আজ: শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪ইং, ৩০শে চৈত্র, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ২রা শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, বৃহস্পতিবার |

kidarkar

পোশাকের ভেতরে লুকিয়ে এনেছিলেন ২ কেজি স্বর্ণ, তল্লাশিতে ধরা

নিজস্ব প্রতিবেদক: হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে শুল্ক ফাঁকি দিয়ে আনা ২ কেজি ১০৪ গ্রাম স্বর্ণসহ চার যাত্রীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বুধবার (২১ ফেব্রুয়ারি) সকালে যৌথ অভিযানে তাদের গ্রেপ্তার করে বিমানবন্দর কাস্টমস, এনএসআই ও এপিবিএনের সদস্যরা। গ্রেপ্তার চারজনই ভোরে বেসরকারি এয়ারলাইন্স ইউএস বাংলার একটি ফ্লাইটে দুবাই থেকে ঢাকায় এসেছিলেন।

গ্রেপ্তাররা হলেন- মুন্সিগঞ্জের আব্দুল কাদির (৪১), পটুয়াখালী জেলার মো. জুয়েল হোসেন (৩৪) ও ইব্রাহিম খলিল (৪০) এবং গাজীপুরের খোরশেদ আলম (৪২)। তাদের বিরুদ্ধে বিমানবন্দর থানায় বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা করা হয়েছে।

এয়ারপোর্ট আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জিয়াউল হক জানান, বুধবার ভোর ৪টা ৫৫ মিনিটে ইউএস বাংলার একটি ফ্লাইট দুবাই থেকে হযরত শাহজালাল বিমানবন্দরে অবতরণ করে। ওই সময় জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থার (এনএসআই) তথ্য অনুযায়ী এপিবিএন ও কাস্টমসের যৌথ একটি আভিযানিক দল গ্রিন চ্যানেল ও এর বাইরে অপেক্ষমাণ ছিল।

পরে আনুমানিক সকাল ৬টায় একে একে ফ্লাইটটির সব যাত্রী বের হওয়া শুরু করেন। ওই সময় আব্দুল কাদির, জুয়েল হোসেন, ইব্রাহিম খলিল ও খোরশেদ আলমকে সন্দেহ হলে তাদের থামানো হয়। পরে জিজ্ঞাসাবাদে তারা নিজেদের কাছে স্বর্ণালংকার থাকার বিষয়টি অস্বীকার করেন। কিন্তু আগে থেকে গোয়েন্দা তথ্য পাওয়ায় এবং তাদের আচরণ সন্দেহজনক হওয়ায় ওই চারজন যাত্রীকে অধিকতর তল্লাশির সিদ্ধান্ত নেয় যৌথ আভিযানিক দল।

পরবর্তীতে অভিযানে অংশ নেয়া সকল সংস্থার প্রতিনিধিদের সামনে দ্বিতীয়বারের মতো ওই চার যাত্রীকে তল্লাশি করা হয়। ওই সময় তাদের প্রত্যেকের পরিধেয় পোশাকে বিশেষ কায়দায় লুকায়িত অবস্থায় ৩১৬ গ্রাম করে ভেজা স্বর্ণের পাউডার ছাড়াও ১১৬ গ্রাম ওজনের একটি করে গোল্ড বার এবং ৯৪ গ্রাম করে স্বর্ণালংকার পাওয়া যায়। ওই চারজন যাত্রীই একই মাপের ও ওজনের স্বর্ণ বহন করছিলেন এবং প্রত্যেকের কাছেই ৫২৬ গ্রাম করে স্বর্ণ পাওয়া যায়।

শেয়ারবাজারনিউজ ডটকম/ শি.

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.