আজ: বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪ইং, ৩০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ৬ই জিলহজ, ১৪৪৫ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

২১ জুন ২০১৬, মঙ্গলবার |

kidarkar

তৈরি পোশাক সহজেই রাশিয়ার বাজারে শক্ত অবস্থান নেওয়া সম্ভব- অর্থমন্ত্রী

abul maal abdul muhith_SharebazarNewsশেয়ারবাজার রিপোর্ট: রাশিয়ার সেন্ট পিটার্সবার্গে অনুষ্টিত হয়ে গেল তিনদিন ব্যাপি ২০তম ‘সেন্ট পিটার্সবার্গ আন্তর্জাতিক অর্থনৈতিক ফোরাম (এসপিআইইএফ)-২০১৬’।

গত ১৬ জুন থেকে ১৮ জুন পর্যন্ত অনুষ্ঠিত এ সম্মেলনে বাংলাদেশ থেকে কমনওয়েলথ অব ইন্ডিপেনডেন্ট স্টেট্স-বাংলাদেশ চেম্বার অব কর্মাস অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ (সিআইএস-বিসিসিআই) এর উদ্যোগে অংশগ্রহণ করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ (এফবিসিসিআই) এর সভাপতি আব্দুল মাতলুব আহমাদ, সিআইএস-বিসিসিআইয়ের প্রেসিডেন্ট এইচ. কে. কবির, ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস ফোরাম অব বাংলাদেশ (আইবিএফবি) এর প্রেসিডেন্ট মোঃ হাফিজুর রহমান খান, সিআইএস-বিসিসিআইয়ের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট লোকমান হোসেন আকাশ,

সিআইএস-বিসিসিআইয়ের ভাইস প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ আলী দ্বীন, সিআইএস-বিসিসিআইয়ের পরিচালক দিলীপ কুমার আগারওয়ালা, মোঃ এনামুল হক, মোঃ মোশাররফ হোসেন, শামসুল আরেফীন, মোঃ ফারুক আহমেদ, ডঃ লোকিয়ত উল্লাহ, জাদব দেবনাথ।

ফোরামের সমাপনী দিনে বাংলাদেশের ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ড লিমিটেড ও রাশিয়ার জেএনসি নর্থওয়েস্ট আইএলসি কোম্পানির মধ্যে একটি সমঝোতা চুক্তি বিনিময় হয়। চুক্তি অনুযায়ী আগামী দুই বছর রাশিয়ার ওই প্রতিষ্ঠানটির চাহিদামতো ডায়মন্ডের বিভিন্ন পণ্য তৈরি করবে ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ড লিমিটেড।

রাশিয়াসহ সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নভুক্ত দেশগুলোতে বাংলাদেশি পণ্যদ্রব্য রপ্তানির প্রতিবন্ধকতা দূরীকরণে এ সম্মেলনের মাধ্যমে বেশ কয়েকটি প্রকল্প বাস্তবায়নে আলোচনার অগ্রগতি হয়েছে।

ফোরামের সমাপনী দিনে ‘রাশিয়া-বাংলাদেশ নতুন যুগের সম্ভাবনা’ শীর্ষক অধিবেশনে বক্তব্য দেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত, সেন্ট পিটার্সবার্গ চেম্বারের সহসভাপতি ইকিতিরিনা লেবেদেভা, সিআইএস-বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি এইচ কে কবির, ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস ফোরাম অব বাংলাদেশের (আইবিএফবি) সভাপতি হাফিজুর রহমান খান প্রমুখ।

আন্তর্জাতিক অর্থনৈতিক ফোরামের সমাপনী অধিবেশনের বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী বলেন, ইউরোশিয়া অর্থনৈতিক ইউনিয়নের (ইইইউ) সাথে বাংলাদেশের যোগদানে সম্ভাব্যতা যাচাই করা হচ্ছে। বিশেষ করে রাশিয়ার তৈরি পোশাকের বাজার ধরাসহ দ্বিপাক্ষীয় বাণিজ্য ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক সম্প্রসারণের লক্ষ্যে কাজ করা হচ্ছে।

অর্থমন্ত্রী বলেন, রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের কাছ থেকে আমরা এ সংক্রান্ত একটি সুনির্দিষ্ট প্রস্তাব পেয়েছি; মুক্ত বাণিজ্য অঞ্চলে যোগ দিতে বাংলাদেশের আগ্রহ রয়েছে। এতে করে রাশিয়ায় বিনা শুল্কে আমাদের পণ্য রপ্তানিসহ বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা ভোগ করার সুযোগ তৈরি হবে। প্রস্তাবটির বাস্তব কৌশল এখন অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ (ইআরডি) যাচাই-বাছাই করছে।

অর্থমন্ত্রী আরও বলেন, দেশের তৈরি পোশাকের গুণগত মান ও স্বল্পমূল্যের সুযোগ থাকায় সহজেই রাশিয়ার বাজারে শক্ত অবস্থান নেওয়া সম্ভব।

