আজ: শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ইং, ১১ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ১২ই শাবান, ১৪৪৫ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

১৪ নভেম্বর ২০১৫, শনিবার |

kidarkar

সপ্তাহজুড়ে ৩৪ কোম্পানির আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ: মুনাফা বৃদ্ধিতে ১৫টি

Arthik Protibadon Reportশেয়ারবাজার রিপোর্ট: প্রথম প্রান্তিক অনিরীক্ষিত (জুলাই-সেপ্টেম্বর ১৫) এবং তৃতীয় প্রান্তিক (জানুয়ারি-সেপ্টেম্বর ১৫) আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ৩৪ কোম্পানি। এগুলো হলো: ইস্টার্ণ ক্যাবলস, আরএসআরএম স্টিল, নর্দার্ণ জুট, আলহাজ্ব টেক্সটাইল, সাইফ পাওয়ারটেক, ড্যাফোডিল কম্পিউটার্সে, এপেক্স ট্যানারি, তিতাস গ্যাস, মাইডাস ফাইন্যান্স, বিচ হ্যাচারি, ফু-ওয়াং সিরামিক, প্রাইম টেক্সটাইল, সাভার রিফ্র্যাক্টরিজ, স্টান্ডার্ড সিরামিক, ডিবিএইচ, মেঘনা পেট্রোলিয়াম, দেশবন্ধু পলিমার, পাওয়ার গ্রীড, কোহিনূর কেমিক্যালস, মেট্রো স্পিনিং, বারাকা পাওয়ার, হামিদ ফেব্রিক্স, ইস্টার্ন লুব্রিকান্টস, আইসিবি, মতিন স্পিনিং, এএমসিএল প্রাণ, ঝিলবাংলা, পেনিনসুলা, সাবমেরিন ক্যাবলস, মডার্ণ ডাইং, এটলাস বাংলাদেশ, মেঘনা  পেট, মেঘনা কনডেন্সড মিল্ক এবং প্রিমিয়ার সিমেন্ট লিমিটেড। প্রতিবেদন অনুযায়ী ১৫টি কোম্পানির মুনাফা বেড়েছে। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

ইস্টার্ন ক্যাবলস:

প্রথম প্রান্তিকে ইস্টার্ন ক্যাবলসের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.১৬ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ৪.১৪ টাকা (মাইনাস) এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ২৮.৪৮ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ০.০২ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ২.৬৬ টাকা এবং ৩০ জুন ২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ২৭.৯৩ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস বেড়েছে ০.১৪ টাকা বা ৭০০ শতাংশ।

আরএসআরএম স্টিল:

প্রথম প্রান্তিকে আরএসআরএম স্টিলের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.৩৬ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ০.৮৩ টাকা (মাইনাস) এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ৪৬.৯৯ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ১.১১ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ৫.৪৪ টাকা (মাইনাস) এবং ৩০ জুন ২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ৫১.৫৯ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস বেড়েছে ০.২৫ টাকা।

নর্দার্ণ জুট:

প্রথম প্রান্তিকে নর্দার্ণ জুটের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.০৩ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ৪.২১ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ৮৮.২৫ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ০.২৫ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ৭.৪৭ টাকা (মাইনাস) এবং ৩০ জুন ২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ৮৭.২২ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস বেড়েছে ০.৭৮ টাকা বা ৩১২ শতাংশ।

আলহাজ্ব টেক্সটাইল:

প্রথম প্রান্তিকে আলহাজ্ব টেক্সটাইলের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.২৯ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ১.৫৭ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ১৪.২১ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ০.২৬ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ১.২৭ টাকা (মাইনাস) এবং ৩০ জুন ২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ১৩.৯৩ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস বেড়েছে ০.০৩ টাকা।

সাইফ পাওয়াটেক:

প্রথম প্রান্তিকে সাইফ পাওয়াটেকের শেয়ার প্রতি সমন্বিত আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.৩৮ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সমন্বিত কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ২.২২ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সমন্বিত সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ২৫.৮৮ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি সমন্বিত আয় (ইপিএস) ছিল ০.৫৯ টাকা, সমন্বিত এনওসিএফপিএস ছিল ১.১৪ টাকা (মাইনাস) এবং ৩০ জুন ২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে সমন্বিত এনএভিপিএস ছিল ২৪.৫০ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস বেড়েছে ০.৭৯ টাকা বা ১৩৩.৯০ শতাংশ।

