বিশেষ ট্রাইবুনালে কারসাজির মামলা: সাইডলাইনে মার্কেট প্লেয়াররা

BazarPoton_SharebazarNewsশেয়ারবাজার রিপোর্ট: এতোদিন থেকে অবহেলায় ঝুলতে থাকা পুঁজিবাজার কারসাজির মামলা বিশেষ ট্রাইব্যুনালে নেয়া হচ্ছে। আর এতেই বাজারের জন্য হিতে-বিপরীত অবস্থা হয়েছে।

গত মঙ্গলবার এ সংক্রান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। আর এতেই বাজারে নাজুক অবস্থা তৈরী হয়েছে।

তথ্যানুসন্ধানে উঠে আসে, মামলার অনুসন্ধান এবং রায়ের আশঙ্কাতেই বড় বিনিয়োগকারীরা বাজার থেকে নিজেদের সরিয়ে নিচ্ছেন। আর এ কারণেই বাজারে লেনদেন এবং সূচকে হঠাৎ করেই নিম্নমুখি প্রবনতা দেখা যাচ্ছে।

আলোচিত সিদ্ধান্তটি নেয়ার পর ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে সর্বশেষ চার কার্যদিবসে মোট ৯০ পয়েন্ট সূচক নেমেছে। এর পাশাপাশি লেনদেন উদ্বেগজনক হারে কমেছে।

বাজার বিশ্লেষকরা বলছেন, মামলার বিষয়টির পাশাপাশি আরও তিনটি ইস্যু বাজারকে প্রভাবিত করছে। ব্যাংকের এক্সপোজার কমানোর সময়সীমা ২০১৬ সালের জুনের পর আর বাড়ানো হবে না এমন খবর বিনিয়োগকারী মহলে চাউড় হয়ে পড়া এর মধ্যে অন্যতম।

এছাড়াও, রমজান আসার আগের দু সপ্তাহ এবং জুনে কোম্পানিগুলোর আর্থিক অর্থবছর শেষ হওয়ার কারণে বাজারে মন্দাভাব থাকে। এ বছর দুটি উপলক্ষ্য একই সময়ে পড়ে যাওয়ায় বাজার নিম্নমুখি প্রবনতা দেখাচ্ছে। এর সাথে আগের দুটি কারণ প্রভাবক হিসেবে কাজ করায় বাজেটের সুফল বাজারে আসছে না।

সম্প্রতি, প্রস্তাবিত ২০১৫-১৬ অর্থবছরের বাজেটে তালিকাভুক্ত কোম্পানির কর রেয়াত, ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে কর্পোরেট করে ছাড়সহ বিশেষ কিছু প্রণোদনা দেয়া হয়। বাজেট প্রস্তাবের পর তাই বিনিয়োগকারীরা বাজার ভালো হবার আশাবাদী হতে শুরু করে। কিন্তু বাস্তবে চিত্র হয়েছে উল্টো। বাজেটের আগে বাজারে গতি ফিরে আসলেও তা ফিকে হয়ে যেতে সময় নেয়নি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক মার্চেন্ট ব্যাংকের প্রধান নির্বাহী এ প্রসঙ্গে বলেন, বাজেট প্রস্তাবনার পরের সপ্তাহ থেকেই বাজারে লেনদেন ও সূচক উভয়ই ক্রমাগত কমেছে। বিশেষ ট্রাইব্যুনালে নেয়ার ফলে পুঁজিবাজারের মামলাগুলো ফের সচল হয়ে যাবার আশঙ্কা করছেন কারসাজির সাথে জড়িত সংশ্লিষ্ট বড় বিনিয়োগকারীরা। আর মামলা আতঙ্কে বেশ কিছু বড় বিনিয়োগকারী বাজার থেকে সাইডলাইনে চলে যাচ্ছে। বাজার সংশ্লিষ্টদের মতে, এসব বড় বিনিয়োগকারীরাই বাজারকে চাঙ্গা রাখে।

তাদের মতে, বাজারে সাম্প্রতিক সময়ের টানা সূচকের পতনকে অনেকে প্রোফিট টেকিং প্রবনতা বললেও বাজারের টার্নওভারের সাথে তা সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়। প্রোফিট টেকিং প্রবনতায় সাধারণত লেনদেনে উর্ধ্বগতি থাকে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাওয়া হলে অ্যালায়েন্স সিকিউরিটিজ অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট লিমিটেডের চেয়ারম্যান পঙকজ রায় শেয়ারবাজারনিউজ ডট কমকে জানান, ‘মামলাগুলো বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিষয়টিতো আছেই। এর পাশাপাশি জুন মাস বলে হয়তো বাজার একটু নিম্নমুখি প্রবনতায় রয়েছে। এ সময়টা বাজার এমনই থাকে। আর এর সাথে যুক্ত হয়েছে রমজানের মৌসুম। আমাদের দেশের শেয়ারবাজারে রমজান আসার আগের দু সপ্তাহ এমনই বাজার একটু পড়তির দিকে থাকে। আমরা আমাবাদি যে প্রত্যেক বছরের মত এ বছরও রমজান শুরু হবার পরপরই বাজার ভালো হবে।’

 

শেয়ারবাজারনিউজ/ও/মু

আপনার মন্তব্য

Top