রাশিয়া-বাংলাদেশের মধ্যকার ব্যাংকিং জটিলতার বিষয়ে তিনি বলেন, দুই দেশের মধ্যে ব্যাংকিং লেনদেনের কাজ সহজ করতে বাংলাদেশ ও রাশিয়ার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মধ্যে উচ্চপর্যায়ের আলোচনা চলছে।

পাশাপাশি দ্বিপাক্ষীয় বাণিজ্য ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক সম্প্রসারণে খুব শিগগিরই ‘যৌথ কমিশন’ গঠনের চূড়ান্ত চুক্তিটি স্বাক্ষর হলে অনেকাংশে ওই সব সমস্যার সমাধান হবে।

বাংলাদেশি রপ্তানিকারকদের ঢাকায় অথবা মস্কোতে বিজনেস টু বিজনেস (বিটুবি) বৈঠক আয়োজনের ওপর তিনি গুরুত্বারোপ করেন।

ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের (এফবিসিসিআই) সভাপতি আবদুল মাতলুব আহমাদের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত অধিবেশনে সিআইএস-বিসিসিআই এর প্রতিনিধিরা অর্থমন্ত্রীর কাছে বেশ কয়েকটি প্রস্তাব তুলে ধরেন। এগুলোর মধ্যে রয়েছে মস্কো-ঢাকা সরাসরি বিমান চালু, বাংলাদেশ থেকে সরাসরি রাশিয়ায় পণ্য সরবরাহ ও বাংলাদেশে রুশ বিনিয়োগ বাড়ানো প্রভৃতি।

এ সম্পর্কে সিআইএস-বিসিসিআই এর প্রেসিডেন্ট এইচ. কে. কবির বলেন, আমাদের উদ্দেশ্য রাশিয়ার সঙ্গে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সম্পর্ক জোড়দার করা। সে লক্ষ্যে আমরা অর্থমন্ত্রীর কাছে বেশ কিছু প্রস্তাব তুলে ধরেছি। আশা করছি, এ প্রস্তাবগুলো বাস্তবায়নের মাধ্যমে দুই দেশের দ্বিপাক্ষীয় বাণিজ্য সম্পর্ক আরো সুদৃঢ় হবে।

এদিকে, সম্মেলনে দ্বিতীয় দিনের মূল অধিবেশনে বক্তব্য দেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। তিনি তার বক্তব্যে এশীয়-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের দেশগুলোর সঙ্গে রাশিয়ার অর্থনৈতিক সম্পর্ক আরও জোড়দার হবে বলে ইঙ্গিত প্রদান করেন।

সম্মেলনে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে আরও উপস্থিত ছিলেন সিআইএস-বিসিসিআইয়ের সদস্য মোঃ শফিকুর রহমান, মোঃ আনোয়ারুল ইসলাম, কামাল উদ্দিন আহমেদ, তাসলিমা আক্তার, এম এ আওয়াল চৌধুরী, রাজিবুল হক।

প্রসঙ্গত, সিআইএস-বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ দীর্ঘদিন ধরেই আন্তর্জাতিক বাজারে বাংলাদেশকে তুলে ধরার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। ব্যবসায়-বাণিজ্যের দ্বারা উন্নয়শীল বাংলাদেশকে বিশ্বের মানচিত্রে উন্নত করাই এ চেম্বারের মূল লক্ষ্য।

সে উদ্দেশ্যেই রাশিয়ার সবচেয়ে বৃহৎ অর্থনৈতিক সম্মেলন ‘সেন্ট পিটার্সবার্গ আন্তর্জাতিক অর্থনৈতিক ফোরাম (এসপিআইইএফ)-২০১৬’ এ অংশগ্রহণ করলো প্রতিনিধি দলটি।

রাশিয়ার উপপ্রধানমন্ত্রী সের্গেই প্রিখোদকা গত বৃহস্পতিবার দুপুরে সেন্ট পিটার্সবার্গ আন্তর্জাতিক অর্থনৈতিক ফোরামের উদ্বোধন করেন। টানা তিন দিন ধরে চলা এই ফোরামে সাংহাই সহযোগিতা সংস্থা, ব্রিকস বিজনেস ফোরাম, উন্নয়নশীল দেশগুলোর সংগঠন জি-২০-এর ব্যবসায়ী প্রতিনিধিদলের সম্মেলনসহ বিভিন্ন বিষয়ভিত্তিক প্রায় ১০০টির মতো অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়।

আয়োজক কর্তৃপক্ষ রসকনগ্রেস ফাউন্ডেশন জানায়, এবারের আসরে ১০ হাজারেরও বেশি মানুষ অংশগ্রহণ করেন এবং এতে মোট ৩৩২টি চুক্তিপত্র সই হয়।

বিশ্বের ১০০টিরও বেশি দেশি-বিদেশি কোম্পানির শীর্ষ কর্মকর্তা, সরকারি-বেসরকারি প্রতিনিধি, বিশেষজ্ঞ, উদ্যোক্তা, ব্যবসায়ী প্রতিনিধিদল, সাংবাদিক, জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংস্থার কর্মকর্তারা এতে অংশ নেন। প্রায় ৩০টিরও বেশি ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় অনুষ্ঠানটি সম্প্রচার করা হয়।

শেয়ারবাজারনিউজ/ম.সা

 

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.