ড্যাফোডিল কম্পিউটার্স:

প্রথম প্রান্তিকে ড্যাফোডিল কম্পিউটার্সের শেয়ার প্রতি সমন্বিত আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৪১ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সমন্বিত কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ০.৬৭ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সমন্বিত সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ১২.৫৭ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি সমন্বিত আয় (ইপিএস) ছিল ০.২৯ টাকা, সমন্বিত এনওসিএফপিএস ছিল ০.২৫ টাকা এবং ৩০ জুন ২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে সমন্বিত এনএভিপিএস ছিল ১২.১৭ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস বেড়েছে ০.১২ টাকা বা ৪১.৩৮ শতাংশ।

এপেক্স ট্যানারি:

প্রথম প্রান্তিকে এপেক্স ট্যানারির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) (without fair valuation surplus) হয়েছে ০.৫৯ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ৮.২০ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ৭৪.৫১ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ০.৬৬ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ২.২২ টাকা (মাইনাস) এবং ৩০ জুন ২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ৭৩.৪৮ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস কমেছে ০.০৭ টাকা।

তিতাস গ্যাস:

প্রথম প্রান্তিকে তিতাস গ্যাসের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.৫৭ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ১.৩৭ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ৫৯.৯৪ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ২.৩৭ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ১.৪৯ টাকা এবং ৩০ জুন ২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ৫৮.৩৬ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস কমেছে ০.৮০ টাকা।

মাইডাস ফাইন্যান্স:

প্রথম প্রান্তিকে মাইডাস ফাইন্যান্সের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.১৩ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ৩.০৮ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ৭.৫০টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি লোকসান ছিল ১.৪২ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ১.৭১ টাকা (মাইনাস) এবং ৩০ জুন ২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ২.২৯ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস বেড়েছে ১.৫৫ টাকা।

বিচ হ্যাচারি:

তৃতীয় প্রান্তিকে বিচ হ্যাচারির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ০.৪৭ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ০.০২ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ১১.৯১ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ০.৯৭ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ০.১৩ টাকা এবং ৩১ ডিসেম্বর ২০১৪ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ১২.৩৮ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস কমেছে ১.৪৪ টাকা।

গত তিন মাসে (জুলাই-সেপ্টেম্বর ১৫) এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ০.১১ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে আয় ছিল ০.১২ টাকা।

ফু-ওয়াং সিরামিক:

প্রথম প্রান্তিকে ফু-ওয়াং সিরামিকের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.১২ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ০.০১ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ১২.৪৮ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ০.১০ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ০.৩০ টাকা (মাইনাস) এবং ৩০ জুন ২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ১২.৩৫ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস বেড়েছে ০.০২ টাকা।

প্রিমিয়ার সিমেন্ট:

প্রথম প্রান্তিকে প্রিমিয়ার সিমেন্টের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৮১ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ২.৪৯ টাকা এবং ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৫ কোম্পানির শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ২৮.২৭ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ইপিএস ছিল ০.৭৬ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ৩.০৬ টাকা ৩০ জুন ২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে ছিল ২৯.৩৮ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস বেড়েছে ০.০৫ টাকা।

হামিদ ফেব্রিক্স:

প্রথম প্রান্তিকে হামিদ ফেব্রিক্সের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৩৬ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ১.১৭ টাকা এবং ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৫ কোম্পানির শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ৩৯.৯৩ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ইপিএস ছিল ১.২৬ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ০.২১ টাকা এবং ৩০ জুন ২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভি ছিল ৩৯.৫৭ টাকা। প্রতিবেদন অনুযায়ী ইপিএস কমেছে ৭১.৪৩ শতাংশ।

বারাকা পাওয়ার:

প্রথম প্রান্তিকে বারাকা পাওয়ারের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৯৬ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ৩.৩৫ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ২০.৩৫ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ০.৮০ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ৩.৬০ টাকা এবং ৩০ জুন ২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ১৯.৩৯ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস বেড়েছে ০.১৬ টাকা।

মেট্রো স্পিনিং:

প্রথম প্রান্তিকে মেট্রো স্পিনিংয়ের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.০৬ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ০.০০৮ টাকা এবং ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৫ কোম্পানির শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ১৬.৮১ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ইপিএস ছিল ০.১৯ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ০.৭৮ টাকা এবং ৩০ জুন ২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ১৬.৮৩ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস কমেছে ০.১৩ টাকা।

