আজ: শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪ইং, ১লা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ৮ই জিলহজ, ১৪৪৫ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

০২ এপ্রিল ২০১৬, শনিবার |

kidarkar

মুসলিম হওয়ায় বিমান থেকে নামিয়ে দিলেন মার্কিন পাইলট

muslimশেয়ারবাজার ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রে সম্প্রতি ‘নিরাপত্তার’ অজুহাতে পাঁচ সদস্যের এক মুসলিম পরিবারকে ইউনাইটেড এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট থেকে নামিয়ে দেয়া হয়েছিল। এ ঘটনার প্রতিবাদে ওই এয়ার লাইন্সের কাছে সংশ্লিষ্টদের বিচার দাবি করে পত্র দিয়েছে ‘দ্য কাউন্সিল অন আমেরিকান-ইসলামিক রিলেসন্স’ নামের একটি সংগঠন।

স্বামী ও তিন ছেলেমেয়েকে নিয়ে শিকাগো বিমানবন্দর  থেকে ওয়াশিংটনগামী ফ্লাইটে ওঠেছিলেন ইয়ামান আমে সাদ শেবলে। বিমানটি ছাড়ার আগে এর এক পাইলট এসে ওই পরিবারটিকে বিমান থেকে জোর করে নামিয়ে দেন। এর কারণ হিসেবে তারা নিরাপত্তার অজুহাত দেখান। পরে ওই পরিবারটি অন্য একটি বিমানে করে ওয়াশিংটন পৌঁছায়। তবে কবে নাগাদ এ ঘটনা ঘটেছে তা উল্লেখ করেনি দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট পত্রিকাটি।

পরে এ ঘটনা নিয়ে ফেসবুকে পোস্ট দেন শেবলে। সেখানে তিনি বলেন,‘ইউনাইটেড এয়ারলাইন্স, ধিক তোমাদের! তোমরা কোনো কারণ ছাড়াই আমাকে আর আমার পরিবারকে বিমান থেকে নামিয়ে দিয়েছ। এই তিক্ত অিভিজ্ঞতার জন্য আমার শিশু তিনটি ছিল খুবই ছোট।’ এই পোস্ট দেয়ার পরই ওই ঘটনা সম্পর্কে জানাজানি হয় এবং ওই এয়ারলাইন্সের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত মুসলিম জনগোষ্ঠীর মধ্যে তীব্র ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে।

মুসলিমদের সংগঠন দ্য কাউন্সিল অন আমেরিকান-ইসলামিক রিলেসন্স এই ঘটনার ব্যাখ্যা দাবি করে ওই এয়ারলাইন্সের কাছে একটি পত্র পাঠিয়েছেন। তারা এই বৈষম্যমূলক আচরণের সঙ্গে জড়িত বিমানের কর্মচারী ও পাইলটের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ারও দাবি করেছেন।

এ সম্পর্কে কেয়ার শিকাগোর নির্বাহী পরিচালক আহমেদ রেহাব বলেন,‘এখন নরাপত্তার অজুহাত তুলে মুসলিমদের মত পোশাক আশাক পরা যাত্রীদের বিমান থেকে নামিয়ে দেয়া হচ্ছে। নিরাপত্তা অর্থ হচ্ছে যাত্রীদের নিরাপত্তা দেয়া। তাদের হয়রানি বা অপমান করা নয়।’

এ ঘটনায় শেবলে ও তার পরিবারের কাছে একাধিক বার ক্ষমা চেয়েছে ইউনাইটেড এয়ারলাইন্স। ঘটনার দিন তারা শেবলে ও তার স্বামী সন্তানদের অন্য একটি বিমানে তুলে দিয়েছিল বলেও জানা গেছে। তবে এ ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধেে এখনো কোনো ব্যবস্থা নেয়নি ইউনাইটেড এয়ারলাইন্স।

শেয়ারবাজারনিউজ/মু

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.