আজ: বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪ইং, ৫ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১১ই জিলহজ, ১৪৪৫ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

০১ এপ্রিল ২০১৬, শুক্রবার |

kidarkar

ডিএসই’র এজিএম অনুষ্ঠিত: কোম্পানির আয় বাড়াতে ট্রেক হোল্ডারদের পরামর্শ

dse board meetingশেয়ারবাজার রিপোর্ট : ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) পরিচালনা পর্ষদ প্রথমবারের মতো শেয়ারহোল্ডারদের জন্য লভ্যাংশ ঘোষণা করে। ২০১৪-১৫ অর্থবছরের জন্য ১০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করা হয়। যা ডিএসইর বার্ষিক সাধারণ সভায় (এজিএম) সর্বসম্মতিক্রমে অনুমোদিত হয়েছে। এদিকে কোম্পানির আয় বাড়াতে ট্রেক হোল্ডাররা পরিচালনা পর্ষদকে পরামর্শ দিয়েছে। ডিএসই থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানা গেছে।

৩১ মার্চ অনুষ্ঠিত ডিএসইর ৫৪তম বার্ষিক সাধারণ সভায় এ অনুমোদন পায়।

সভায় সভাপতিত্ব করেন ডিএসই’র চেয়ারম্যান বিচারপতি ছিদ্দিকুর রহমান মিয়া।

ট্রেকহোল্ডারদের উপস্থিতিতে এজিএমে ২০১৪-২০১৫ অর্থবছরের পরিচালনা পর্ষদের প্রতিবেদন, নিরীক্ষিত হিসাব সর্বসম্মতিভাবে অনুমোদিত হয়েছে।

১৫ মার্চ ২০১৬ তারিখে অনুষ্ঠিত পরিচালনা পর্ষদ নির্বাচন ২০১৬ এর আনুষ্ঠানিক ফলাফল ঘোষণার মাধ্যমে বোর্ডে নতুন পরিচালক অন্তর্ভুক্ত করা হয়। সভায় ডিএসইর পরিচালনা পর্ষদ থেকে এ বছর বাদ পড়েছেন শরীফ আনোয়ার হোসেন। তার স্থলাভিষিক্ত হয়েছেন ডিএসই’র সাবেক প্রেসিডেন্ট রকিবুর রহমান।

সভায় বক্তব্য রাখেন মোঃ রকিবুর রহমান, ডিএসই’র সাবেক প্রেসিডেন্ট কাজী ফিরোজ রশিদ, আহসানুল ইসলাম টিটু, সাবেক পরিচালক আহমদ রশিদ লালি, এ এস শাহুদুল হক বুলবুলসহ অন্যান্য। সবাই পুঁজিবাজারের উন্নয়নে একযোগে কাজ করার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন।

এ সময় বক্তারা বলেন, ব্যবস্থাপনা থেকে মালিকানা আলাদা হওয়ার পর প্রথম লভ্যাংশ পেয়েছি আমরা। এটি আবার দেওয়া হয়েছে রিজার্ভ থেকে। এবার রিজার্ভ থেকে দেওয়া হলো; আগামীতে কোন জায়গা থেকে লভ্যাংশ দেওয়া হবে?

তারা বলেন, এর জন্য আয় বাড়াতে হবে। এর কোনো বিকল্প নেই। আয় বাড়ানোর জন্য নতুন নতুন পণ্য চালু করতে হবে। একইসঙ্গে ব্যবস্থপনা ব্যয় কমানোর উপর জোর দেন তারা।

জানা গেছে, ট্রেকহোল্ডারদের কথার সঙ্গে সুর মিলিয়েছের প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক অধ্যাপক ড. স্বপন কুমার বালা। তিনি বলেন, আয় না বাড়লেতো লভ্যাংশের উপর প্রভাব পড়বে। তবে সব ট্রেকহোল্ডারদের সহযোগিতা নিয়ে এখান থেকে বেড়িয়ে আসতে চাই।

লেনদেন বাড়ানোর লক্ষ্যে মোবাইলে লেনদেন চালু করা হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমরা চেষ্ঠা করছি, লেনদেন বাড়ানোর জন্য; হাউজে লোক আসে না বিধায় মোবাইলে লেনদেন চালু করেছি। আশা করছি, আগামীতে এর একটি ইতিবাচক প্রভাব পড়বে।

কোম্পানির আয় বাড়ানো সম্ভব না হলে, স্ট্রাটিজিক পার্টনার পাওয়া যাবে না বলেও উল্লেখ করেন ড. স্বপন কুমার বালা।

সভায় ডিএসই’র চেয়ারম্যান বিচারপতি ছিদ্দিকুর রহমান মিয়াসহ ডিএসই অন্য পরিচালকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ারবাজারনিউজ/আ

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.