কোহিনূর কেমিক্যালস:

প্রথম প্রান্তিকে কোহিনূর কেমিক্যালসের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২.৪৫ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ১০.৯৩ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ৩৪.৮১ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ২.৬০ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ১১.৯৯ টাকা এবং ৩০ জুন ২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ৩২.৩৫৬ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস কমেছে ০.১৫ টাকা।

পাওয়ার গ্রীড:

প্রথম প্রান্তিকে পাওয়ার গ্রীডের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৬০ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ১.৫৫ টাকা এবং ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৫ কোম্পানির শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ৬৯.৩৫ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ইপিএস ছিল ০.২৬ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ১.৫৬ টাকা এবং ৩০ জুন ২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ৬৩.৮৬ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস বেড়েছে ০.৩৪ টাকা।

দেশবন্ধু পলিমার:

প্রথম প্রান্তিকে দেশবন্ধু পলিমারের শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ০.২৮ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ০.৬৭ টাকা (মাইনাস) এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ১০.৩২ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ০.৩৮ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ০.৮৭ টাকা (মাইনাস) এবং ৩০ জুন ২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ১০.৬০ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস কমেছে ০.৬৬ টাকা।

মেঘনা পেট্রোলিয়াম:

প্রথম প্রান্তিকে মেঘনা পেট্রোলিয়ামের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪.৯১ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ১৮.৯৫ টাকা এবং ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৫ কোম্পানির শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ৭৯.৪২ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ইপিএস ছিল ৫.৮৬ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ১৭.৫০ টাকা এবং এনএভি ছিল ৭০.২১ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস কমেছে ০.৯৫ টাকা।

ডিবিএইচ:

প্রথম প্রান্তিকে ডিবিএইচের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.৫৪ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ৩.৯২ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ২৮.৮৭ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ১.৩৪ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ০.২২ টাকা (মাইনাস) এবং ৩০ জুন ২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ২৫.২৬ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস বেড়েছে ০.২০ টাকা।

স্টান্ডার্ড সিরামিক:

প্রথম প্রান্তিকে স্টান্ডার্ড সিরামিকের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.১৩ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ১.৪৮ টাকা (মাইনাস) এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ১৪.৪৯ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ০.১৫ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ১.৩২ টাকা এবং ৩০ জুন ২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ১৪.৪৯ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস কমেছে ০.০২ টাকা।

সাভার রিফ্র্যাক্টরিজ:

প্রথম প্রান্তিকে সাভার রিফ্র্যাক্টরিজের শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ০.২৭ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ৩.২২ টাকা (মাইনাস) এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ৭.৯৯ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে লোকসান ছিল ০.১১ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ০.৬৬ টাকা এবং ৩০ জুন ২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ৮.২৬ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির লোকসানের পরিমান বেড়েছে ০.১৬ টাকা বা ১৪৫.৪৫ শতাংশ।

উল্লেখ্য, আলোচিত সময়ে কোম্পানিটির পুঞ্জিভূত লোকসানের পরিমাণ দাড়িয়েছে ৪৮ লাখ ৯০ হাজার টাকা।

প্রাইম টেক্সটাইল:

প্রথম প্রান্তিকে প্রাইম টেক্সটাইলের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.২২ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ০.৪১ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ৫৫.০৮ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ০.২৬ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ০.১০ টাকা এবং ৩০ জুন ২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ৫৬.৩১ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস কমেছে ০.০৪ টাকা।

এএমসিএল প্রাণ:

প্রথম প্রান্তিকে এএমসিএল প্রাণের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.৭০ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ২.৩৩ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ৬৬.৩৩ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ১.৪২ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ৫.১৮ টাকা এবং ৩০ জুন ২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ৬৪.৬৩ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস বেড়েছে ০.২৮ টাকা বা ১৯.৭২ শতাংশ।

আইসিবি:

প্রথম প্রান্তিকে আইসিবির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৭৫ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ১৫.৮৫ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভি) হয়েছে ৭৩.৬৭। যা আগের বছরে একই সময়ে ইপিএস ছিল ১.৫৭ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ২.৭৭ টাকা এবং ৩০ জুন ২০১৫ পর্যন্ত শেয়ার প্রতি সম্পদ ছিল ৬৯.২০ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস কমেছে ০.৮২ টাকা।

