্যক ৭৪৭ জন প্রার্থী স্বতন্ত্রভাবে নির্বাচনে অংশ নিতে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। ফলে একেকটি আসনে গড়ে প্রার্থী হয়েছেন প্রায় ৭ জন।

আওয়ামী লীগ আগেই ঘোষণা দিয়েছে, এবার কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে কোনো নেতা–কর্মী স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করলে তাঁদের বাধা দেওয়া হবে না। এর ফলে, দলটির মনোনয়নবঞ্চিত অনেক নেতাই এবার নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন। এই স্বতন্ত্র প্রার্থীদের সঙ্গে নৌকার প্রার্থীদের শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মস্থান হওয়ায় গোপালগঞ্জের তিনটি আসনেই আওয়ামী লীগের অন্যরকম জনপ্রিয়তা রয়েছে। এই তিনটি আসনকে বিবেচনা করা হয় আওয়ামী লীগের শক্ত ঘাঁটি হিসেবে। এরমধ্যে কোটালিপাড়া-টুঙ্গিপাড়া থেকে বরাবরের মতোই নৌকার প্রার্থী হয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা। এই আসনে তার প্রতিদ্বন্দ্বী গণফ্রন্টের সৈয়দা লিমা হাসান, বাংলাদেশ সুপ্রিম পার্টির নিজামউদ্দিন লস্কর, এনপিপির শেখ আবুল কালাম এবং জাকের পার্টির মাহাবুর মোল্লা।

শেখ হাসিনা এখন পর্যন্ত গোপালগঞ্জ–৩ আসন থেকে কখনোই নির্বাচনে হারেননি। আগের নির্বাচনগুলোতে যারা তার প্রতিদ্বন্দ্বি ছিলেন তাদের একটি বড় অংশই সেই নির্বাচনগুলোতে জামানত হারিয়েছেন।

গোপালগঞ্জ আওয়ামীলীগের এক নেতা বলেন, ‘প্রার্থী যতোই হোক, আওয়ামী লীগের রিজার্ভ তো রিজার্ভই। আর এই ১৫ বছরে যে উন্নয়ন হয়েছে গোপালগঞ্জের সাধারণ মানুষের অন্য কোথাও ভোট দেওয়ার প্রশ্নই আসে না।’

গোপালগঞ্জের অন্য দুই আসনে নৌকার হেভিওয়েট প্রার্থী ফারুক খান ও শেখ ফজলুল করিম সেলিম। এদের বিপক্ষে যারা দাঁড়িয়েছেন তাদের এলাকায় তেমন পরিচিতিই নেই।

এবারও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের প্রার্থী হয়েছেন নোয়াখালী-৫ আসন থেকে। বিএনপির সাবেক নেতা মওদুদ আহমেদের সঙ্গে এই আসনে বরাবরই শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতা হতো কাদেরের। এবারের নির্বাচনে বিএনপি নেই। তারপরেও এই আসনে ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নেমেছেন ৫ জন।

স্থানীয় এক রাজনৈতিক কর্মী বলেন, ‘ওবায়দুল কাদের জাতীয় নেতা এবং মালেক উকিলের পরে সে সবচেয়ে জনপ্রিয়।’

এবার সবার নজর মাগুরা-১ আসনে নৌকার প্রার্থী সাকিব আল হাসানের ওপর। নড়াইল–২ আসনে দ্বিতীয়বারের মতো প্রার্থী হয়েছেন ক্রিকেটার মাশরাফি বিন মোর্ত্তজাও। এসব আসনেও তাদের ৫ থেকে ৬ জন প্রতিদ্বন্দ্বীকে মোকাবিলা করতে হবে।

মাগুরা আওয়ামী লীগের এক কর্মী বলেন, ‘মাগুরা জেলা আওয়ামী লীগের সর্বস্তরের নেতাকর্মী সাকিবের পক্ষে কাজ করছে এবং বিরোধী দলের অনেকেই ক্রিকেটার সাকিব হিসেবে তাঁকে ভোট দেবে।’

এছাড়াও আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ নেতা তোফায়েল আহমেদ, আমির হোসেন আমু, মতিয়া চৌধুরীকেও জিততে হবে লড়াই করেই। চোখ থাকবে ঐ আসনগুলোতেও যেখানে বাদ পড়েছে আওয়ামী লীগের ৭১ জন সংসদ সদস্য।

গত ১৫ নভেম্বর দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল। তফসিল অনুযায়ী ভোট হবে আগামী ৭ জানুয়ারি। প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ সময় ১৭ ডিসেম্বর, আর প্রতীক বরাদ্দ হবে ১৮ ডিসেম্বর। নির্বাচনের প্রচার শুরু হবে ১৮ ডিসেম্বর থেকে। চলবে ৫ জানুয়ারি সকাল ৮টা পর্যন্ত।

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.