মতিন স্পিনিং:

প্রথম প্রান্তিকে মতিন স্পিনিংয়ের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.০৬ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ০.১৯ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) (with Revaluation reserves) হয়েছে ৪২.৪৬ টাকা এবং এনএভি (without Revaluation reserves) হয়েছে ৩২.২৩ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ১.১০ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ০.১৫ টাকা এবং ৩০ জুন ২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস (with Revaluation reserves) ছিল ৪১.৪৩ টাকা এবং এনএভি (without Revaluation reserves) ছিলো ৩১.২০ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস কমেছে ০.০৪ টাকা।

ঝিলবাংলা:

প্রথম প্রান্তিকে ঝিলবাংলার শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ১২.৭৬ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ১২.৬২ টাকা (মাইনাস) এবং শেয়ার প্রতি দায় হয়েছে ৩৪৬.৫৬ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি লোকসান ছিল ১১.৯৫ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ১১.৭৬ টাকা (মাইনাস) এবং ৩০ জুন ২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ৩৩৩.৮০ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস কমেছে ০.১০ টাকা।

পেনিনসুলা:

প্রথম প্রান্তিকে পেনিনসুলার শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৪০ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ০.১৯ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ৩৩.২৪ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ০.৩৮ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ০.৪০ টাকা এবং ৩০ জুন ২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ৩২.৮৪ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস বেড়েছে ০.০২ টাকা।

সাবমেরিন ক্যাবল:

প্রথম প্রান্তিকে সাবমেরিন ক্যাবলের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.১৪ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ০.৪২ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ২৪.৬০ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ০.২২ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ০.২৯ টাকা এবং ৩০ জুন ২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ২৪.৪৬ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস কমেছে ০.০৮ টাকা।

মডার্ণ ডাইং:

প্রথম প্রান্তিকে মডার্ণ ডাইংয়ের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৩৫ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ০.৮২ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ১১.৮৪ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি লোকসান ছিল ০.৫৪ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ০.৩৯ টাকা (মাইনাস) এবং এনএভিপিএস ছিল ১০.৫৮ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় বেড়েছে ০.৮৯ টাকা।

মেঘনা কনডেন্সড মিল্ক:

প্রথম প্রান্তিকে মেঘনা কনডেন্সড মিল্কের শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ১.০৭৯ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ০.৩৪ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ২৮.৬৫ (নেগেটিভ) টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি লোকসান ছিল ১.০৭৫ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ১.২৮ টাকা এবং ৩০ জুন ২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ২৭.৫৭ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি লোকসান বেড়েছে ০.০০৪ টাকা।

মেঘনা পেট:

প্রথম প্রান্তিকে মেঘনা পেটের শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ০.০৯২ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহের পরিমাণ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ০.০১৭ এবং শেয়ার প্রতি দায় হয়েছে ২.৪৯ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি লোকসান ছিলো ০.১০৯ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিলো ০.০১৬ এবং ৩০ জুন ২০১৫ পর্যন্ত শেয়ার প্রতি দায় ছিলো ২.৪০ টাকা।

আলোচিত সময়ে কোম্পানিটির পুঞ্জিভূত লোকসানের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১৬ কোটি ৯৪ লাখ ৫০ হাজার টাকা এবং শেয়ারহোল্ডার ইক্যুইটি দাঁড়িয়েছে (নেগেটিভ) ২ কোটি ৯৯ লাখ ৪০ হাজার টাকা।

ইস্টার্ন লুব্রিকান্টস:

প্রথম প্রান্তিকে ইস্টার্ন লুব্রিকান্টসের শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ০.২০ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ৩৫.২৪ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ৭৩.২১ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ০.৫২ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ৬৪.৯০ টাকা এবং ৩০ জুন ২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ৭৩.৪১ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস কমেছে ০.৭২ টাকা।

এটলাস বাংলাদেশ:

প্রথম প্রান্তিকে এটলাস বাংলাদেশের শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ০.৮২ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ৩.৫২ টাকা (মাইনাস) এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ২০২.৯৬ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ০.০৬ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ০.৫৮ টাকা এবং ৩০ জুন ২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ২০৭.৪৮ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস কমেছে ০.৮৮ টাকা।

 

শেয়ারবাজারনিউজ/মু

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.